এটি খুবই দুঃখজনক যে, নিয়মিত করদাতারা ২৫ শতাংশ হারে কর দেবেন, আর ফাঁকিবাজরা মাত্র ১০ শতাংশ হারে কর দিয়েই অপ্রদর্শিত অর্থ বৈধ করতে পারবেন


শেয়ারবাজারে কালো টাকা রাখতে হবে দুই বছর
শেয়ারবাজারে কালো টাকা রাখতে হবে দুই বছর মাত্র ১০ শতাংশ হারে কর দিয়েই শেয়ারবাজারে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া হলো। একই সঙ্গে প্রাইমারি শেয়ারে কালো টাকা বিনিয়োগ করলে প্রদেয় করে ১০ শতাংশ হারে ছাড় (রিবেট) পাওয়া যাবে। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এনবিআর চেয়ারম্যান নাসিরউদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। কালো টাকা বিনিয়োগের জন্য একটি নীতিমালা তৈরি করে তা প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করা হয়েছে বলে তিনি জানান। এদিকে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেয়ায় দুই সপ্তাহ ধরেই শেয়ারবাজারে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা বিরাজ করছে।
সংবাদ সম্মেলনে এনবিআর চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, শেয়ারবাজারে কালো টাকা বিনিয়োগ করলে তা দু’বছরের জন্য রাখতে হবে। আগামী এক বছর ১০ শতাংশ কর দিয়ে শেয়ারবাজারে কালো টাকা বিনিয়োগ করা যাবে। আর কেউ যদি প্রাইমারি শেয়ারে বিনিয়োগ করেন তাহলে প্রদেয় করের ওপর ১০ শতাংশ হারে রিবেট পাওয়া যাবে। তবে নির্ধারিত দু’বছরের আগে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করা কালো টাকা তুলে নিতে চাইলে সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগকারী ২৫ শতাংশ হারে কর দিয়ে বিনিয়োগ করা অর্থ তুলে নিতে পারবেন। পুরো বিষয়টি মনিটরিং করবে রাজস্ব বোর্ড। চলতি মাস থেকে আগামী বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত এ সুযোগ থাকবে। এনবিআর জানিয়েছে, কালো টাকা বিনিয়োগ করতে হলে এনবিআরকে একটি নির্ধারিত ফরমে ঘোষণা দিয়ে বিনিয়োগ করতে হবে। পাশাপাশি ওই টাকা বিনিয়োগের আগেই ১০ শতাংশ হারে কর দিতে হবে। এ সুযোগ নিতে হলে এনবিআরকে বেনিফিশিয়ারি ওনার্স (বিও) হিসাব দাখিল করতে হবে। শেয়ারবাজারে আগে বিনিয়োগ করা টাকা পুনরায় বিনিয়োগের সুযোগ নেয়া যাবে না।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন্যান্স বিভাগের অধ্যাপক ওসমান ইমাম বলেন, শেয়ারবাজারে রাজনৈতিক কারণে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া হয়েছে। কারণ আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই দু’বার শেয়ারবাজারে ধস নেমেছিল। এ কারণে বিভিন্ন ধরনের চাপের কারণেই সরকারকে শেয়ারবাজারে কালো টাকার সুযোগ দিতে হয়েছে। এদিকে বাজেট ঘাটতি পূরণে সরকার ব্যাংক থেকে প্রায় ১৮ হাজার কোটি টাকা নেয়ার কথা বলেছে। অথচ বাজেট ঘাটতি পূরণে শেয়ারবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহের সুযোগ থাকলেও সরকার সেটি গ্রহণ করেনি। এতে শেয়ারবাজারের প্রতি সরকারের অনাগ্রহের বিষয়টি প্রকাশ পেয়েছে। তবে কালো টাকা বিনিয়োগের যে সুযোগ দেয়া হয়েছে এটি শেয়ারবাজারে স্বল্প মেয়াদে হয়তো প্রভাব পড়বে। কিন্তু দীর্ঘমেয়াদে শেয়ারবাজারের ওপর কোনো প্রভাব পড়বে না। স্বল্প মেয়াদে প্রভাব পড়ার বিষয়টি আমরা ইতোমধ্যেই লক্ষ্য করেছি।
প্রসঙ্গত, গত বছর চারটি সেক্টরে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া হয়েছিল। এগুলো হচ্ছে— বিএমআরই, শেয়ারবাজার, নতুন শিল্প স্থাপন ও রিয়েল এস্টেট সেক্টর। রাজস্ব বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, ২০০৯-১০ অর্থবছরে প্রায় ৯২২ কোটি কালো টাকা সাদা করা হয়েছিল। এর মধ্যে শুধু শেয়ারবাজার থেকে ৪২৭ কোটি টাকা সাদা করা হয়েছিল। ২০০৯-১০ অর্থবছরে কালো টাকা সাদা করার পর ৩৬ ব্যক্তি তাদের টাকা শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে। এ থেকে সরকার প্রায় ৪৩ কোটি টাকা রাজস্ব পেয়েছিল।
শেয়ারবাজারে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ থাকছে মাত্র এক বছর। ১ জুলাই থেকে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত। তবে মূলধন কমপক্ষে দুই বছর বাজারে ধরে রাখতে হবে। অর্থাত্ ২০১৩ সালের জুলাই পর্যন্ত মূলধন বাজার থেকে উঠাতে পারবে না। বিনিয়োগকারী ওই সময়ের মধ্যে শেয়ার লেনদেন করে শুধু মুনাফা তুলে নিতে পারবেন। কিন্তু মূলধন উঠিয়ে নিতে পারবেন না। চূড়ান্ত নীতিমালায় এ ধরনের নির্দেশনা রয়েছে। এ সুযোগ গ্রহণ করার পর যাতে কোনো ব্যক্তি বাজার থেকে বেরিয়ে যেতে না পারেন সেজন্যই এ ধরনের শর্ত আরোপ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
সরকার ঘোষিত সুযোগটি গ্রহণ করতে হলে বিনিয়োগকারীকে অবশ্যই ঘোষণা দিতে হবে তিনি কি পরিমাণ অর্থ বৈধ করবেন। যে পরিমাণ অর্থ ঘোষণা করা হবে তার বিপরীতে নির্ধারিত হারে কর দিয়ে পে-অর্ডারের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হবে। এনবিআরের তৈরি করা আলাদা ঘোষণাপত্রে নাম, ঠিকানা, ট্যাক্স আইডেনটিফিকেশন নম্বরসহ (টিআইএন) সুনির্দিষ্ট তথ্য উল্লেখ করতে হবে। এসব তথ্য উল্লেখ করার পাশাপাশি বিও অ্যাকাউন্টের বিবরণী ঘোষণাপত্রের সঙ্গে সংযুক্ত করতে হবে।
এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সালাউদ্দিন আহমেদ খান বণিক বার্তাকে বলেন, এটি খুবই দুঃখজনক যে, নিয়মিত করদাতারা ২৫ শতাংশ হারে কর দেবেন, আর ফাঁকিবাজরা মাত্র ১০ শতাংশ হারে কর দিয়েই অপ্রদর্শিত অর্থ বৈধ করতে পারবেন। তিনি বলেন, অতীত অভিজ্ঞতা থেকে বলা যায়, অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ শেয়ারবাজারে খুব বেশি প্রভাব ফেলবে না। কারণ এর আগে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ থাকা সত্ত্বেও আশানুরূপ ফল পাওয়া যায়নি। তারল্য সরবরাহ না বাড়ালে বাজারের স্থিতিশীলতা টিকবে না। তবে অপ্রদর্শিত অর্থ প্রাইমারি শেয়ারে বিনিয়োগে ১০ শতাংশ রিবেটের যে সুযোগ দেয়া হয়েছে, সেটি তিনি সমর্থন করেন। তিনি বলেন, প্রয়োজনীয় নীতিমালা সাপেক্ষে প্লেসমেন্ট শেয়ার বরাদ্দ দেয়া প্রয়োজন। এটি কোম্পানির জন্য ভালো। কারণ আইপিওর চাইতে প্লেসমেন্টে খরচ অনেক কম।
এ বিষয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আহসানুল ইসলাম টিটো বলেন, এটি সরকারের একটি ভালো উদ্যোগ। তবে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগে বেশি মনিটরিং করা হলে প্রত্যাশিত মাত্রায় হয়তো বিনিয়োগ আসবে না। প্রাইমারি শেয়ারে বিনিয়োগে রিবেটের সুযোগের সমালোচনা করে তিনি বলেন, এটি নট ফেয়ার। সুযোগ দেয়া হলে প্রাইমারি ও সেকেন্ডারি মার্কেটে একসঙ্গেই দেয়া উচিত্। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী যেখানে শেয়ারবাজারে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ দেয়ার কথা বলেছেন সেখানে আমলারা নানা রকম শর্ত জুড়ে দেয়ায় অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের মূল উদ্দেশ্য হয়তো সফল হবে না।

