বাংলাদেশের বাণিজ্য সুবিধা কমাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র?


বাংলাদেশের বাণিজ্য সুবিধা কমাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র?

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশী পণ্য রফতানিতে বাণিজ্যিক সুযোগ-সুবিধা কমাতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। শিগগিরই দেশটির প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এ ঘোষণা দিতে পারেন। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন সূত্রে এ তথ্য উঠে এসেছে।
জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য প্রতিনিধি সংস্থা (ইউএসটিআর) সরকারের অন্যান্য সংস্থার সঙ্গে পরামর্শ করে বাণিজ্য সুবিধা কমানোর সুপারিশ চূড়ান্ত করেছে। ৩০ জুন এ বিষয়ে হোয়াইট হাউসের ঘোষণা দেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র সরকার মনে করেছে, এ হুমকি হয়তো বাংলাদেশে দীর্ঘদিনের প্রয়োজনীয় শ্রম পরিবেশ সংস্কারে যথেষ্ট উত্সাহ জোগাবে।

তবে সুবিধা কমানো নাকি পুরোপুরি বাতিল করা হবে, তা এখনো নিশ্চিত নয়। এ প্রসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের শ্রম সংগঠন দি আমেরিকান ফেডারেশন অব লেবার অ্যান্ড কংগ্রেস অব ইন্ডাস্ট্রিয়াল অর্গানাইজেশনসের (এএফএল-সিআইও) বাণিজ্যবিষয়ক প্রধান সেলেস্ত ড্রেক রয়টার্সকে বলেন, গত নভেম্বরে তাজরীন ফ্যাশনস ও সম্প্রতি সাভার রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় মৃত্যুর কারণে ওবামা প্রশাসন বাংলাদেশের বাণিজ্যিক সুবিধা বাতিল করতে বা কমিয়ে দিতে পারে।

প্রসঙ্গত, এএফএল-সিআইও ২০০৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশের পণ্যের অবাধ সুযোগ-সুবিধা (জিএসপি) বাতিলের দাবিতে প্রথম আবেদন করে। স্বল্পোন্নত দেশগুলোকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যে বাজার-সুবিধা দেয়া হয়, তা হলো জিএসপি বা জেনারালাইজড সিস্টেম অব প্রেফারেন্সেস। ১৯৭৬ সাল থেকে বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে এ সুবিধা পেয়ে আসছে। কিন্তু বাংলাদেশের প্রধান রফতানি পণ্য তৈরি পোশাক খাত এ সুবিধার আওতাভুক্ত নয়।

তবে এ ঘোষণা বাংলাদেশের রফতানিতে খুব বেশি প্রভাব ফেলবে না বলে মনে করেন বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) গবেষণা পরিচালক ড. জায়েদ বখ্ত। তিনি বণিক বার্তাকে বলেন, বাণিজ্য সুবিধা বাদ দিলে তা শাস্তি হিসেবে না নিয়ে বরং সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য ব্যবহার করা উচিত হবে। দেশের রফতানি খাতে বর্তমানে কর্মপরিবেশ থেকে শুরু করে সার্বিক মানের যতটুকু উন্নয়ন হয়েছে, তা আন্তর্জাতিক চাপের মুখেই সম্ভব হয়েছে। কারণ দেখা গেছে, সরকার বা স্থানীয় উদ্যোক্তা চাপে না পড়লে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে বিরত থাকেন। তবে এ ধরনের সুবিধা বৃদ্ধি বা কমানোর পাশাপাশি ক্রেতা দেশগুলোর কারিগরি ও আর্থিক সহযোগিতায় এগিয়ে আসা প্রয়োজন।

সূত্রমতে, গত আট মাসে বাংলাদেশের পোশাকশিল্পে একের পর এক দুর্ঘটনায় সহস্রাধিক শ্রমিকের প্রাণহানি ঘটেছে। এর পর থেকেই বাংলাদেশকে দেয়া বাণিজ্য সুবিধা বাতিল করার দাবি ওঠে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মহলে। ডিসেম্বরে তাজরীন দুর্ঘটনার পর থেকেই ইউএসটিআর জিএসপি সুবিধা পর্যালোচনার জন্য চাপ দিতে শুরু করে। রানা প্লাজা ধসের পর এ পর্যালোচনায় নতুন মোড় নেয়। সর্বশেষ গতকাল শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার বরাতে প্রতিবেদনটি প্রকাশ হয়।

গ্লোবাল ওয়ার্কস ফাউন্ডেশনের সঙ্গে সম্পৃক্ত বাণিজ্যবিষয়ক বিশ্লেষক এড গ্রেসার জানান, গত বছর বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রে তাঁবু, গলফ খেলার সরঞ্জাম, প্লেটসহ প্রায় সাড়ে ৩ কোটি মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য রফতানি করেছে। এর ওপর জিএসপি সুবিধা বাবদ ২০ লাখ ডলার শুল্কছাড় পেয়েছে। আবার বাংলাদেশ ৪৯০ কোটি ডলারের তৈরি পোশাক রফতানি করতে গিয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে ৭৩ কোটি ২০ লাখ ডলার শুল্ক দিয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, যদিও রফতানি খাতের মূল পণ্য তৈরি পোশাক খাত কোনো ধরনের বাণিজ্য সুবিধা পায় না। তার পরও শ্রম নিরাপত্তাহীনতার তাত্পর্য মাথায় রেখে প্রতীকী জবাব হিসেবেই বাংলাদেশকে দেয়া সুবিধা কমিয়ে দিতে পারে যুক্তরাষ্ট্র। বিশ্ব-অর্থনীতিতে ক্ষমতাধর দেশ হিসেবেই তারা এ ধরনের পদক্ষেপ নিলে তা অনুসরণ করতে পারে ইউরোপসহ অন্যান্য দেশ।

