‘আমাদের অক্ষমতা আমাদের জীবনকে প্রায় প্রতিটি জায়গায় ব্যর্থ করে দিয়েছে। পরের ভালো দেখলে তাই আমরা কষ্ট পাই, বিষণ্ন হয়ে পড়ি। অক্ষম মানুষ সাধারণত ব্যর্থ হয়, ব্যর্থ মানুষ হয় পরশ্রীকাতর। পরশ্রীকাতরতা তাই আমাদের জীবনের সার্বভৌম অধীশ্বর।


ঢোলকলমি সাংবাদিকতার এই দেশে

আযম মীর

বাংলাদেশের বিল, ঝিল, পুকুর বা ডোবার পাড়ে ঢোলকলমি নামের দ্রুত বর্ধনশীল এক ধরনের গাছ জন্মে। শিকড় থেকে গাছের শাখা-প্রশাখা বিস্তার লাভ করে বলে পানি বাড়ার সাথে সাথে দ্রুত গাছও বাড়ে। কিছুটা ঝোপজাতীয় গাছ হওয়ায় মাটির ক্ষয় রোধে ঢোলকলমি বেশ সহায়ক। এ জন্য পুকুরের পাড় ভাঙা রোধ করতে অনেকেই ঢোলকলমির চারা লাগান। দ্রুত বর্ধনশীল বলে এ ঝোপ মাঝেমধ্যেই সাফ করে শুকিয়ে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হয়। আবার কয়েক দিনের মধ্যে শিকড় থেকে গাছ জন্মে নতুন কের ঝোপঝাড়ের সৃষ্টি হয়। জলজ উদ্ভিদ হওয়ায় নানারকম কীটপতঙ্গ ঢোলকলমির ঝোপে বাস করাটাই স্বাভাবিক। তবে কিম্ভূতকিমাকার দর্শন গায়ে কাঁটাওয়ালা ছোট একটি পোকা এ গাছের পাতায় দেখা যায়। সম্ভবত গাছের পাতা বা রস খেয়ে পোকাটি জীবন ধারণ করে থাকে।

আশির দশকের শেষ দিকে সে সময়ের একটি বহুল প্রচারিত দৈনিকে খবর বের হলো, ঢোলকলমি পোকার কামড়ে মানিকগঞ্জের এক গ্রামে এক ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছেন। ঠিক দু’দিন পর অন্য এক জেলায় একইভাব আরেকজনের মৃতুø হয়েছে বলে ওই কাগজে খবর বের হয়। ব্যস এরপর থেকে ঢাকার প্রায় সব ক’টি দৈনিকে ঢোলকলমি পোকার কামড়ে একের পর এক মৃতুø সংবাদ প্রকাশ হতে লাগল প্রতিযোগিতা করে। দেশজুড়ে শুরু হলো ঢোলকলমি পোকার আতঙ্ক। যারা কোনো দিন ঢোলকলমি গাছ দেখেনি তারাও জানার জন্য উদগ্রীব হয়ে উঠল। পত্রপত্রিকায় ঢোলকলমিবিষয়ক নানা প্রবন্ধ-নিবন্ধ ছাপা হতে লাগল। আতঙ্ক এতটাই ব্যাপকতা লাভ করে যে, গ্রাম-শহর সর্বত্রই ঢোলকলমি নিধনযজ্ঞ শুরু হয়ে গেল। বলা যায়, কয়েক দিনের মধ্যেই শিকড়বাকড়সহ ঢোলকলমি নামক উদ্ভিদটি দেশ থেকে এক প্রকার বিদায় নিলো।