আমাদের সময়, আলোচনা, ইত্তেফাক, কালের কণ্ঠ, জনকন্ঠ, ডেসটিনি, দিগন্ত, দিনের শেষে, নয়া দিগন্ত, প্রথম আলো, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ভোরের কাগজ, মানবজমিন, মুক্তমঞ্চ, যায় যায় দিন, যায়যায়দিন, যুগান্তর, সংগ্রাম, সংবাদ,চ্যানেল আই, বাঙ্গালী, বাংলা ভিশন, এনটিভি,এটিএন বাংলা, আরটিভি, দেশ টিভি, বৈশাখী টিভি, একুশে টিভি, প্রবাস, প্রবাসী, ঠিকানা, জাহান হাসান, বাংলা, বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস, লিটল বাংলাদেশ, ইউএসএ, আমেরিকা, অর্থনীতি, প্রেসিডেন্ট ওবামা,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র,অর্থ, বাণিজ্য, শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়া, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামাত, রাজাকার, আল বদর, সুখ, টেলিভিশন, বসন্ত উৎসব, Jahan, Hassan, jahanhassan, Ekush, bangla, desh, Share, Market, nrb, non resident, los angeles, new york, ekush tube, ekush.info,

প্রবাসী কি করতে পারে? হ্যাঁ, টাকা পাঠায়। তাতে আত্মীয়-স্বজনের উপকার হয়। আত্মীয়রা ব্যবসা-বাণিজ্য খোলে, দালানকোঠা বানায়। প্রবাসীরা কেউ কেউ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের জন্য দান-অনুদান পাঠিয়ে থাকে। এসব ভালো কাজ। উপকারী কর্তব্য। কিন্তু মূল ব্যাপারটা তো হলো এই যে, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ব্যবস্থাটা না বদলালে দেশের উন্নতি হবে না।


প্রবাসী বাংলাদেশীদের দেশপ্রেম এবং চারপাশের বাস্তবতা

Probashi

প্রবাসী

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী প্রবাসী পক্ষে দেশকে না দেখে কোনো উপায় নেই। প্রথম কথা এই যে, প্রবাসী মাত্রেই স্বদেশবাসী, দেশ তার সঙ্গে সঙ্গে থাকে, স্মৃতিতে জ্বলে, অনুভবে লুকিয়ে রয়, দৃষ্টিভঙ্গিতেও ধরা পড়ে। দেশে বাস করে দেশকে উপেক্ষা করা বরং সহজ, প্রবাসে থেকে দেশকে না দেখার তুলনায়। দ্বিতীয় সত্য এই যে, বিদেশে এসে খোঁজ পাওয়া গেছে নতুন আলোর। খোঁজ পাওয়া নয় তো, অনেক ক্ষেত্রেই আলোটা সঙ্গী হয়ে থাকে সর্বক্ষণ। সে আলো দেশকে নতুনভাবে দেখতে শেখায়।

তৃতীয় ঘটনা এমনতর যে, ভালো দৃশ্য যেমন তেমন, খারাপ দৃশ্য চোখ কাড়ে না হয়তো কিন্তু চোখে টেনে নেয় ঠিকই। ফুলের টব ও আবর্জনার বালতি পাশাপাশি থাকলে আবর্জনাই দেখি প্রথমে। দৃশ্য তো আছেই; গন্ধটাও কম নয়। দেশে ফিরলে প্রবাসী প্রথমে যা দেখে তা হলো ভিড়। আগেও ছিল, কিন্তু সে ভিড় আরো বেড়েছে। উপচে পড়ছে। সঙ্গে সঙ্গে দেখা হয় অরাজকতাও। নানা ধরনের দুর্বৃত্ত ওঁৎপেতে রয়েছে। ধরবে, জব্দ করবে, ঠকাবে।

কোনো মতে পথে বের হয়ে আসতে পারলে দেখবে সে বৈষম্য। বৈষম্য পুরাতন ব্যাপার, কিন্তু তার মনে হবে যে, সেটা বেড়েছে। সত্যি সত্যি তো বেড়েছে, না দেখে উপায় কী। এই বৈষম্য রাস্তায় চোখে পড়বে, নিজের ঠিকানায় পৌঁছলেই টের পাওয়া যাবে। পরিবার ভেঙে গেছে, ক্ষুদ্র এক অংশ ওপরে গেছে উঠে, অপরাংশ, সেটাই বড়, নেমে গেছে নিচে। দেখবে সে তথ্যপ্রযুক্তির প্রাচুর্য ঘটেছে। মোবাইল ফোন, ই-মেইল, ইন্টারনেট, ওয়েবসাইট, বিদেশে যা দেখেছে, এখানেও পাবে দেখতে।

কিন্তু এদের প্রাচুর্য অভাব দূর করেনি মানুষের, যা করেছে তা হলো বৈষম্য বৃদ্ধি। অন্তর্গত বৈষম্যকে আরো প্রকটিত করে তুলেছে। না দেখে উপায় থাকবে না। সর্বত্র ব্যক্তিগত ব্যবস্থাপনা বৃদ্ধি পেয়েছে। শিল্প কারখানা ব্যক্তি মালিকানায় চলে গিয়ে বন্ধ হয়ে গেছে, এ খবর জানা আছে প্রবাসীর। দেখবে সে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেই। চিকিৎসা পেতে হলে যেতে হবে প্রাইভেট ক্লিনিকে। দেখবে সে পাবলিক ট্রান্সপোর্ট সঙ্কুচিত, প্রাইভেট কারের দাপটে। আর সেই সব গাড়ি যে পরিমাণ বিষাক্ত গ্যাস ছাড়ছে তা শারীরিকভাবে পর্যুদস্ত করে দেয় মানুষ ও গাছপালাকে।

বিদেশে প্রবাসীদের জন্য সমস্যা মাতৃভাষা চর্চা করা। এখানে এসে দেখবে ধনী ঘরের ছেলেমেয়েরা মাতৃভাষা ভুলতে চলেছে। এ কেমন ঘটনা, ভাববে সে। বিদেশে আমরা আতঙ্কে থাকি মাতৃভাষা ভুলে যাব বলে, আর এখানে দেখেছি মাতৃভাষা ভোলা যায় কী করে তার জন্য জীবনপণ চেষ্টা। শিক্ষার প্রধান যে ধারা সেই বাংলা মাধ্যমিক ব্যবস্থায় দেখবে সে যে নকল বেড়েছে পরীক্ষায়। শুনবে শ্রেণীকক্ষ থেকে পড়াশোনা উঠে গেছে; যা হওয়ার হয় কোচিং সেন্টারে। প্রবাসীরা দেখেছে পুঁজিবাদী বিশ্বে নৈতিকতার প্রশ্নটি বড় জরুরি হয়ে উঠেছে। পুঁজিবাদীরা নানা অপকর্ম করে, নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত থাকে, কোনো প্রকার সামাজিক দায়িত্ব নিতে চায় না। প্রবাসী বাঙালি কেউ কেউ ভাবে প্রতিকার রয়েছে ধর্মীয় শিক্ষায়। কিন্তু প্রবাসী জানে সে শিক্ষা স্কুল শিক্ষার বিকল্প হতে পারে না, বড়জোর পরিপূরক হওয়ার যোগ্যতা রাখে। প্রবাসী দেখবে মাদ্রাসা শিক্ষার প্রসার বেড়েছে; দেখে সে চিন্তিত হবে।

Probashi

লস এঞ্জেলেস এ প্রবাসীদের মেলা


শিক্ষা তো শিক্ষার্থীকে আধুনিক করবে। তাকে দক্ষতা দেবে, বাড়াবে তার মানমর্যাদা। এ কথা তো সত্য, মাদ্রাসাতে প্রধানত যায় গরীব ঘরের ছেলেমেয়েরাই। কেননা, সেখানে খরচা কম। আর যায় কিছুটা অবস্থাপন্ন ঘরের বুদ্ধিবৃত্তিতে কম অগ্রসর সন্তানরা। তারা সেখানে গিয়ে যে শিক্ষা পায় তাতে তাদের জাগতিক অবস্থার কোনো উন্নতি হয় না, বরং আরো খারাপ হয়, তাদের শিক্ষা অর্থনৈতিকভাবে তাদের এগিয়ে দেয় না। প্রবাসীর চোখে এটা ধরা পড়ে বেশ সহজেই যে, গরিব ছেলেমেয়েদের মাদ্রাসা শিক্ষা দেয়া আসলে গরিব মানুষকে গরিব করে রাখার ষড়যন্ত্র। সবচেয়ে মর্মান্তিক বিষয় এটা যে, গরিব টেরই পায় না যে এটা তার সঙ্গে শত্রুতা মাত্র, সে ভাবে তার উপকার করা হচ্ছে, তাকে শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে। প্রবাসী দেখবে এই বিপরীত ঘটনাও যে, মাদ্রাসা শিক্ষার জন্য যারা উচ্চ হারে সরকারি ব্যয়ের বরাদ্দ দেয়, তাদের কোনো সন্তান-সন্ততি মাদ্রাসায় পড়ে না।