অন্যদিকে রফতানি খাতসংশ্লিষ্টরা বলছেন, বাণিজ্য সুবিধা বাতিল হলে তা বাংলাদেশের রফতানি খাতের ভাবমূর্তির সংকটকে আরো ত্বরান্বিত করবে। কারণ এরই মধ্যে বিশ্বব্যাপী যে নেতিবাচক মনোভাব তৈরি হয়েছে, তা আরো জোরালো হয়ে ভাবমূর্তি সংকটকে আরো দীর্ঘায়িত করবে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ গার্মেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিজিএমইএ) সভাপতি আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘বাণিজ্য সুবিধার আওতায় পোশাক খাত নেই। তার পরও আমরা ইউএসটিআরের সঙ্গে যোগাযোগ করে সুবিধা অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানিয়েছিলাম। কিন্তু দেশটিতে আমাদের লবিংয়ের চেয়ে অ্যান্টি-লবিং অনেক বেশি জোরালো। আর তাজরীনের পর রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় কোনো লবিং বা অনুরোধ কাজে লাগছে না। যদিও আমরা ইতিবাচক সিদ্ধান্তের আশা এখনো ছেড়ে দিইনি।’

জানা গেছে, অতীতে অনেক আইনপ্রণেতাই বাংলাদেশ ও কম্বোডিয়া থেকে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া তৈরি পোশাক খাতকে জিএসপি সুবিধার আওতায় আনার প্রস্তাব দিয়েছেন। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক প্রস্তুতকারীরা এর বিরোধিতা করেছেন। আশির দশকে শ্রমিকদের অধিকার সুরক্ষার মানদণ্ডে উত্তীর্ণ হতে ব্যর্থ হওয়ায় অন্তত ১৩টি দেশের জিএসপি সুবিধা আংশিক বা পুরোপুরি বাতিল হয়। পরে তাদের বেশির ভাগই অধিকারের বিষয়টি নিশ্চিত করায় আবার জিএসপি সুবিধায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর দ্য সাউথ এশিয়া স্টাডিজের সহযোগী পরিচালক সঞ্চিতা সাক্সেনা জানান, বাংলাদেশী পণ্যের ক্ষেত্রে জিএসপি সুবিধা প্রত্যাহার করে নিলেও তা দেশটির তৈরি পোশাকশিল্পের শ্রমিকদের কোনো সহায়তায় আসবে না। তার মতে, যদি যুক্তরাষ্ট্র এ পরিস্থিতির উন্নয়নে সহায়তা করতে চায়, তাহলে আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড কর্তৃপক্ষ ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলো এসব পোশাক কারখানায় নজরদারি করতে পারে এবং বিদ্যমান আইনগুলো প্রয়োগে চাপ দিতে পারে।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরে নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের ভবন ও অগ্নিনিরাপত্তার বিষয়টি উঠে আসে। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ইউরোপের ক্রেতারা এরই মধ্যে বাংলাদেশের সঙ্গে ভবন ও অগ্নিনিরাপত্তা-বিষয়ক চুক্তি সই শুরু করেছে। কিন্তু মার্কিন ক্রেতাদের এখনো বিষয়টিতে খুব একটা এগিয়ে আসতে দেখা যায়নি।

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র জেন পিসাকি এ প্রসঙ্গে বলেন, বিষয়টি নিয়ে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিজস্ব সিদ্ধান্ত নিতে হবে। ভবন ও অগ্নিনিরাপত্তায় সাহায্যের বিষয় নিয়ে মার্কিন সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে সংলাপ চলছে। সেখানকার কর্মপরিবেশকে মূলে রেখেই আলোচনা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশের সঙ্গে মার্কিন ক্রেতাদের চুক্তি ও দায়িত্বশীল আচরণ বিষয়ে প্রশ্ন উঠলে জেন পিসাকি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র মনে করে, ক্রেতারা কর্মপরিবেশ ও মানবাধিকার ইস্যুতে তাদের সর্বোচ্চ মান বজায় রাখবেন। যদি কোনো নির্দিষ্ট চুক্তি সই নাও হয়, যুক্তরাষ্ট্র মানবাধিকার ও কর্মপরিবেশ নিরাপত্তায় সর্বোচ্চ মান ধরে রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করবে। আশা করি, ক্রেতারা নিজ থেকেই এ মান বজায় রাখবেন।’
উল্লেখ্য, ২০১২ সালের নভেম্বরে তাজরীন ফ্যাশনসের অগ্নিকাণ্ডে মৃত্যু হয় ১১৩ শ্রমিকের। এর পরই স্মার্ট ফ্যাশনে আগুন লেগে মৃত্যু হয় ছয়জনের। আর চলতি বছর রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা ১ হাজার ১৩০।

Obama nears decision on Bangladesh trade following tragedies

Fri, Jun 14 03:16 AM IST

By Doug Palmer

WASHINGTON (Reuters) – President Barack Obama could soon decide to cut off trade benefits for Bangladesh, in a largely symbolic response to tragedies in the country’s garment sector that have cost more than 1,200 lives in the past eight months.

The U.S. Trade Representative’s office, with input from other government agencies, is completing its recommendations in preparation for a White House announcement by June 30.

Even though the trade benefits affect less than 1 percent of Bangladeshi exports to the United States, its government has pleaded with the Obama administration not to cut them off.

The AFL-CIO, the largest U.S. labor organization, first filed a petition to suspend Bangladesh from the U.S. Generalized System of Preferences program in 2007.

The U.S. government has put off that decision for six years, hoping the threat would be enough to encourage Bangladesh to make long-needed labor reforms.

But after the Tazreen factory fire in November that killed 112 people and the Rana Plaza building collapse in April that killed 1,129 more, it seems likely that Obama will eliminate or reduce the trade benefits, Celeste Drake, the AFL-CIO’s lead on trade issues, told Reuters this week.

The past year in Bangladesh has been so horrendous that unless the United States acts the labor provisions of the GSP program will be seen as meaningless, she said.

The GSP program is aimed at helping create jobs in poor countries by waiving U.S. duties on thousands of goods as long as the countries meet certain eligibility requirements.