ঢোলকলমি নিয়ে এ হই চই দেখে কীটপতঙ্গ বিশেষজ্ঞরা নড়েচড়ে বসলেন। অনুসন্ধান করে দেখা গেল ঢোলকলমি পোকা বলে যে কীটকে প্রাণঘাতী বলে প্রচার করা হয়েছে, তা আদৌ প্রাণঘাতী তো নয়ই, তার কোনো বিষই নেই। এটি দেখতে শুধু কদাকার এই যা। বিশেষজ্ঞদের মন্তব্য পত্রিকায় ছাপার পরও পরিস্থিতির খুব পরিবর্তন হলো না। অবশেষে সে সময়ের কৃষি তথ্য সার্ভিসের পরিচালক গিয়াসউদ্দিন মিলকী (মরহুম) একজন বিশেষজ্ঞকে নিয়ে বাংলাদেশ টেলিভিশনে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করলেন। এতে ঢোলকলমি গাছ এবং কথিত পোকাটি দেখানো হলো। পোকাটি যে নেহাতই নিরীহ তার যে কোনো বিষ নেই তা প্রমাণের জন্য মিলকী ও ওই বিশেষজ্ঞ নিজেদের হাতে কয়েকটি পোকা ছেড়ে দিয়ে দেখান। তারা দিব্যি বিচরণ করে বেড়াচ্ছে। কিন্তু দংশনের চেষ্টামাত্র করেনি। এ অনুষ্ঠানটি বেশ কয়েকবার প্রচার করা হয় টিভিতে। এরপর হঠাৎ করেই ঢোলকলমি পোকার দংশনে মৃতুø গুজব বন্ধ হয়ে যায়। এ ঘটনাটি নিয়ে সে সময় ব্যাপক আলোচনা হয়েছিল। প্রশ্ন উঠেছিল আমাদের সাংবাদিকতার মান নিয়ে। এরকম দায়িত্বহীন সাংবাদিকতাকে তখন ঢোলকলমি সাংবাদিকতা বলে কেউ কেউ আখ্যাও দিয়েছিলেন।

শুধু ঢোলকলমি পোকার কামড়ে মৃতুøর গুজবই নয়, ঝিনঝিনা রোগ ও জিনের আসরে মৃতুøর সংবাদ নিয়েও তোলপাড়ের ঘটনা নিশ্চয়ই অনেকের মনে থাকার কথা। আসল ঘটনা তলিয়ে দেখার আগেই সেনসেশন সৃষ্টির জন্য খবর বলে প্রচারের প্রবণতা এ দেশে আজো আছে। চিলে কান নিয়ে গেল রব উঠলে কানে হাত না দিয়ে চিলের পিছু ধাওয়া করা বাঙালির স্বভাবজাত। একটু তলিয়ে দেখার ধৈর্যটুকু আমাদের নেই। এ প্রবণতা সাংবাদিকতার ক্ষেত্রেও সমান ক্রিয়াশীল। নোবেল বিজয়ী প্রফেসর ইউনূসকে নিয়ে সম্প্রতি যা হয়ে গেল তা ওই ঢোলকলমি সাংবাদিকতারই আরেক রূপ বললে কি বেশি বলা হবে?