প্রবাসীর মনে এই দুশ্চিন্তা অত্যন্ত স্বাভাবিকভাবে পীড়াদায়ক হয়ে দেখা দেবে যে, এভাবে একটি সমাজ চলতে পারে কিনা। এর ঐক্যটা কোথায়? না, ঐক্য সে খুঁজে পাবে না। দেশপ্রেম সে প্রবাসীদের মধ্যে যতোটা দেখেছে, দেখে উৎফুল্ল হয়েছে, দেশে ফিরে অনেক বাঙালির মধ্যেই তা দেখতে পাবে না, না পেয়ে দমে যাবে। টের পাবে সে যে, স্বদেশীদের অনেকেই তাকে ঈর্ষা করছে। বলছে খুব ভালো আছো ভাই। কিভাবে যাওয়া যায় তার ফন্দি-ফিকির তারা জানতে চাইছে। ধাক্কা খাবে প্রবাসী এটা দেখে যে, সে যাদের ঈর্ষা করে তাদের কাছেই সে পাত্র হচ্ছে ঈর্ষার। তাতে তার ব্যক্তিগত অহমিকা বাড়ছে ঠিকই কিন্তু সমষ্টিগত ভবিষ্যৎটা তার কাছে উজ্জ্বল মনে হবে না।

সবাই বলবে দেশে নিরাপত্তা নেই। সরকার যে নাগরিকদের নিরাপত্তা দিতে পারছে না। অস্ত্র ও বোমার ব্যবহার বাড়ছে। এমন জিনিস আগে এ দেশে ছিল না। অপরাধী ধরা পড়ছে না। আর ধরা পড়ছে না বলেই অপরাধ বাড়ছে। আসল অপরাধ সুযোগ প্রাপ্তরাই করে থাকে। করে ক্ষমতার ছত্রছায়ায়। আর সে ক্ষমতা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সরকারি দলের। সন্ত্রাস মূলত রাজনৈতিক এবং তা ঘটে রাজনীতির স্বার্থে এবং পৃষ্ঠপোষকতায়। ভাড়াটে খুনিও পাওয়া যাচ্ছে অল্প দামেই। পুলিশ বাহিনী সম্পর্কে এ দেশের মানুষের কখনই কোনো আস্থা ছিল না। ভয় ছিল। কিন্তু সেই আস্থাহীনতা ও ভীতিও এখন যে পর্যায়ে গেছে সেটা আগে কখনো দেখা যায়নি।

প্রবাসী শুনবে কৃষকের দুর্দশার কথা। ফসল খারাপ হলে কৃষকের মাথায় বাজ পড়ে। সেটা স্বাভাবিক। কিন্তু শুনবে সে যে বাম্পার ফসল হলেও কৃষকের সমূহ সর্বনাশ। টমেটো পচনশীল। তা ধরে রাখা যায় না। সেজন্য উত্তরবঙ্গে এমনও ঘটনা ঘটেছে যে এক মণ টমেটো বিক্রি করে কৃষক ১ সের চাল কিনে ঘরে ফিরেছে। বোরো ধান খুব ফলেছে। তাতে কৃষক বসে গেছে মাথায় হাত দিয়ে। যে ধান তৈরিতে খরচ হয়েছে ৩০০ টাকা তা বিক্রি হচ্ছে ১৫০ টাকায়। এই খরচের মধ্যে কৃষকের শ্রমের হিসাবটা নেই। ব্যাপার দাঁড়াচ্ছে এই যে, কৃষক যদি নিজের ক্ষেত্রে ধান না চাষ করে অন্যের ক্ষেত্রে দিনমজুরি খাটতো তাহলে তার উপকার হতো বেশি। খাদ্যে গর্বিত স্বয়ংসম্পূর্ণতা শীর্ণ কৃষকের দীর্ঘশ্বাসে পুষ্ট বটে।

লিটল বাংলাদেশ

লস এঞ্জেলেস এ লিটল বাংলাদেশ


প্রবাসী শুনতে পাবে এবং দেখবেও যে, দেশের নদী-খাল, বিল, পার্ক, খোলা মাঠ সব ব্যক্তিগত হয়ে গেছে। তার জানা আছে এটা যে, একাত্তর সালে এ দেশে হানাদাররা এসেছিল বাইরে থেকে। তারা ছিল শত্রু, তাদের আচরণ ছিল দৈত্যের মতো। তারা মানুষ মেরে, বাড়িঘর পুড়িয়ে, ধর্ষণ করে, সব কিছু লন্ডভন্ড করে দিয়েছিল। কিন্তু এবার এসে দেখবে সে যে, বিদেশি হানাদাররা গেছে চলে ঠিকই, কিন্তু দেশী হানাদাররা তৎপর হয়ে উঠেছে মহোৎসাহে, তারা দৈত্য নয় হয়তো তবে রাক্ষস ও শৃগাল বটে যা পায় খেয়ে ফেলে এবং খাওয়াতে কোনো বিরতি নেই, ক্লান্তি নেই। দেখতে পাবে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত। বৃদ্ধি করা উচিত ছিল রেল লাইন, সেটা এক ইঞ্চি বাড়েনি বরং কমেছে। বাড়ানো উচিত ছিল নৌপথের সুবিধা। সেটা এক তিল বাড়েনি। বেড়েছে বাস, সড়ক ও সড়কের দুর্ঘটনা। সড়ক নির্মাণ করলে সুবিধা ঠিকাদারদের, সুবিধা বাস-ট্রাক মালিকের। সুবিধা ওসবের বিদেশি বিক্রেতার স্থানীয় এজেন্টের। সেই সুবিধারই পাকা বন্দোবস্ত মানুষের মৃত্যু বিনিময়ে।

বিদেশ থেকে প্রবাসী শুনে এসেছে যে, বাংলাদেশ গ্যাস ও তেলের ওপর ভাসছে, কিন্তু তাতে বাংলাদেশের বিপদের আশু সম্ভাবনা। কেননা, তা বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে বিদেশী বহুজাতিক কোম্পানির কাছে। তারা আমাদের গ্যাস ও তেল তাদের নিজেদের স্থির করা দামে কিনবে এবং পরে তা আন্তর্জাতিক দরে তাদের কাছ থেকেই আবার আমরা কিনে নেব। অবিশ্বাস্য, কিন্তু সত্য। সেই ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সময়কার অবস্থা।

সমুদ্র বন্দর হচ্ছে অর্থনীতির প্রাণপ্রবাহ। বাংলাদেশে বন্দর বলতে আসলে একটাই। চট্টগ্রামে। প্রবাসী শুনবে সেটা ধ্বংসের ব্যবস্থা হচ্ছে বিদেশীদের পাল্টা বন্দর তৈরি করার সুযোগদানের মাধ্যমে। কারা দিচ্ছে? আবার কারা, ওই দেশী লুণ্ঠনকারীরা। পলাশীর যুদ্ধে সিরাজউদদৌলা লড়েছিলেন উপনিবেশবাদের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে। তারপর ব্রিটিশ শাসনকালে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন হয়েছে। ব্রিটিশ গেছে, কিন্তু উপনিবেশ যায়নি। যে জন্য পাকিস্তানি শাসন আমলে আমাদেরকে লড়াই করতে হয়েছে। আজকে দেশ স্বাধীন। কিন্তু প্রবাসী দেখবে মনুষের মুক্তি তো দূরের কথা দেশের স্বাধীনতাও আসেনি। লগ্নিপুঁজি ও মুক্তবাজার দেশ দখল করে ফেলেছে। ফলে বড় রাষ্ট্র ছোট হয়েছে ঠিকই কিন্তু রাষ্ট্রের চরিত্রের কোনো পরিবর্তন আসেনি। তার মতাদর্শ ও সংগঠন দুটোই পুঁজিবাদী ও আমলাতান্ত্রিক। ব্রিটিশ আমলেও এ রকম ছিল, পাকিস্তান আমলেও তাই, এখনো অধিকাংশ সেই রকমই। পরিবর্তন যা তা নামে।

ব্রিটিশ গেছে, পাঞ্জাবি গেছে, এখন এসেছে বাঙালি। বাঙালি শাসক আগের শাসকদের মতোই লুটপাট করে। তবে একটা তফাৎ আছে, আগেকার শাসকরা জানতো তারা বিদেশি, তাই অল্প হলেও ভয়ে ভয়ে থাকতো, এখনকার শাসকদের সেই ভয়টা নেই, কেননা তারা স্বদেশী। এরা লুণ্ঠন করছে আরো নির্মমভাবে। তাদের জন্য দায় নেই কোনো জবাবদিহিতার এবং অবাধে এই লুণ্ঠনই হচ্ছে তাদের রাজনীতি। যে জন্য সর্বত্র এমন নৈরাজ্য, নিরাপত্তার এমন অভাব।