Bangladesh has been in the program since it began in 1976. But its main export, clothing, is not eligible for GSP tariff cuts, in deference to the U.S. textile and apparel industry, which employed some 2.4 million workers four decades ago compared to less than 300,000 now.

Last year, the GSP program spared Bangladesh about $2 million in duties on $35 million worth of tents, golf equipment, plates and other items it exported to the United States, said Ed Gresser, a trade analyst with the GlobalWorks Foundation.

But Bangladesh paid about $732 million in duties on $4.9 billion worth of clothing to the United States. That is almost twice as much as the $383 million in U.S. tariffs collected on $41 billion worth of French goods in 2012, Gresser said.

In the past, some lawmakers have proposed changing the GSP program to provide duty-free benefits for clothing from Bangladesh and Cambodia, but U.S. textile manufacturers lobbied to prevent action on the legislation.

At least 13 countries have lost some or all of their GSP benefits since workers rights protections were added to the eligibility criteria in the 1980s. Most have been reinstated after making progress on the concerns.

While Bangladeshi clothing manufacturers would not be directly affected by a decision to suspend the GSP program, Drake said she expected other Bangladeshi companies hit with increased duties to join the international community in lobbying the government for labor reforms.

“It’s a small stick, which is perhaps right, given that it is a developing country. Nobody wants to do something that would be an earthquake to their economy,” Drake said.

Sanchita Saxena, associate director of the Center for South Asia Studies at the University of California at Berkeley, said revoking Bangladesh’s GSP benefits would not help workers in Bangladesh’s garment industry.

“If the U.S. wants to help improve conditions, international brands and international NGOs can help in building capacity to monitor the thousands of factories that need monitoring and help to enforce some of the laws that are in the books,” she said.

U.S. retailers should also sign an agreement embraced by European retailers to improve safety conditions in Bangladesh’s garment industry, Saxena said.

– See more at: http://bonikbarta.com

বাংলাদেশে আইনের শাসন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র চিন্তিত


মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাহায্য ছাড়া পদ্মা সেতু প্রকল্পের ভবিষৎ অনিশ্চিতঃ

বাংলাদেশে আইনের শাসন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র চিন্তিত, বিদেশী বিনিয়োগের বড় বাঁধা হচ্ছে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা আর দুর্নীতি – ড্যান ডব্লিউ মজিনা

লস এঞ্জেলেস, ২৩ অক্টোবর (একুশ নিউজ মিডিয়া)ঃবাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনা লস এঞ্জেলেসে প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমেরিকার তার নিজস্ব স্বার্থেই বাংলাদেশের পাশে থাকবে। পৃথিবীর সপ্তম বৃহত্তম ও বিশ্বের চতুর্থ মুসলিম অধ্যুষিত বাংলাদেশ ভূ-রাজনৈতিক কারণেই আমেরিকার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। গত ১০ বছরে বাংলাদেশের প্রতি ওয়াশিংটনের দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টে গেছে। দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক বিক্ষুদ্ধ চরমপন্থী সহিংসতার মাঝে মধ্যপন্থী সহিষ্ণু গণতান্ত্রিক লোকায়ত রাষ্ট্রশক্তি হিসাবে বাংলাদেশের বর্তমান উত্থান এই অঞ্চলে প্রচণ্ড আশাবাদ নিয়ে এসেছে। বর্তমানে প্রতিবেশী দেশ ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, বার্মা এমনকি চীনের সাথে বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ সহযোগীতার কেন্দ্রস্থল হিসাবে আবির্ভুত হচ্ছে। শান্তিরক্ষী মিশনে বিশ্বের প্রথম দুটি পূর্ণাঙ্গ মহিলা পুলিশ ইউনিট সহ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে  ১০ হাজার ৬৫৩ জন শান্তিরক্ষী সদস্যের বৃহত্তম শান্তিরক্ষা বাহিনী হিসাবে বিশ্বে বাংলাদেশ সুনাম কুড়াচ্ছে। তারজন্য আমেরিকা বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানায়।’ বাংলাদেশে গণতন্ত্র, মানবাধিকার রক্ষা ও মানবহিতৈষী কর্মকান্ডে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চলমান সহযোগিতা ও সাহায্যের কথা ড্যান ডব্লিউ মজিনা অভিবাসী বাংলাদেশীদের জানান। তিনি বলেন আমেরিকা চায় বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে আরো উন্নত হোক।

This slideshow requires JavaScript.


বাংলাদেশের সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কিছু বিষয়ে মতপার্থক্য এখনো বিদ্যমান। তিনি এই প্রসঙ্গে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গ্রামীণ ব্যাংকের ভূয়সী প্রশংসা করেন। দারিদ্র্য দূরীকরণে মাইক্রোক্রেডিটকে সাফল্যকে যুগান্তকারী বলে আখ্যায়িত করে বলেন, আমেরিকা এই প্রতিষ্ঠানের সার্থক প্রসারের ধারায় অনুভূতিশীল ও সহানুভূতিশীল। আশ্রয়হীন, বিপদগ্রস্ত রোহিঙ্গাদের অতীতের মতোই আশ্রয় দেয়ার জন্য আবারও বাংলাদেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনা। তিনি এই প্রসঙ্গে বাংলাদেশকে আরো মানবিক হতে আহ্বান জানান। তিনি বলেন ১৯৭১ সালে বাংলাদেশী উদ্বাস্তুরা ভারতে আশ্রয় নেয়, সেই ঘটনার কথা তিনি স্মরণে আনেন। শ্রমিক অসন্তোষ নিয়েও তার উদ্বেগের কথা জানান। বাংলাদেশকে আগামীর এশিয়ান টাইগার হিসেবে উল্লেখ করে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনা বলেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, দুর্নীতি রোধ, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ নিশ্চিত করা প্রয়োজন।  

স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে আলাপ প্রসঙ্গে ড্যান মজিনা বলেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের প্রতিশ্রুত ১২০ কোটি মার্কিন ডলারের ঋণ-সহায়তার উপরই নির্ভর করছে পদ্মা সেতুর ভবিষৎ। মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, সেতু হলে বাংলাদেশের তথা এ দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলেরও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়বে। দক্ষিণ এশিয়ার উন্নয়নে পদ্মা সেতুর জন্য ঋণ পাওয়ার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র,ভারত এবং জাপানসহ বন্ধু রাষ্ট্রগুলো কাজ করছে। এখন ভারত সেই আশাবাদ থেকে সরে এসে  দক্ষিণ এশিয়ায় নিজেদের বাণিজ্যিক সম্প্রসারণে ভিন্নভাবে অগ্রসর হচ্ছে। পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্বব্যাংক অর্থায়নের স্বাভাবিক শর্তে বর্তমান সরকারের অস্বাভাবিক আচরনে তিনি হতাশা ব্যক্ত করেছেন। নিজেদের আভ্যন্তরীণ আয়োজনে এই সেতু নির্মান করা প্রায় অসম্ভব বলে তিনি বলেন, পদ্মা সেতুর জন্য ঋনের ব্যাপারটাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা ও আগামী নির্বাচনে এই ইস্যুকে জনগনের সামনে এনে সুবিধা নেওয়ার চিন্তা-ভাবনা চলছে। 

গত কয়েক বছর ধরে আফ্রিকার কয়েকটি দেশে চলমান কর্মসূচীর অংশ হিসাবে প্রবাসী বাংলাদেশী-আমেরিকান শিক্ষাবিদ, চিন্তাবিদ, পেশাজীবী ও ব্যবসায়ী সম্প্রদায়কে নিজ নিজ দেশের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক অঙ্গনে গুনগত উন্নয়নে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্র ষ্টেট ডিপার্টমেন্টের সুদূরপ্রসারী উদ্যোগের অংশ হিসাবে মার্কিন কূটনীতিকদের এই আয়োজন। এই প্রকল্পের অংশ হিসাবে নতুন প্রজন্মদের সম্পৃক্ত করে নতুন ব্যবসা পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের জন্য মিলিয়ন ডলারের পুরষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে ষ্টেট ডিপার্টমেন্টের মিতুল দেশাই। দেশে জনসেবায় প্রবাসীদের উদ্বুদ্ধ করার নিমিত্তে ষ্টেট ডিপার্টমেন্টের মাধ্যমে তাদের এমবেডেড এনজিওগুলির সাথে কাজ করার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

প্রবাসীদের অর্জিত ব্যবসা, প্রফেশনাল ও সাইন্টিফিক নেটওয়ার্ককে স্বদেশে সম্প্রসারিত করার লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্রের এই কমিউনিটি উদ্যোগ ষ্টেট ডিপার্টমেন্ট ও আমেরিকান দূতাবাসের সহযোগীতায় তাদের আমব্রেলা অর্গানাইজেশনগুলির মাধ্যমে কো-ডেভেলপমেন্টের সুযোগ তৈরী করাই এই ইনিশিয়েটিভের লক্ষ্য। এই প্রসঙ্গে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনা বলেন, যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশে রপ্তানী এক বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। এতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় নয় হাজার লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। আগামী তিন বছরে এই রপ্তানিকে তিনগুন করার লক্ষ্যে প্রবাসী ব্যবসায়ীদের এগিয়ে আসবার আহ্বান জানান। আমেরিকান দূতাবাস এই ব্যাপারে সর্বাত্মক সাহায্য করার অঙ্গীকার করছে।

লস এঞ্জেলেসের ব্রেন্টউডে প্রবাসী ব্যবসায়ী ফিরোজ ফখরীর বাসভবনে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে পার্টনারশিপ ডায়লগের অংশ হিসাবে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ বিজনেস ফোরাম (ইউ এস বি বি এফ) এ মতবিনিময় নৈশভোজের আয়োজন করে। গত সপ্তাহজুড়ে আমেরিকার বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে বিভিন্ন স্তরের এই মতবিনিময়ে অংশ নিচ্ছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ও ষ্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তারা। এই পর্যায়ে নিউইয়র্ক, পোর্টল্যান্ড ও ক্যালিফোর্ণিয়ায় প্রবাসী সীমিতসংখ্যক বাংলাদেশী নাগরিকদের সাথে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ও ষ্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তারা খোলামেলা কথা-বার্তা বলেন। লস এঞ্জেলেসে প্রথমে ইউনিভার্সিটি অফ সাউদার্ণ ক্যালিফোর্ণিয়ায় শিক্ষক-ছাত্র ও কমিউনিটির গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে লাঞ্চ, বিকালে উডল্যান্ড হিলের এক প্রবাসীর বাসায় ইভনিং টী প্রোগ্রাম ও রাতে বেভারলি হিলস-ব্রেন্টউড এলাকায় ডিনার পার্টি আয়োজন করা হয়। আলোচনা ও নৈশভোজে স্থানীয় প্রবাসীদের সাথে রাষ্ট্রদূত পত্নী গ্রেস ফিনে মজিনাও উপস্থিত থেকে সবার সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। ফিরোজ ফখরী তার স্বাগত বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত মজিনাকে এই কমিউনিটি উদ্যোগের জন্য ধন্যবাদ জানান। এরপর মজিনা অভ্যাগত অতিথিদেরও কয়েকটি প্রশ্নের জবাব দেন। এই পর্বটি পরিচালনা করেন ইউ এস বি বি এফ-এর প্রসিডেন্ট মোঃ জাফরুল্লাহ। 
Video: United States Ambassador to Bangladesh – Dan Mozena with Bangladeshi American in Los Angeles
-Jahan Hassan
Editor,
Ekush News Media
13659 Vicory Blvd, #376, Van Nuys, CA 91401, USA

1 818 266 7539
editor@Ekush.info
FaceBook: 
http://www.facebook.com/jahan.hassan.1

Pic Link: http://www.facebook.com/media/set/?set=a.10151198517861897.480982.826936896&type=1&l=a99bed5285


Dan Mozena Grace Feeney -Jahan Hassan Ekush News Media জাহান হাসান একুশ নিউজ মিডিয়া
Editor

http://www.probashipotro.com/2012/10/26/padmasetu/

সরকারি নিষ্ক্রিয়তায় বাড়ছে যৌনসন্ত্রাস- দেশব্যাপী অসংখ্য যৌনসন্ত্রাসের ঘটনা ঘটলেও কোনোটির বিচার হয়নি।


সরকারি নিষ্ক্রিয়তায় বাড়ছে যৌনসন্ত্রাস

দেশব্যাপী অসংখ্য যৌনসন্ত্রাসের ঘটনা ঘটলেও কোনোটির বিচার হয়নি।

মঈনুল হক ● ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজে শিক্ষার্থীর ওপর যৌনসন্ত্রাসের ঘটনা প্রকাশ হওয়ার পর আবারো সারাদেশে বিষয়টি নিয়ে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। যৌন উৎপীড়ক সন্ত্রাসীদের রুখতে আইনের যথাযথ প্রয়োগের দাবি উঠেছে। নারীর সামাজিক ও ব্যক্তিগত নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী দ্রুত আইন প্রণয়নের দাবিও সামনে আসছে। একটি অপরাধের বিচার না হওয়ায় আরেকটি অপরাধ উৎসাহিত হচ্ছে বলে আইনজ্ঞরা মনে করছেন। ভিকারুননিসার ঘটনার পর বিষয়গুলো নতুন করে সামনে এলেও দাবি নতুন নয়। আড়াই বছর ধরে দেশে অব্যাহত যৌনসন্ত্রাস ও নারী নির্যাতনের প্রেক্ষাপটে ধারাবাহিকভাবে এ দাবি করে আসছেন নারী অধিকার আন্দোলন সংশ্লিষ্টরা। বিপরীতে নারী উৎপীড়করা একের পর এক রোমহর্ষক যৌনসন্ত্রাসের ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে। যখন একটির পর একটি ঘটনা দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করছে তখন রাষ্ট্রীয় দায়িত্বশীলরাও কয়েকদিনের জন্য নড়ে বসছেন। আশ্বাস দিচ্ছেন কঠোর আইন প্রণয়নের। কিন্তু এরপর আবার যা তাই। আবার তারা হয়ে পড়ছেন নিষ্ক্রিয়। কার্যকর হচ্ছে না কোনো প্রতিশ্রুতি। বিচার হচ্ছে না একটি ঘটনারও। আরো বেপরোয়া হচ্ছে যৌনসন্ত্রাসীরা। জুলাইয়ের ১৫ তারিখ পর্যন্ত পনের দিনেই পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্যানুযায়ী, দেশে যৌননিপীড়নের ঘটনা ঘটেছে কমপক্ষে ১৮টি। শিক্ষক থেকে পুলিশ কর্মকর্তা পর্যন্ত এসব ঘটনার সঙ্গে জড়িত রয়েছেন।

আইনের যথাযথ প্রয়োগ না থাকা, বিচারের দীর্ঘসূত্রতা ও ক্ষতিগ্রস্ত নারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত না করার কারণে অপরাধীরা উৎসাহিত হচ্ছে বলে মনে করছেন দেশের বিশিষ্ট নারী আইনজ্ঞরা। এছাড়াও নারী অধিকার কর্মীদের মতে, রাষ্ট্রের পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতা নারীর ওপর যৌননিপীড়নের অন্যতম কারণ হিসেবে কাজ করছে।

বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের রিপোর্ট অনুযায়ী, আড়াই বছরে যৌন উৎপীড়ক সন্ত্রাসীদের নির্যাতনে আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন কমপক্ষে ৬৫ জন নারী। সন্ত্রাসীরা ধর্ষণের পর হত্যা করেছে ২২০ জনের বেশি নারী ও শিশুকে। ২০০৯ থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে এক হাজার ৩০৭টি। এছাড়াও যৌন উৎপীড়কদের বিরোধিতা করতে গিয়ে জীবন দিয়েছেন কমপক্ষে ১৫ জন। যার মধ্যে ৭ জনই নিহত হয়েছেন এ বছরের প্রথম ৬ মাসে। মানবাধিকার সংস্থা ও পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্টে দেখা গেছে, যৌনসন্ত্রাস ক্রমেই বাড়ছে। নির্যাতনে হত্যা ও আত্মহননের পরিসংখ্যান দীর্ঘ হলেও বিচার হচ্ছে না কোনো ঘটনার। যেসব ঘটনায় আলোড়ন সৃষ্টি হচ্ছে সে ক্ষেত্রে প্রশাসন কিছু পদক্ষেপ নিলেও পরবর্তীতে তা চাপা পড়ে যাচ্ছে নতুন ঘটনার নিচে। অনেক ঘটনায় ক্ষমতাসীনরা যৌনসন্ত্রাসীদের পক্ষাবলম্বন করেছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। দেশে আলোড়ন সৃষ্টিকারী কয়েকটি যৌনসন্ত্রাসের ঘটনায় নিহতদের পরিবারের কাছে সরকারের মন্ত্রীরা যেতে বাধ্য হয়েছেন। সে সময় অনেক আশ্বাস দেওয়া হলেও তার বাস্তবায়ন আজও হয়নি। এমন হারিয়ে যাওয়া আশ্বাসের মধ্যে রয়েছে মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বাড়ৈখালী উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী হাসনা রহমান সিনথিয়ার আত্মহনন, ফরিদপুরের চাঁপা রানী ও নাটোরের শিক্ষক মিজানুর রহমান হত্যাকান্ড। এই তিনটি ঘটনায় সরকারের একাধিক মন্ত্রী ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন এবং দোষীদের কঠোর শাস্তি ও যৌনসন্ত্রাস বিরোধী আইন প্রণয়নের আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু কোনো ঘটনার বিচার হয়নি আজও, আইনও পাস হয়নি।

ভিকারুননিসায় শিক্ষকের যৌনউৎপীড়নের বিষয়টি প্রকাশ পাবার পর থেকে আবার নতুন করে দেশব্যাপী যৌননির্যাতনের বিষয়টি সামনে এসেছে। এ ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটিতে অচলাবস্থা সৃষ্টির পাশাপাশি বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ অপরাধীর বিচারের দাবিতে সোচ্চার হয়ে উঠলেও ক্ষমতাসীন সরকার তখনো পর্যন্ত এ বিষয়ে নীরবতা পালন করে। আইন-শৃঙ্খলা ও ন্যায়বিচারের বিষয়ে সর্বদা সজাগ এবং দৃঢ়প্রতিজ্ঞ মুখরা মন্ত্রীরা এ বিষয়ে ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীর পক্ষে একটি কথাও বললেন না। প্রথম দিকে অপরাধী শিক্ষককে বাঁচানোর চেষ্টা চলেছে প্রতিষ্ঠানটির প্রধানসহ একাংশের উদ্যোগে। শিক্ষার্থী-অভিভাবক ও বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের তীব্র প্রতিবাদের মুখে ওই শিক্ষক গ্রেফতার হলেও তার সহযোগীদের ধরা হয়নি। যৌনউৎপীড়ক শিক্ষককে রক্ষার অভিযোগে অধ্যক্ষের অপসারণের দাবি তীব্র হয়। স্কুলের পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে অভিযুক্ত অধ্যক্ষকে অপসারণের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর দ্রুত সক্রিয় হওয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে সরকার। প্রথম মুখ খোলেন শিক্ষামন্ত্রী। অধ্যক্ষকে অপসারণের সিদ্ধান্ত নিয়ম মেনে নেওয়া হয়নি বলে জানান তিনি। দ্রুততার সঙ্গে পরিচালনা পর্ষদ বাতিল করে অ্যাডহক কমিটি গঠন ও অভিযুক্ত অধ্যক্ষকেই বহাল রাখার সিদ্ধান্ত নেন। এতে শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ আরো তীব্র হয়ে ওঠে। বাধ্য হয়ে সরকারের পক্ষ থেকে অধ্যক্ষ হোসনে আরাকে ৩ মাসের ছুটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ভিকারুননিসা নিয়ে এ ধরনের সিদ্ধান্ত ও পাল্টা সিদ্ধান্তের পর সরকারের পক্ষ থেকে আশা করা হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটির পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে। কিন্তু যৌনউৎপীড়ক শিক্ষকের বিচার নিয়ে কোনো কথাই বলা হচ্ছে না। আজ পর্যন্ত সরকারের পক্ষ থেকে দায়িত্বশীল কেউ প্রতিষ্ঠানটিতে যাননি।

বুধবারের অনুসন্ধানে দেখা গেছে দেশব্যাপী অসংখ্য যৌনসন্ত্রাসের ঘটনা ঘটলেও কোনোটির বিচার হয়নি।

উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ঘটনা : মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বারৈখালী গ্রামের স্কুলছাত্রী সিনথিয়া অব্যাহত যৌনহয়রানির শিকার হয়ে গত বছরের ১০ আগস্ট বিকালে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। তার আত্মহত্যার ঘটনার প্রতিবাদে দোষীদের বিচারের দাবিতে বারৈখালী উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করে। সিনথিয়ার পরিবার শ্রীনগর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করে। এ ঘটনায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আত্মহননকারী শিক্ষার্থীর বাড়িতে যান এবং দোষীদের বিচারের আশ্বাস দেন। একই সঙ্গে তিনি যৌন হয়রানি রোধে দ্রুত আইন পাসের কথা বলেন। বর্তমানে এই মামলাটির কি অবস্থায় তা জানতে চাইলে শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম জানান, ‘মামলাটির চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। এরপর কি অবস্থা তা আর জানি না।’

সিনথিয়ার পরিবার জানায়, সিনথিয়াকে উত্ত্যক্ত করার ঘটনায় বিদ্যালয়ে একাধিকবার সালিশ বৈঠক হয়েছে। যেখানে পুলিশও উপস্থিত ছিল। পুলিশ অভিযুক্ত জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতার করলে সিনথিয়াকে মরতে হতো না।

মেয়ের ওপর যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় গত বছরের ২৬ অক্টোবর ফরিদপুরের মধুখালীতে সন্ত্রাসীরা মোটরসাইকেল চাপা দিয়ে হত্যা করে চাঁপা রানী ভৌমিককে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও মধুখালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ আলী জানান, চাঁপা রানী হত্যা মামলায় দেবাশীষ, সঞ্জয় ও আলমগীরকে অভিযুক্ত করে ২২ ডিসেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেওয়া হয়েছে। আসামিরা আটক রয়েছে। কিন্তু মামলার আর কোনো অগ্রগতি নেই।

অভিযোগ রয়েছে, ঘটনাটি মীমাংসা করে নেওয়ার জন্য আসামিপক্ষ চাপা রানীর পরিবারের ওপর চাপ প্রয়োগসহ বিভিন্ন কৌশল অব্যাহত রেখেছে। এ ঘটনার পর শিক্ষামন্ত্রী ও শিল্পমন্ত্রী চাঁপা রানীর বাড়িতে গিয়েছিলেন।

২০১০ সালের ১২ অক্টোবর নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার লোকমানপুরে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় মোটরসাইকেল চাপা দিয়ে কলেজের শিক্ষক মিজানুর রশীদকে হত্যা করা হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাগাতিপাড়া থানার এসআই আবদুর রহিম ৬৪ দিন তদন্ত শেষে দুই আসামির বিরুদ্ধে ১৮ ডিসেম্বর আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। চার্জশিটভুক্ত দুই আসামি গ্রেফতার হলেও পুলিশ তাদের কাছ থেকে কোনো স্বীকারোক্তি আদায় করতে পারেনি। সরকার এই ঘটনার পর মিজানুর রশীদের স্ত্রীকে চাকরি দিলেও রাজন নামে এক আসামিকে রক্ষা করার জন্য নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের এক নেতা চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন বলে স্থানীয় সূত্রে অভিযোগ রয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর থানার বেগুনবাড়ি গ্রামের দিনমজুর বাইরুল ইসলামের মেয়ে নবম শ্রেণীর ছাত্রী নুরেশা খাতুন লিমা গত বছরের ১৯ ডিসেম্বর একদল সন্ত্রাসীর পাশবিক নির্যাতনে মারা যায়। ঘটনার পর স্থানীয়রা দুই নির্যাতককে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। এ ঘটনায় ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা হলেও অন্য আসামিরা এখনো গ্রেফতার হয়নি। নুরেশার পরিবারের অভিযোগ, ক্ষমতাসীনদের একটি অংশ আসামিদের বাঁচাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। গোমস্তাপুর থানার ওসি জানান, যে তিন আসামি বাইরে রয়েছে তাদের একজন হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে আছে। অন্য আসামিদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

২০১০ সালের ৫ জুলাই টাঙ্গাইল জেলার সখীপুর উপজেলার কাহারতা গ্রামের নবম শ্রেণীর এক কিশোরীকে উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক হাবিবুল্লা ইতিহাস ওরফে হাবিব, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা আরিফ আহমেদ এবং সখীপুর উপজেলা চেয়ারম্যান শওকত শিকদারের ভাগ্নে বাবুল আজাদ ও তার নাতি আরিফুল ইসলাম আকাশ অপহরণ করে একটি ছাত্রাবাসে নিয়ে যায়। সেখানে হাবিবুল্লা ইতিহাস ওরফে হাবিব তাকে ধর্ষণ করে। এ সময় তার সহযোগীরা ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ধারণ করে। সখীপুর থানা পুলিশ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১০ আদালতে হাবিবকে একমাত্র আসামি করে চার্জশিট দাখিল করে। পরে হাবিব হাইকোর্ট থেকে জামিন পেয়েছে।

যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় গত বছরের ২০ অক্টোবর বখাটেদের হাতে মাগুরার শরিফুজ্জামান নামে এক শিক্ষক আহত হন। এ ঘটনায় চিহ্নিত সন্ত্রাসী ডিয়ারসহ পাঁচজনকে আসামি করে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। এই মামলাটি এখন কোনো অবস্থায় আছে তা পুলিশও জানে না। মাগুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, এমন কোনো মামলার কথা মনে করতে পারছি না। এই মামলার কোনো আসামি আটক হয়নি বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না পেয়ে ২৫ জুন ভোলায় প্রভাবশালী একটি পরিবারের ছেলে মমিনের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা দরিদ্র কৃষক পরিবারের এক কিশোরীকে অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে পিটিয়ে পা ভেঙে দেয় এবং পাশবিক নির্যাতন চালায়। ভোলা থানার ওসি মোবাশ্বের আলী জানান, পত্রপত্রিকায় এ ঘটনা প্রকাশ হওয়ার পর তারা ওই মেয়েটিকে বাড়ি থেকে নিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন এবং একটি মামলা গ্রহণ করেন। মামলায় তিন জনকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মেয়েটির পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে তারা অব্যাহত হুমকির মুখে রয়েছে। মামলারও কোনো অগ্রগতি নেই।

২৮ জুন বখাটে সন্ত্রাসীদের হাতে নির্যাতনের স্বীকার হয়ে মামলা করায় চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে সাতক্ষীরার একটি পরিবার। পাশাপাশি পুলিশের ভূমিকাও রহস্যজনক। ওসির নির্দেশে ৩ বার এজাহার সংশোধন করে মামলা রেকর্ড হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। যৌন নির্যাতনের ধারায় মামলাটি নেওয়া হয়নি বলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের অভিযোগ। দুর্বল ধারায় মামলা রেকর্ড হওয়ায় আসামিরা আরো বেপরোয়া হয়ে পড়েছে। নিরাপত্তার অভাবে যৌন হয়রানির শিকার মেয়ের পিতা থানায় জিডি করতে গেলে পুলিশ জিডি নেয়নি। সাতক্ষীরা থানার ওসির কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আসামিরা আদালত থেকে জামিন নিয়েছে এ কারণে ধরা যাচ্ছে না। আর বিষয়টি যৌন নির্যাতন নয়। এটি পারিবারিক দ্বন্দ্ব।’

হাইকোর্টের নির্দেশনা : ২০০৯ সালের ১৪ মে যৌননিপীড়নের সংজ্ঞা দিয়ে যৌন হয়রানি রোধে একটি নীতিমালা প্রণয়ন করে দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। ২০০৮ সালের ৭ আগস্ট কর্মস্থল ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নারী ও শিশুদের যৌন হয়রানি প্রতিরোধের জন্য দিকনির্দেশনা চেয়ে এ রিট দায়ের করা হয়েছিল।

রায়ে বলা হয়, সংসদে যৌন হয়রানি রোধে কোনো আইন প্রণয়ন না করা পর্যন্ত সংবিধানের ১১১ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী এ নীতিমালা বাধ্যতামূলকভাবে কার্যকর হবে। রায়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কর্মস্থলে যৌন হয়রানির বিষয়ে অভিযোগ কেন্দ্র গঠন এবং অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত নির্যাতিত ও অভিযুক্ত ব্যক্তির পরিচয় প্রকাশ না করার কথাও বলা হয়।

যৌন নিপীড়নের সংজ্ঞায় আদালত বলেন, শারীরিক ও মানসিক যে কোনো ধরনের নির্যাতন যৌন হয়রানির পর্যায়ে পড়ে। ই-মেইল, মুঠোবার্তা (এসএমএস), পর্নোগ্রাফি, টেলিফোনে বিড়ম্বনা, যে কোনো ধরনের চিত্র, অশালীন উক্তিসহ কাউকে ইঙ্গিতপূর্ণভাবে সুন্দরী বলাও যৌন হয়রানির পর্যায়ে পড়ে। শুধু কর্মস্থল কিংবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই এ ধরনের হয়রানি ঘটে না, রাস্তায় চলাচলের ক্ষেত্রে যেকোনো ধরনের অশালীন উক্তি, কটূক্তি করা, কারও দিকে খারাপ দৃষ্টিতে তাকানোও যৌন হয়রানি হিসেবে গণ্য করা হবে। রায় অনুযায়ী, কোনো নারীকে ভয়ভীতি দেখানো, যে কোনো ধরনের চাপ দেওয়া, মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে সম্পর্ক গড়া, দেয়াল লিখন, অশালীন চিত্র ও আপত্তিকর কোনো ধরনের কিছু করা যৌন হয়রানির মধ্যে পড়ে।

হাইকোর্টের এই নির্দেশনার পরে যৌন হয়রানি বন্ধের জন্য একটি খসড়া আইন প্রণয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির প্রতিনিধিদের সঙ্গে আইন কমিশনের একটি মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। রিট পিটিশনের নির্দেশনার আলোকে বিশেষজ্ঞ কমিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানি প্রতিরোধ আইনের একটি বাংলা খসড়া তৈরি করে আইন কমিশনে হস্তান্তর করে। কিন্তু আইনটি আলোর মুখ দেখেনি।

এ বিষয়ে অ্যাডভোকেট সালমা আলী বলেন, যৌন নির্যাতন প্রতিরোধে সরকারের দায়িত্ব অনেক। হাইকোর্ট যে নির্দেশনা দিয়েছে তা যদি সঠিকভাবে মানা হতো তা হলেও যৌন হয়রানি অনেক কমে যেত। এ ছাড়া ডিএমপি অধ্যাদেশেও এ সংক্রান্ত আইন আছে। কিন্তু সবক্ষেত্রে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তা মানছে না। তিনি আরো বলেন, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী একটি খসড়া আইন কমিশনে জমা দেওয়া আছে। সরকারের উচিত আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে দ্রুত এই আইনটি পাস করা। আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাব এবং বিচারের দীর্ঘসূত্রতার কারণে যৌন নির্যাতনের ঘটনা বাড়ছে।

অ্যাডভোকেট এলিনা খান বলেন, সামাজিকভাবে ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টি ও ভিকটিমের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা গেলে যৌন হয়রানি রোধে ইতিবাচক ফল পাওয়া যাবে। তাছাড়া যৌন নির্যাতন রোধে হাইকোর্টের নির্দেশনা ও বিদ্যমানের আইনের প্রয়োগ নিশ্চিত হওয়া দরকার।

আইনের যথাযথ প্রয়োগ ও বিচার না হওয়ার কারণে একের পর এক যৌনসন্ত্রাসের ঘটনা বেড়ে চলেছে। উৎপীড়নের শিকার নারীদের পারিবারিক ও সামাজিক নিরাপত্তা বরাবরই বিঘ্নিত হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্তদের প্রশাসনিক ও আইনি সহায়তা দেওয়া এবং যৌন উৎপীড়কদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের কোনো উদ্যোগ রাষ্ট্রীয়ভাবে নেওয়া হচ্ছে না। সরকারের সব উদ্যোগ আটকে আছে মৌখিক আশ্বাস এবং হম্বি-তম্বির মধ্যে। দুর্বল প্রশাসনিক ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে বখাটেদের শাস্তির নামে কিছু যুবকের দিন কতকের জেল বা জরিমানা এখন অনেকটা রসিকতায় পরিণত হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, কঠোর আইন, আইনের নিরপেক্ষ প্রয়োগ এবং দ্রুত বিচারের মধ্য দিয়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির বিধান করতে না পারলে যৌনসন্ত্রাসের মতো ব্যাধি থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে না। এ দায় সরকারকে নিতে হবে। [সাপ্তাহিক বুধবার থেকে]


১৮ না পেরুতেই যৌন অভিজ্ঞতা ৫০ শতাংশ শহুরে তরুণের

বাংলাদেশে বাণিজ্যিকভাবে শক্তিশালী যৌন ব্যবসা গড়ে উঠেছে।

https://ekush.wordpress.com/2011/07/19/sex/

Violence against women in Bangladesh rising

World News
Activists say that the rate of violence against women in Bangladesh is among the world’s highest and rising.

“Violence against women is increasing day by day as a result of family disputes, dowry system and eve teasing,” says Rosaline Costa, from Hotline (Human Rights) Bangladesh, a Church-based human rights organization.

“Every day 17 out of 100 women become victims of violence at home or in the workplace and 25% of them die”, Costa explained.

“Although people are more aware of the issues because of the media, poor law enforcement and male dominance are major barriers to preventing violence against women,” Costa told ucanews.com during the recent National Day of Prevention of Violence against Women on Aug. 24.

The nation has observed the event, which is also known as “Yeasmin Day,” since 1996 to commemorate the brutal rape and killing of garment worker Yeasmin, 14, by three policemen in northwestern Dinajpur district.

Yeasmin, a Muslim girl, was on her way home from work in Dhaka when she was molested, killed and her body abandoned beside the road.

Three accused were arrested and brought to trial in Sept. 1996. All initially received life sentences. However, they were later sentenced to death in 2004.

Although the Yeasmin case remains as an example of extreme violence against women, Father Albert Thomas Rozario, secretary of Episcopal Commission for Justice and Peace, says that such brutality is absent from the history of the Catholic Church in the country.

“The Catholic Church has taken many initiatives against such violence in our six dioceses,” he said.

“Mental and physical clashes do take place in Christian communities, but not to such an extent”, concluded Father Rozario, who is also a lawyer in the Bangladesh Supreme Court Bar Council.

URL to article: http://www.cathnewsindia.com/2010/08/31/violence-against-women-in-bangladesh-rising/
URL to article: http://budhbar.com/?p=5821