৩০ নভেম্বর ঢাকার দু’টি অনলাইন নিউজ এজেন্সি খবর প্রচার করে, নরওয়ের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন-এনআরকে ‘ক্ষুদ্র ঋণের ফাঁদে’ নামে একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রচার করেছে। ওই প্রামাণ্যচিত্রে দেখানো হয়েছে, গ্রামীণ ব্যাংক ১৯৯৮ সালে নোরাডসহ কয়েকটি সাহায্যদাতা সংস্থা থেকে পাওয়া সাহায্যের অর্থ ড. ইউনূসের অপর একটি সংস্থায় স্থানান্তর করা হয়েছিল। গ্রামীণ কল্যাণ নামের প্রতিষ্ঠানটিতে বিপুল অঙ্কের অর্থ সরিয়ে নিয়ে ড. ইউনূস অনিয়ম করেছেন। ডেনমার্কের একজন অনুসন্ধানী রিপোর্টার এ প্রামাণ্যচিত্রের নির্মাতা। পরদিন অনলাইনের ওই সংবাদ সূত্রে ঢাকার কয়েকটি দৈনিক প্রধান শিরোনাম করে। ‘ইউনূসের কেলেঙ্কারি’ ছিল একটি কাগজের শিরোনাম। অন্য কাগজগুলোর শিরোনামও ছিল প্রায় একই রকম। এরপর শুরু হয়ে যায় প্রফেসর ইউনূস ও গ্রামীণ ব্যাংক সম্পর্কে লেখালেখির ঝড়। প্রফেসর ইউনূসের দুর্নীতি, গ্রামীণ ব্যাংকের শোষণ, ঋণগ্রহীতাদের নিপীড়ন, এমনকি ড. ইউনূসের চরিত্র নিয়ে নানারকম লেখায় পরের কিছু দিন সংবাদপত্রগুলো ছিল ভরা। টেলিভিশনগুলোর টকশোতে প্রধান আলোচনার বিষয় গ্রামীণ ব্যাংক ও ড. ইউনূস। রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের অন্যতম মুখপাত্র মাহবুব উল আলম হানিফ এ সম্পর্কে প্রথম বিরূপ মন্তব্য করেন। তিনি সিলেটে সাংবাদিকদের কাছে বলেন, ইউনূস যে দুর্নীতিবাজ তা আবারো প্রমাণিত হলো। আবার তিনি এ কথাও বলেন, তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে ইউনূসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। দুর্নীতিবাজ প্রমাণিত হওয়ার পর আবার তদন্ত কেন দরকার তার অবশ্য তিনি ব্যাখ্যা দেননি। এরপর ছাত্রলীগ ঘোষণা দেয় ইউনূসের নোবেল পুরস্কার কেড়ে নিয়ে তা যোগ্য অন্য কাউকে দিতে। অবশ্য যোগ্য ব্যক্তিটির নাম তারা বলেনি। ইউনূস সম্পর্কে যখন সংবাদপত্রে খবর বের হয়, প্রধানমন্ত্রী তখন ১২ দিনের বিদেশ সফরে ছিলেন। দেশে ফিরে সংবাদ সম্মেলনে তিনি ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে তদন্তের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘গরিবের রক্ত চুষে খেলে একদিন না একদিন ধরা খেতেই হয়।’ তিনি গ্রামীণ ব্যাংক ও অন্যান্য এনজিও’র বিরুদ্ধে ক্ষুদ্র ঋণের নামে গরিব মানুষকে শোষণের কথাও বলেন। প্রধানমন্ত্রীর এ মন্তব্যের বিষয়টি বাংলাদেশে তো বটেই গোটা বিশ্বে অন্যতম সংবাদ শিরোনাম হয়। ‘দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে সংগ্রামের নায়ক নোবেল বিজয়ী নিজ দেশের সরকারের প্রধানের চোখে রক্তচোষা’ ধরনের শিরোনাম করেছে কয়েকটি আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সংবাদপত্র। দেশে-বিদেশে ড. ইউনূস যখন প্রতিদিন সংবাদের শিরোনাম হ্‌িচ্ছলেন, তিনি তখন দেশের বাইরে। সামাজিক ব্যবসায় নামক নতুন এক ধারণার প্রচার নিয়ে তিনি ব্যস্ত। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য যে দিন প্রকাশিত হয়, সে দিনই কোনো কোনো কাগজে ফরাসি প্রেসিডেন্টের সাথে তার হাস্যোজ্জ্বল ছবি ছাপা হয়েছে।