নির্বাচন আসলে হচ্ছে দুইদল ডাকাতের মধ্যে লড়াই। তাই তো নির্বাচন আসছে দেখলে মানুষ কিছুটা ভীত হয়। দুই পক্ষের মধ্যে লড়াইয়ের যে প্রস্ত্ততি তাতে উলুখাগড়াদেরই বিপদ। কে জিতবে, কে হারবে তাতে জনগণের কিছু আসবে যাবে না। তাদের অবস্থা আরো খারাপ হতেই থাকবে। লুণ্ঠনকারীরা তাদের রেহাই দেবে না। প্রবাসী যেটা দেখতে না পেয়ে পীড়িত হবে তা হলো প্রতিরোধ। লুণ্ঠন ব্রিটিশ আমলে ছিল, পাকিস্তান আমলেও ছিল, কিন্তু সঙ্গে সঙ্গে প্রতিরোধও ছিল। এখন সেটা নেই। হতাশার কারণ রয়েছে সেখানেই। অনুৎপাদক লুণ্ঠনকারীরা রাষ্ট্রের ক্ষমতায় থাকে। এ দলে তারা, ও দলেও তারাই। জনগণ কোনো বিকল্প পাচ্ছে না। লুন্ঠনের বাইরে কোনো আদর্শবাদিতা নেই। প্রবাসী দেখবে এটা। দেখে দুশ্চিন্তায় পড়বে। প্রতিরোধ যে একেবারেই নেই তা অবশ্য নয়। আর শুনবে সে এবং আশা করবে যে প্রতিরোধটা শক্তিশালী হোক, মানুষের মুক্তির যে রাজনীতিটা সামনে আসুক। এই রাষ্ট্রের চরিত্র বদল ঘটুক এবং রাষ্ট্রের আদর্শগত সাংগঠনিক বিন্যাসের পরিবর্তন মানুষকে মাুনষের মতো বাঁচতে দিক।

মূল প্রয়োজন ওই আদর্শবাদী রাজনীতির। দেশের মানুষ সেটা গড়ে তুলতে পারছে না। নেতৃত্ব আসবে মধ্যবিত্ত শ্রেণী থেকেই কিন্তু সে মধ্যবিত্তকে শ্রেণীচ্যুত হয়ে জনগণের সঙ্গে এক হতে হবে। জনগণের স্বার্থকে প্রধান করে তুলতে হবে। তার জন্য সক্রিয় অংশগ্রহণ আবশ্যক। প্রবাসী বুঝবে সেটা। চাইবে ওই আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত হতে। যতোটা চাইবে ততোটাই ভালো। তার বাইরে তো কেবলই হতাশা।

দেশে এখন দেশপ্রেমের খুবই অভাব। প্রবাসী বাংলাদেশী পীড়িত হয়, দেশে ফিরে যখন সে অভাব দেখে এই দেশপ্রেমের। প্রবাসী মাত্রেই যে দেশপ্রেমিক তা নিশ্চয়ই নয়। কেউ কেউ আছে নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত থাকে। কিন্তু অধিকাংশই দেশের কথা ভাবে, দেশের জন্য তাদের মন কাঁদে, দেশের দুর্দশা দেখে তারা পীড়িত বোধ করে। দেশের রাজনীতিতে মীর জাফরদের উৎপাতে প্রবাসী টের পায়, টের পেয়ে তার দুঃখ বাড়ে। কিন্তু প্রবাসী কি করতে পারে? হ্যাঁ, টাকা পাঠায়। তাতে আত্মীয়-স্বজনের উপকার হয়। আত্মীয়রা ব্যবসা-বাণিজ্য খোলে, দালানকোঠা বানায়। প্রবাসীরা কেউ কেউ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের জন্য দান-অনুদান পাঠিয়ে থাকে। এসব ভালো কাজ। উপকারী কর্তব্য। কিন্তু মূল ব্যাপারটা তো হলো এই যে, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ব্যবস্থাটা না বদলালে দেশের উন্নতি হবে না।প্রবাসীদের পক্ষে ভাবার বিষয় হচ্ছে এ লড়াইয়ে তারা কোনো ভূমিকা নিতে পারে কিনা। কেবল টাকা পাঠালেই যে দেশ বদলাবে না তা তো বোঝাই যাচ্ছে।
আমাদের সময়, আলোচনা, ইত্তেফাক, কালের কণ্ঠ, জনকন্ঠ, ডেসটিনি, দিগন্ত, দিনের শেষে, নয়া দিগন্ত, প্রথম আলো, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ভোরের কাগজ, মানবজমিন, মুক্তমঞ্চ, যায় যায় দিন, যায়যায়দিন, যুগান্তর, সংগ্রাম, সংবাদ,চ্যানেল আই, বাঙ্গালী, বাংলা ভিশন, এনটিভি,এটিএন বাংলা, আরটিভি, দেশ টিভি, বৈশাখী টিভি, একুশে টিভি, প্রবাস, প্রবাসী, ঠিকানা, জাহান হাসান, বাংলা, বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস, লিটল বাংলাদেশ, ইউএসএ, আমেরিকা, অর্থনীতি, প্রেসিডেন্ট ওবামা,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র,অর্থ, বাণিজ্য, শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়া, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামাত, রাজাকার, আল বদর, Jahan, Hassan, Ekush, bangla, desh, Share, Market, nrb, non resident, los angeles, new york, ekush tube, ekush

লিটল বাংলাদেশ লস এঞ্জেলেস এর প্রথম অফিশিয়াল কার্য্যক্রমে অভূতপূর্ব সাড়া।

শেয়ার ব্যবসায় পরনির্ভরশীলতা! একটি ব্যক্তিগত খতিয়ানঃ


শেয়ার ব্যবসায় পরনির্ভরশীলতা!

শেয়ার ব্যবসায় পরনির্ভরশীলতা!

শেয়ার ব্যবসায় পরনির্ভরশীলতা!

আরিফুল ইসলামঃ পুঁজিবাজারে আসা নতুন বিনিয়োগকারীরা সম্পূর্ণরূপে অথরাইজড নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন। কারণ নতুন বিনিয়োগকারীদের অধিকাংশেরই বাজার সম্পর্কে প্রয়োজনীয় অভিজ্ঞতা না থাকায় বাধ্য হয়ে তারা অথরাইজডদের পরামর্শ অনুযায়ী বিনিয়োগ করছেন বলে বাজার সংশিস্নষ্টরা জানিয়েছেন। সরেজমিনে দেখা গেছে, হাউজগুলোতে নতুন মুখের আনাগোনা এবং অথরাইজডদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ার প্রবণতা বাড়ছে।

এ ব্যাপারে একজন সাধারণ বিনিয়োগকারী বলেন, পুঁজিবাজার একটি বিশাল ড়্গেত্র। এ সম্পর্কে জানার কোনো শেষ নেই। আমরা বেশকিছু দিন ধরে বাজারের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত থাকার পরও নিজেদের অভিজ্ঞ দাবি করতে পারি না। আর নতুন বিনিয়োগকারীদের জন্য তো এটা গভীর সমুদ্র, যেখানে সাঁতার শিখতে হলে হাবুডুবু খেতেই হবে। যে কারণে নতুন বিনিয়োগকারীরা অথরাইজডদের দেয়া তথ্যের উপর নির্ভর করে বিনিয়োগ করে থাকেন। বিনিময়ে অথরাইজডদের কমিশন নেয়ার সংস্ড়্গৃতিও গড়ে উঠেছে বলে জানা গেছে। তবে অনেক ড়্গেত্রে অনভিজ্ঞ অথরাইজডদের কবলে পড়ে নতুন বিনিয়োগকারীরা আর্থিক ড়্গতির সম্মুখীন হচ্ছেন। এ ব্যাপারে নতুন বিনিয়োগকারী আনোয়ার বলেন, মার্কেট সম্পর্কে অভিজ্ঞতা না থাকায় আমি কখনো আইপিও আবেদন করিনি। কিন্তু আমি শেয়ার ব্যবসায় আগ্রহী। এ জন্য আমাকে অথরাইজডদের সাহায্য নিতে হয়। হাসান নামে অপর এক বিনিয়োগকারী বলেন, বেকারত্ব দূর করার জন্য আমি শেয়ার ব্যবসাকে পেশা হিসেবে নিয়েছি। কিন্তু মার্কেট সম্পর্কে ধারণা না থাকায় আমি পুরোপুরি অথরাইজড নির্ভরশীল। কারণ আমার শেষ সম্বল নিয়ে শেয়ার ব্যবসায় নেমেছি। আর এর মাধ্যমেই আমাকে জীবিকা নির্বাহ করতে হবে। তাই লোকসান এড়াতে আমি অথরাইজডদের সাহায্য নিচ্ছি। এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিকিউরিটিজ হাউজের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, অথরাইজডরা শুধু শেয়ার বাই-সেলের ড়্গেত্রে বিনিয়োগকারীদের অর্ডার অনুসরণ করবে। এছাড়া অন্য দায়িত্ব তাদের হাতে ন্যস্তô করা হয়নি। তবে অনুরোধ এড়াতে না পেরে তাদের অনেক সময় নতুন বিনিয়োগকারীদের কোনো বিশেষ শেয়ার কেনার পরামর্শ দিতেও দেখা যায়। এড়্গেত্রে বিনিয়োগকারীদের অবশ্যই বিচার বিশেস্নষণ করে ওই শেয়ারে বিনিয়োগ করার সিদ্ধান্তô নিতে হবে।

যেহেতু পুঁজিবাজার খুব সেনসেটিভ জায়গা। তাই এ সম্পর্কে কোনো ধারণা না নিয়ে বিনিয়োগ করা উচিত নয়। এ কারণেই অসাধু চক্রগুলো ফায়দা লুটতে পারছে। ফলে প্রায়ই বিপদে পড়তে হয় সাধারণ বিনিয়োগকারীদের। বাজার সংশিস্নষ্টরা তার সঙ্গে একমত পোষণ করে বলেন, বিনিয়োগের পূর্বে নতুন বিনিয়োগকারীদের উচিত অন্তôত কিছুদিন হাউজগুলোতে গিয়ে লেনদেন পর্যবেড়্গণ করা এবং শেয়ার বিষয়ক বিভিন্ন কর্মলালায় অংশ নেয়া।
——————————-

শেয়ার মার্কেটে আমার ব্যক্তিগত কয়েকটি অ্যাকাউন্টের হালঃ
৫ মাসে কোটি টাকার ও বেশী আর্থিক ক্ষতির খতিয়ানঃ
বিনিয়োগে দয়া করে সতর্ক হোন। অভিজ্ঞতার কোন বিকল্প নাই।
– জাহান হাসান, লস এঞ্জেলেস

শেয়ার বাজার

শেয়ার মার্কেটে আমার ব্যক্তিগত একটি অ্যাকাউন্টের হালঃ


শেয়ার মার্কেটে আমার ব্যক্তিগত আরেকটি অ্যাকাউন্টের হালঃ


আমার শেয়ার মার্কেট এ হাতেখড়ি এভাবেই শুরু

আমার শেয়ার মার্কেট এ হাতখড়ি এভাবেই শুরু

jahan hassan ekush tube bangla desh জাহান হাসান, লস এঞ্জেলেস. বাংলাদেশ. বাংলা, আমাদের সময়, আলোচনা, ইত্তেফাক, কালের কণ্ঠ, জনকন্ঠ, ডেসটিনি, দিগন্ত, দিনের শেষে, নয়া দিগন্ত, প্রথম আলো, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ভোরের কাগজ, মানবজমিন, মুক্তমঞ্চ, যায় যায় দিন, যায়যায়দিন, যুগান্তর, সংগ্রাম, সংবাদ, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামাত, রাজাকার, আল বদর, একুশ, প্রবাস, প্রবাসী, ঠিকানা, ইউএসএ, আমেরিকা, অর্থনীতি, প্রেসিডেন্ট ওবামা,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, শেয়ার মার্কেট

ইনসাইডার ট্রেডিং এসইসিকে আরো কঠোর হওয়া উচিত


ইনসাইডার ট্রেডিং এসইসিকে আরো কঠোর হওয়া উচিত

ইনসাইডার ট্রেডিং (আগাম তথ্য ফাঁস) বন্ধে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) আইন থাকলেও বাস্তôবে এর কোনো প্রয়োগ নেই। ১৯৯৩ সালে প্রণীত আইন ১৯৯৫ সালে সংশোধন করে ব্যবহার উপযোগী করা হয় এবং ২০০৪ সালে এটি অধিকতর ব্যবহারের জন্য পুনঃসংশোধন করা হয়। কিন্তু বড়ই পরিতাপের বিষয় গত ১৭ বছরে প্রকাশ্যে কিংবা অপ্রকাশ্যে এসইসির এবং ডিএসইর জ্ঞাতসারে, আবার অনেক সময় অজ্ঞাতসারে হাজার হাজার বার ইনসাইডার ট্রেডিংয়ের মতো ঘটনা ঘটেছে। অথচ এ পর্যন্তô একজন ব্যক্তি কিংবা একটি প্রতিষ্ঠানকেও ওই আইনের আওতায় ফেলে নিয়ন্ত্রক সংস্থা শাস্তিô দিতে পারেনি বা দেয়নি। এর মধ্যে ঐতিহাসিক ৯৬ গেল, ২০০৪ গেল, এখন ২০১০ যাচ্ছে। এ কারণে ২০১০ বলা হচ্ছে যে, গত ১৫ দিনের বাজার পর্যালোচনা করে দেখা যায় প্রায় ২০টির অধিক কোম্পানির লভ্যাংশ ও রাইট শেয়ার দেয়ার তথ্য এ সময় বাজারে আগাম ফাঁস হয়ে গেছে। আর এতে এক শ্রেণীর বিনিয়োগকারী অতি মুনাফার আশায় ঝুঁকিপূর্ণ শেয়ারে বিনিয়োগ করেছেন। অনেক সময় দেখা গেছে, এসব আগাম তথ্যের মধ্যে কোনোটা সত্য আবার কোনোটা শুধুই গুজব।

আমরা নিশ্চিত যেগুলো সত্য হয়েছে সেগুলোর তথ্য পাচারের সঙ্গে অবশ্যই কোম্পানি বা নিরীড়্গক অথবা তাদের সংশিস্নষ্ট কোনো পড়্গ জড়িত ছিল। কিন্তু এত বড় একটি বিষয়ের ব্যাপারে এসইসি একেবারে নির্বিকার। সংস্থাটি একজনের ব্যাপারেও যদি কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতো তাহলে পরে এজন্য আরো অনেকেই সতর্ক হতে পারতো। অথচ বাজার সুস্থ এবং স্বাভাবিক রাখতে এ কাজটি ছিল এখন তাদের জন্য অতি জরম্নরি। আমরা দৈনিক শেয়ার বিজ্‌ কড়চা পত্রিকার পড়্গ থেকে এসইসিকে এতটুকু আশ্বস্তô করতে চাই আগামীতে যদি তারা ইনসাইডার ট্রেডিংয়ের বিরম্নদ্ধে কোনো শাস্তিôমূলক ব্যবস্থা নেয় তাহলে আমরা শুধু এ দেশের লাখ লাখ ড়্গুদ্র বিনিয়োগকারীর স্বার্থে প্রথম পৃষ্ঠায় ব্যানার হেডলাইন দিয়ে লিড নিউজ করার ব্যবস্থা করবো ইনশাআলস্নাহ। কারণ এ অপরাধটি যে কত ভয়াবহ তা এ দেশের মানুষের জানা না থাকলেও আমরা জানি, বিশ্বের অন্যান্য দেশে এর সাজা কত কঠোর এবং নির্মম। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ইনসাইডার ট্রেডিংয়ের অপরাধে একজন শ্রীলঙ্কান বংশোদ্‌ভূত মার্কিন বিনিয়োগকারীর ১৭ বছর জেল হয়েছিল। মাত্র একটি কোম্পানির শেয়ার বিক্রির ব্যাপারে এজেন্টের কাছে শুধু ইয়েস (হ্যা) শব্দটি উচ্চারণ করায় আমেরিকার স্বনামধন্য মহিলা বিনিয়োগকারী মারথা স্টুয়ার্ডকে ৬০ দিন হাজতবাস করতে হয়েছে।

উলেস্নখ্য, অভিযুক্ত ওই মহিলা মাত্র ৩ হাজার ডলারের বিনিময়ে শেয়ারটি বিক্রি করেছিলেন। এ ২টি ঘটনার উদাহরণ সামনে রেখে এসইসিকে এগোতে হবে। আগামী দিনগুলোতে এ ধরনের অনৈতিক লেনদেনের ড়্গেত্রে সংস্থাটি আরো কঠোর হবে বলে আমরা আশা করি। আমাদের বিশ্বাস এতে বরং ড়্গুদ্র বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ আরো বেশি সংরড়্গিত হবে।
শেয়ার বিজ কড়চা সম্পাদকীয়ঃ ১১.০১.১০

কোটিপতিদের নিয়ন্ত্রণে বাজার!


কোটিপতিদের নিয়ন্ত্রণে বাজার!

আমিরম্নল ইসলাম নয়নঃ কোটি টাকার আড়াইশ বিনিয়োগকারীর নিয়ন্ত্রণে পুঁজিবাজার। আর এদের সঙ্গে আছেন শত কোটি টাকার ৫০ জন বিনিয়োগকারী। এসইসির তথ্যানুযায়ী ডিএসইতে ৫০০ কোটি টাকার বিনিয়োগকারী আছেন ১০-এর অধিক। যারা সবাই কোটি টাকার বিনিয়োগকারীর তালিকায় নাম লিখিয়েছেন। কারণ এসইসির সিদ্ধান্তô অনুযায়ী একদিনে কোনো বিনিয়োগকারী ১ কোটি টাকার বেশি শেয়ার ক্রয় করলে কমিশনে তার প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে। এসইসির সার্ভিলেন্স বিভাগে জমাকৃত গত ১৫ কার্যদিবসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, আড়াইশ বিনিয়োগকারী প্রতিদিন কোটি টাকার বেশি বিনিয়োগ করছেন।

পঁুজিবাজার সংশিস্নষ্টদের মতে, যারা এক প্রকার অলিখিতভাবে স্টক মার্কেট নিয়ন্ত্রণ করে চলেছে। তবে গত এক সপ্তাহ ধরে ভারতের একটি ব্যাবসায়িক গ্রম্নপ শেয়ারবাজারে অর্থ বিনিয়োগ করেছে গুজব রয়েছে। যে কারণে বাজারে লেনদেনের পরিমাণ আগের চেয়ে বেড়েছে। তবে এ গুজবকে আমলে নিতে নারাজ ডিএসই ও এসইসির কর্মকর্তারা। তাদের মতে, দেশের বিনিয়োগকারীরাই অন্য ব্যবসা বন্ধ করে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করছেন। তারা বলেন, বাজার অস্থিতিশীল করতে এ ধরনের যে কোনো অপতৎপরতা কঠোর হাতে দমন করা হবে। আর সেল প্রেসার বাড়াকে গতকাল সর্বকালের সর্বোচ্চ লেনদেন হওয়ার কারণ বলে মনে করছেন বাজার সংশিস্নষ্টরা।

স্টক মার্কেট গুটিকয়েক বিনিয়োগকারীর কাছে জিম্মি বলে মনে করেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এসইসির কয়েকজন কর্মকর্তা। তারা বলেন, এসব বিনিয়োগকারীর সঙ্গে আছেন কয়েকটি মার্চেন্ট ব্যাংকের অসৎ কর্মকর্তা। যারা অর্থের লোভে এ চক্রকে গুজব ছড়িয়ে এসইসির বিপড়্গে মামলা করতে বিনিয়োগকারীদের সহায়তা করে থাকে। এনএভি ফর্মুলা নিয়ে এসইসির সিদ্ধান্তেôর বিপড়্গে একটি প্রথম শ্রেণীর মার্চেন্ট ব্যাংক ২ জন বিনিয়োগকারীকে দিয়ে মামলা করান বলে শেয়ারবাজারে গুজব রয়েছে। এ মার্চেন্ট ব্যাংকটি মামলা চালাতে যাবতীয় অর্থ খরচ করে। বিনিময়ে ওই সময়ে বাজারে ধারাবাহিক ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা বজায় রেখে মামলার খরচের চেয়ে ৫০ গুণ বেশি আয় করে বলে জানা গেছে। এসইসি এ চক্র সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হলেও নিজেদের দুর্বলতার কারণে এদের ব্যাপারে তেমন কোনো পদড়্গেপ নিতে পারছে না বলে জানা গেছে। ফলে গুটিকয়েক বিনিয়োগকারী ও মার্চেন্ট ব্যাংকের কাছে লাখ লাখ বিনিয়োগকারী জিম্মি হয়ে পড়েছেন। এসব বিনিয়োগকারী ফান্ডামেন্টাল শেয়ার বাদ দিয়ে এ চক্রের ফাঁদে পড়ে অতিমূল্যায়িত কোম্পানি ও দুর্বল শেয়ারে অর্থ বিনিয়োগ করছে। এসবের মধ্যেও এক শ্রেণীর বিনিয়োগকারী গুজব নির্ভর না হয়ে ফান্ডামেন্টাল দেখে দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগ করছেন।

বিনিয়োগকারী ও বাজারের স্বার্থে গুটিকয়েক বিগ ইনভেস্টর যাতে বাজারের পরিবেশ নষ্ট করতে না পারে সে দিকে এসইসির নজর রাখা প্রয়োজন বলে মনে করছেন সচেতন বিনিয়োগকারীরা। বাজার সংশিস্নষ্টদের মতে, বিগ ইনভেস্টরদের গেম্বলিং বন্ধ করে ফান্ডামেন্টাল শেয়ারে দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগ করার জন্য এসইসকে পথ বাতলে দিতে হবে। নতুবা এসব বিনিয়োগকারী বাজারের পরিবেশ আরো ঘোলাটে করে তুলবে। আর এজন্য প্রাথমিকভাবে মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো টার্গেট করে এ ব্যাপারে পদড়্গেপ নিতে আলোচনায় বসতে হবে। এ ব্যাপারে বাাজার বিশেস্নষক ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির অধ্যাপক তরফদার জামান শেয়ার বিজ্‌ কড়চাকে বলেন, বড় বিনিয়োগকারীরা বাজারের একটা বৃহৎ অংশজুড়ে রয়েছে। এ শ্রেণী ইচ্ছেমতো বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। তবে এ শ্রেণী যাতে ফান্ডামেন্টাল গুজব না ছড়ায় সে দিকে এসইসিকে নজর রাখতে হবে।

বিদেশে কৃষি জমি লিজ : দেরিতে হলেও মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ


বিদেশে কৃষি জমি লিজ : দেরিতে হলেও মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ

০০ শফিকুর রহমান রয়েল

সম্প্রতি সাপ্তাহিক ২০০০-এ প্রকাশিত বিশেষ একটি প্রতিবেদন পড়লাম মনোযোগ দিয়ে। জানতে পারলাম, গত ২৪ আগস্ট থেকে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পশ্চিম আফ্রিকায় ‘ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন’-এ ছিলেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব মিজারুল কায়েস। উদ্দেশ্য ছিল- বাজার অনুসন্ধান, জনশক্তি রফতানি ও বিনিয়োগ সম্ভাবনা খতিয়ে দেখা। দেশে ফিরে তিনি সাংবাদিকদের শুনিয়েছেন আশাব্যঞ্জক কথাবার্তা। ঘানা, সেনেগাল ও আইভোরিকোস্টকে কৃষি জমি লিজ নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ। প্রস্তাব গৃহীত হলে উৎপাদিত ফসল বাংলাদেশের সঙ্গে ভাগাভাগি করে নেবে দেশগুলো। তার মানে কৃষি কাজ করতে বাংলাদেশের কৃষকদের পশ্চিম আফ্রিকায় যাওয়ার একটা সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। তাঁর তথ্য অনুসারে, লাইবেরিয়ায় মাত্র এক মার্কিন সেন্টের বিনিময়ে এক একর জমি লিজ নেয়া যায় এক বছরের জন্য। এ তো রীতিমতো পানির দাম!

মজার ব্যাপার হলো, বাংলাদেশ বিদেশে কৃষি জমি লিজ নেয়ার যে চিন্তা এখন করছে, অনেক দেশই তা শুরু করে দিয়েছে অনেক আগে। পুঁজি রফতানি করে, অথচ খাদ্য আমদানি করে, এমন দেশগুলো এই উদ্যোগের অগ্রপথিক। বিশ্ববাজার থেকে খাদ্য কেনার চেয়ে এই কৌশল বেশি কার্যকরী। সরকারী এবং রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালী কোম্পানিগুলো বিদেশে কৃষি জমি লিজ নিয়ে ফসল ফলায়। তারপর যৎসামান্য দিয়ে বাকিটা জাহাজ ভরে নিয়ে আসে নিজেদের দেশে। তারা অবশ্য নিজেদের কৃষক পাঠায় না। চুক্তিভিত্তিক ওখানকার কৃষক দিয়েই উৎপাদন করে। অনেকেই এটিকে বলছে, নয়া সাম্রাজ্যবাদী দৃষ্টিভঙ্গি। তবে লিজ নেয়া দেশগুলোর দাবি- বীজ, প্রযুক্তি পুঁজি সরবরাহের বদৌলতে মুনাফা ভোগ করছে তারা।

বিদেশে কৃষি জমি লিজ নেয়ার ফলশ্রুতিতে গেলো বছরের সূচনায় সৌদি আরব প্রথম গমের চালানটি গ্রহণ করে। বাদশাহ আব্দুলস্নাহ এই মুহূর্তটিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য উৎসবের আয়োজন করেছিলেন। করবেনই বা না কোনো, সবে তো শুরু। এখন থেকে প্রতিবছর ইথিওপিয়া থেকে আসবে বিশাল পরিমাণের খাদ্য শস্য। বাদশাহ সম্পূর্ণ নিজের উদ্যোগেই জমি লিজ নেয়ার চুক্তি করেন দরিদ্র দেশটির সঙ্গে। প্রথম কয়েক বছর করের কোন ঝামেলা নেই। বিনিয়োগকারী সুযোগ পাচ্ছে উৎপাদিত সমস্ত খাদ্য শস্যই দেশে নিয়ে যাওয়ার। সৌদি আরব ইথিওপিয়াতে বিনিয়োগ করেছে ১১৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম (ডবস্ন- এফপি) ঠিক একই পরিমাণ অর্থ খরচ করেছে ইথিওপিয়াতে গত ৪ বছরে। তবে তাদের লক্ষ্য ক্ষুধা ও অপুষ্টিতে আক্রান্ত মানুষগুলোকে বাঁচিয়ে রাখা।

বিদেশে কৃষি জমিতে বিনিয়োগ নতুন কিছু নয়। ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যাওয়ার পর রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ও যৌথ খামারগুলো লিজ নেয়ার জন্য ভিড় করেছিলো বিভিন্ন দেশের বিনিয়োগকারীরা। তবে সাম্প্রতিক প্রবণতাকে একটু ভিন্ন বলেই মন হচ্ছে, বিশেষত চুক্তির পরিসরের কারণে। ১ লাখ হেক্টরের (২৪ হাজার একর) চুক্তি হলেই সেটিকে বলা হয় বড় চুক্তি। বর্তমানে চুক্তি হচ্ছে তারচে’ অনেক বড় আকারে। কেবলমাত্র সুদানেই ৬ লাখ ৯০ হাজার হেক্টর জমি লিজ নেয়ার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে দক্ষিণ কোরিয়া। সংযুক্ত আরব-আমিরাত ও মিশর নিয়েছে ৪ লাখ হেক্টর করে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সুদানের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, মোট কর্ষিত জমির এক-পঞ্চমাংশ তারা ছেড়ে দিচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের কাছে। আফ্রিকার সর্ববৃহৎ এ দেশটি ঐতিহ্যগতভাবে আরব বিশ্বের রুটির ঝুড়ি নামে পরিচিত। তবে লিজ সেই সব দেশই দিচ্ছে, যাদের রয়েছে কর্ষিত-অকৃর্ষিত প্রচুর জমি, অথচ ঘাটতি রয়েছে পুঁজির।

বিদেশে জমি লিজ নেয়ার দৌড়ে ইতোমধ্যে সামিল হয়েছে ভারত ও চীন। জৈব জ্বালানির জন্য পামওয়েল উৎপাদনের লক্ষ্যে চীন কঙ্গোর কাছ থেকে লিজ নিয়েছে ২.৮ মিলিয়ন হেক্টর জমি। সেখানে তারা গড়ে তুলছে পৃথিবীর সর্ববৃহৎ পামওয়েল পস্নানটেশন। এরই মধ্যে সেখানে পেঁৗছে গিয়েছে চীনা কৃষি শ্রমিক। আরো ২ মিলিয়ন হেক্টরের জন্য তারা কথাবার্তা চালিয়ে যাচ্ছে কঙ্গোর সঙ্গে। ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (আইএফপিআরআই) জানিয়েছে, ২০০৬ সাল থেকে এ পর্যন্ত দরিদ্র দেশগুলোর প্রায় ২০ মিলিয়ন হেক্টর জমি লিজ হিসেবে বিনিময় হয়েছে। এ জন্য অর্থ চুক্তির পরিমাণ ২০ থেকে ৩০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। অনেকেই এ বিষয়টিকে দেখছে ইতিবাচক দৃষ্টিতে। কারণ, প্রতি হেক্টর জমিতে যদি ২ টন খাদ্য শস্যও হয়, তবে তা হবে আফ্রিকায় গড় উৎপাদনের দ্বিগুণ। এতে করে পৃথিবীর খাদ্য সমস্যা কমানোর সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে।

আগে ভিন দেশের কৃষিতে বিনিয়োগ হতো কেবল ব্যক্তিগত পর্যায়ে, কিন্তু এখন চলছে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে। তবে বেসরকারী পর্যায়ে বিনিয়োগও টিকে রয়েছে। গত বছর সুইডেনের আলপো এগ্রো কোম্পানি রাশিয়ার কাছ থেকে লিজ নেয় ১ লাখ ২৮ হাজার হেক্টর জমি। প্রায় সমপরিমাণ জমি কম্বোডিয়ার কাছ থেকে নিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি কোম্পানি।

বৃহৎ পরিসরে জমি লিজ নেয়ার চিন্তাটা হয়তো বাংলাদেশ এখনই করছে না, কিন্তু স্বল্প পরিসরে হলেও এখনই শুরু করা উচিত। কারণ প্রতিদ্বন্দ্বীরা তৎপর। ভবিষ্যতে সস্তা বিনিময় মূল্য নাও থাকতে পারে। তবে আশার কথা- চাষাবাদ ব্যবস্থার উন্নয়নে বাংলাদেশের অংশগ্রহণের প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে পশ্চিম আফ্রিকার দেশগুলো। অদূর ভবিষ্যতে দেখা যেতে পারে বাংলাদেশের কৃষি শ্রমিকরা ফসল ফলাচ্ছে আফ্রিকায়, আর উৎপাদিত ফসলের অর্ধেক চলে আসছে বাংলাদেশে।

– দ্যা ইকোনোমিস্ট অনুসরণে

আইপিওর শর্ত শিথিল : শেয়ার সরবরাহ বাড়ানো, না বিশেষ সুবিধা দেয়ার কৌশল


আইপিওর শর্ত শিথিল : শেয়ার সরবরাহ বাড়ানো, না বিশেষ সুবিধা দেয়ার কৌশল
অর্থনৈতিক রিপোর্টার
অবশেষে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে আইপিওর শর্ত শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (এসইসি)। বাজারে তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে পরিশোধিত মূলধন ৪০ কোটির পরিবর্তে ৩০ কোটি টাকায় কমিয়ে আনাসহ শেয়ার ছাড়ার ক্ষেত্রেও কিছু শর্ত শিথিল করছে কমিশন। এ সপ্তাহের মধ্যে এ ব্যাপারে প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এদিকে বিদ্যুত্ ও অবকাঠামোগত খাতের কোম্পানিকে বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে শেয়ারবাজারে আসার সুযোগ করে দেয়ার জন্য শর্ত শিথিলের বিষয়টি বিবেচনা করছে কমিশন। আইপিও শর্ত শিথিল করায় বাজারে শেয়ার সরবরাহ বাড়তে ইতিবাচক ভূমিকা তৈরি হবে বলে মনে করেন বাজারবিশ্লেষকরা। তবে একইসঙ্গে প্রশ্ন উঠছে, শেয়ার সরবরাহ বাড়াতে না বিশেষ কাউকে সুযোগ দেয়ার জন্য আইপিও’র শর্ত শিথিল করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বাজারে ক্রমেই চাহিদা বাড়তে থাকলেও শেয়ার সরবরাহ বাড়ানোর কার্যকর কোনো উদ্যোগ ছিল না। বরং শেয়ারবাজারে ফেসভ্যালু পরিবর্তনের মতো নন-ইস্যুকে সামনে আনা হয়। ফেসভ্যালু পরিবর্তনের কারণে কোম্পানির আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন না হলেও কোম্পানির পরিচালকরা এ বিষয়ে বেশ তত্পর হয়ে ওঠেন। আর এতে অর্থ মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি ও এসইসির অতিউত্সাহী মনোভাব নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। কিন্তু এসইসির জনবল বৃদ্ধি, শেয়ার সরবরাহ বাড়ানো, শেয়ার কেলেঙ্কারির মামলা নিষ্পত্তি, শেয়ারবাজার সংক্রান্ত মামলা বিরোধে বিশেষ ট্রাইবুনাল গঠনের বিষয়গুলোর মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর প্রতি খুব একটা নজর নেই। উপরন্তু গত মার্চে হঠাত্ করেই অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে একটি চিঠির মাধ্যমে আইপিওর ক্ষেত্রে নতুন কিছু শর্ত আরোপ করে একটি চিঠি ইস্যু করা হয়। যদিও এ ধরনের চিঠি ইস্যুর ক্ষেত্রে এসইসির সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনাই করেনি মন্ত্রণালয়। অথচ এসইসির আইন অনুযায়ী, বাজারসংক্রান্ত যে কোনো বিষয়ে সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে এসইসির মতামত নেয়ার কথা। কিন্তু মন্ত্রণালয়ের সুপারিশগুলোকে প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করে এসইসি। গত ১১ তারিখে জারিকৃত ওই প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির যোগ্যতা হিসেবে কোম্পানির কমপক্ষে ৪০ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধন থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়। একইসঙ্গে ওই প্রজ্ঞাপনে কোনো প্রতিষ্ঠানের পরিশোধিত মূলধন ৭৫ কোটি টাকার নিচে হলে ওই কোম্পানির জন্য ৪০ শতাংশ শেয়ার ছাড়া বাধ্যবাধক করা হয়। এছাড়া পরিশোধিত মূলধন ৭৫ থেকে ১৫০ কোটি টাকা হলে কমপক্ষে ২৫ শতাংশ অথবা ৩০ কোটি টাকার মধ্যে যেটি বেশি হবে সে পরিমাণ শেয়ার বাজারে ছাড়তে হবে। আর ১৫০ কোটি টাকার বেশি পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানি তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে কমপক্ষে ১৫ শতাংশ শেয়ার ছাড়ার বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়। তবে বাজারে ছাড়া শেয়ারের মূল্য ৪০ কোটি টাকার কম হতে পারবে না। এসইসির এ সিদ্ধান্তের কারণে শেয়ার সরবরাহে বড় ধরনের সঙ্কট তৈরি হবে এবং বাজারে শেয়ার ছাড়ার ব্যাপারে কোম্পানিগুলো আগ্রহ হারাবে বলে মত প্রকাশ করেছিলেন বাজার বিশ্লেষকরা। কিন্তু এ ধরনের সমালোচনার মুখেও এসইসি তার সিদ্ধান্তে অটল থাকে। আবার প্রশ্নও ওঠে, কমিশনের মতামত ছাড়া মন্ত্রণালয়ের সুপারিশকে প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করা কতটুকু যৌক্তিক হয়েছে? কমিশন সরকারের আজ্ঞাবাহী কোনো সংস্থা না হলেও এ ধরনের প্রজ্ঞাপন জারির ফলে কমিশনের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হয়।

নানা সমালোচনার মুখে অবশেষে ৯ আগস্ট কমিশন বাজার পর্যালোচনা কমিটির বৈঠকে পরিশোধিত মূলধন কমানোর বিষয়ে সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে পরিশোধিত মূলধন ২৫ কোটি টাকা করার বিষয়ে সুপারিশ করা হলেও অবশেষে কমিশনের বৈঠকে তা ৩০ কোটি টাকা করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কোনো কোম্পানির উদ্যোক্তাদের মূলধন ১৮ কোটি টাকা হলেই কোম্পানিটি ১২ কোটি টাকার শেয়ার ছেড়ে তার পরিশোধিত মূলধন ৩০ কোটি টাকা করতে পারবে। এছাড়া শেয়ার ছাড়ার ক্ষেত্রে আরও বেশকিছু শর্ত শিথিল করা হয়। তবে কমিশন বৈঠকের এ সিদ্ধান্ত এখনও কার্যকর হয়নি। কারণ এজন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন চেয়েছে কমিশন। কমিশনের একজন নির্বাহী পরিচালক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আইপিও শর্ত শিথিল করা কমিশনের সিদ্ধান্তের বিষয়। কিন্তু ১১ মার্চের প্রজ্ঞাপনটি অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে নেয়ার কারণে এখন তা পরিবর্তনে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন চাওয়া হয়েছে। কিন্তু এটি হওয়া উচিত ছিল না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এদিকে কমিশনের আইপিও শর্ত শিথিল করার উদ্দেশ্য নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। ৪০ কোটি টাকার আইপিও শর্ত এবং ৪০ শতাংশ শেয়ার ছাড়ার বিষয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে কমিশন তা পরিবর্তন না করার ব্যাপারে অনড় ছিল। কিন্তু হঠাত্ করেই কমিশনের পর্যালোচনা কমিটির সভায় এবং কমিশনের সভায় আইপিও শর্ত শিথিল করার পেছনে শুধু শেয়ার সরবরাহ বাড়ানো মূল উদ্দেশ্য কিনা এ প্রশ্ন উঠেছে। বাজারসংশ্লিষ্ট অনেকেই অভিযোগ করছেন, বুক বিল্ডিং পদ্ধতি অনুযায়ী ওয়েস্টিন হোটেলের আইপিওতে ন্যূনতম ৪০ কোটি টাকার শেয়ার ছাড়ার কথা থাকলেও তারা সে শর্ত পূরণ না করেই এসইসির অনুমোদনে প্রসপেক্টাস জমা দিয়েছিল। শর্ত পূরণ করে আবার আইপিও আবেদন করতে বলেছে এসইসি। অ্যাপোলো হাসপাতালের আইপিও একই কারণে অনুমোদন দেয়া হয়নি। অভিযোগ উঠেছে, এ ধরনের কোম্পানিগুলোকে বিশেষ সুবিধা দেয়ার জন্যই শর্ত শিথিল করা হচ্ছে।

কমিশনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল—কোম্পানি দুটি যখন আইপিওর জন্য আবেদন করেছিল তখন শর্ত অনুযায়ী তাদের ৪০ কোটি টাকার শেয়ার ছাড়া ছিল বাধ্যতামূলক। কিন্তু এখন আইপিওর শর্ত শিথিল করা হলে তারা এ সুবিধা পাবে কিনা? তিনি বলেন, যদি শর্ত শিথিল করা হয় তাহলে তারা অবশ্য সে সুবিধা পাবে। এজন্য তাদের শর্তগুলো কমপ্লাইন্স করে আবেদন করতে হবে। কিন্তু তারা তো আগেই আবেদন করেছিল যখন ৪০ কোটি টাকার শর্ত ছিল—এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, কিন্তু ততক্ষণে শর্ত পরিবর্তন হয়ে গেছে। অথচ এর আগে বেসরকারি কোম্পানির ক্ষেত্রে সরাসরি তালিকাভুক্তি নিষিদ্ধ করা হলেও শুধু নিষিদ্ধের আগে আবেদন করায় বাণিজ্যমন্ত্রীর পারিবারিক দুটি প্রতিষ্ঠানকে সরাসরি তালিকাভুক্তির সুযোগ দেয়া হয়েছিল। এখন আবার কোম্পানিগুলোকে শর্ত শিথিলের সুযোগ দেয়ার বিষয়ে কমিশনের ইতিবাচক মনোভাব অনেক প্রশ্ন জন্ম দিচ্ছে।

অপরদিকে বিদ্যুত্ ও অবকাঠামো খাতের নতুন কোম্পানির (গ্রিনফিল্ড) জন্য বুক বিল্ডিং পদ্ধতির শর্ত শিথিলের প্রস্তাব বিবেচনা করার বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে এসইসি। বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব পাবলিকলি লিস্টেড কোম্পানিজের (বিএপিএলসি) প্রস্তাবের ভিত্তিতে গত ২৬ অক্টোবর কমিশনের সভায় এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। গত আগস্ট মাসে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহ করে বিদ্যুত্ ও অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগের সুযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট আইন সংশোধনের জন্য বিএপিএলসি’র পক্ষ থেকে এসইসিতে একটি চিঠি পাঠানো হয়। চিঠিতে বিদ্যুত্ ও অবকাঠামো খাতের নতুন প্রকল্পগুলোকে আইপিওর মাধ্যমে বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে আসার জন্য তিনটি শর্ত থেকে অব্যাহতি দেয়ার প্রস্তাব করে বিএপিএলসি। তবে এ ধরনের সুযোগ দেয়ার বিষয়টি ব্যাপক আলোচনার প্রয়োজন রয়েছে বলে বাজার বিশ্লেষকরা মনে করেন। কারণ শেয়ারবাজারে বর্তমানে চাহিদা সঙ্কটের কারণে অনেকেই তার সুযোগ নিতে তত্পর হয়ে উঠেছেন। নানাভাবে বাজার থেকে টাকা ওঠানোর হিড়িক পড়েছে। বুক বিল্ডিং পদ্ধতি নিয়ে এমনিতেই রয়েছে নানা প্রশ্ন। এরপর আবার শর্ত শিথিল করে বিশেষ কোনো কোম্পানিকে সুযোগ দেয়ার জন্য আইপিও শর্ত শিথিল করা কতটুকু যৌক্তিক হবে তা বিবেচনা করতে হবে।

এদিকে বাজারে চাহিদার কারণে ১৯৯৬-৯৭ সালে অনেক নামসর্বস্ব কোম্পানি বাজার থেকে টাকা তুলে নিয়েছে বলে গত ৯ অক্টোবর এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ডিএসই এবং সিএসই প্রেসিডেন্ট অভিযোগ করেছিলেন। এসব কোম্পানি যারা বাজারে নিয়ে এসেছিল সেসব মার্চেন্ট ব্যাংকারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য এসইসির প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন তারা। ওই সময় বাজারে আসা কোম্পানিগুলো ওটিসি মার্কেটে স্থান পেয়েছে।

এখন আবার বাজারে চাহিদার কারণে যাতে যেনতেন কোম্পানিকে বাজারে আসার অনুমোদন না দেয়া হয়, সে বিষয়ে এসইসিকে সতর্ক থাকারও আহ্বান জানিয়েছিলেন তারা। অপরদিকে বাজারবিশ্লেষকরা বলেন, চাহিদার কারণে যাতে কোম্পানিগুলো অতিরিক্ত প্রিমিয়াম নিতে না পারে তাতেও এসইসির দৃষ্টি দিতে হবে। কারণ বিনিয়োগকারীর স্বার্থরক্ষার বিষয়ে এসইসির ভূমিকা সবার কাম্য।