গ্রামীণ ব্যাংকসহ বিভিন্ন এনজিও’র ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রম দারিদ্র্য কমাচ্ছে কি না তা নিয়ে বিতর্ক অনেক দিনের। ড. ইউনূসের নোবেলপ্রাপ্তি নিয়েও অনেকে বিরূপ মন্তব্য করেছেন। তার পরও তিনি প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে এ আন্তর্জাতিক সম্মান বয়ে এনেছেন। বহু দেশে বাংলাদেশের নামটি বিশেষ পরিচিতি লাভ করেছে এই নোবেল পুরস্কারপ্রাপ্তির মাধ্যমে। গ্রামীণ ব্যাংক কিংবা ক্ষুদ্র ঋণ নিয়ে হয়তো আরো বহু বছর বিতর্ক হবে। এমনো হতে পারে, কালের পরিক্রমায় এ এনজিও কার্যক্রম হয়তো বন্ধ হয়ে যাবে। কিন্তু একজন ইউনূস যে বাংলাদেশের জন্য প্রথম নোবেল পুরস্কার নিয়ে এসেছেন তা কি ইতিহাস থেকে মুছে যাবে? অথচ ইউনূস জীবিত থাকতেই আমরা তাকে কালিমালিপ্ত করে দিলাম। তাকে অর্থ আত্মসাৎকারী বলে প্রচার করলাম। বিদেশী একজন সাংবাদিকের তৈরি করা তথ্যচিত্রের সত্যাসত্য যাচাই করার গরজটুকুও বোধ করলাম না।

তেরো বছর আগে নরওয়ের সাহায্য সংস্থা নোরাডের সাহায্য নিয়ে যে প্রশ্ন তোলা হয়েছে তথ্যচিত্রে, খোদ নোরাডই বলেছে বিষয়টির সাথে দুর্নীতি নয়, নীতিগত প্রশ্ন জড়িত ছিল। যার নিষ্পত্তি সে সময়ই হয়ে গেছে।

এ ঘটনা যখন ঘটে, আওয়ামী লীগ তখন ক্ষমতায়। সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংকও তা জানত। এত বড় অন্যায় হয়ে থাকলে সে সময় তদন্ত না করার দায় তো তাদের ওপরও বর্তায়। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পর এক বিবৃতিতে ড. ইউনূসও তদন্ত করার দাবি করেছেন। সেই তদন্ত হবে কি না দেশবাসী জানে না। তদন্ত হলে ড. ইউনূস দোষী সাব্যস্ত হবেন কি না তাও আগাম বলা যায় না। তবে নোবেল বিজয়ী ড. ইউনূস ও তার দেশ বাংলাদেশ সম্পর্কে বিশ্ববাসীর যে নেতিবাচক ধারণা জন্মালো তা দূর হবে না সহজেই। এ দেশের ভালো খবর খুব কমই প্রচারিত হয়। এ ঘটনার মধ্য দিয়ে আবারো কি প্রমাণিত হলো না, ‘আমরা হুজুগে বাঙ্গাল’। কিংবা নিরোদ চন্দ্র চৌধুরীর পর্যালোচনায় যেমন আছে ‘আত্মঘাতী বাঙালি’। অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ তার সংগঠন ও বাঙালি বইয়ে আমাদের চরিত্র বিশ্লেষণ করে লিখেছেন, ‘আমাদের অক্ষমতা আমাদের জীবনকে প্রায় প্রতিটি জায়গায় ব্যর্থ করে দিয়েছে। পরের ভালো দেখলে তাই আমরা কষ্ট পাই, বিষণ্ন হয়ে পড়ি। অক্ষম মানুষ সাধারণত ব্যর্থ হয়, ব্যর্থ মানুষ হয় পরশ্রীকাতর। পরশ্রীকাতরতা তাই আমাদের জীবনের সার্বভৌম অধীশ্বর। অক্ষমতার কারণেই আমরা এমন নেতিবাচক। আমরা যে পরিমাণ নিষ্ফল, সেই পরিমাণেই নিন্দুক। নিন্দার ভেতর দিয়ে নিজেদের অক্ষমতার প্রায়শ্চিত্ত খুঁজি।’ কে জানে বাঙালির এই পরশ্রীকাতর ও আত্মঘাতী আচার-আচরণ দেখেই হয়তো বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ খেদ করে লিখে গেছেন, ‘সাত কোটি সন্তানের হে মুগ্ধ জননী, রেখেছ বাঙালী করে মানুষ করোনি।’



Caught in Micro-Debt part 1 Original Documentary




%d bloggers like this: