প্লাস্টিক বোতলের পানি থেকে সাবধান


প্লাস্টিক বোতলের পানি থেকে সাবধান
রঙ-ঢঙ ডেস্ক

আকার আর ওজনের সুবিধা মিলিয়ে সারা বিশ্বেই প্লাস্টিকের বোতলজাত পানির কদর বেড়েছে। এর সঙ্গে রয়েছে বোতলজাত পানি ব্যবসায়ীদের নানা বাহারি বিজ্ঞাপন। যে কারণে এটি এখন ফ্যাশনেরও অনুষঙ্গ। তবে এ বোতলজাত পানি কতটা স্বাস্থ্য ও পরিবেশের জন্য উপকারী, তা নিয়ে সচেতনতাও বাড়ছে। চলছে গবেষণা, নেয়া হচ্ছে নানা উদ্যোগ। অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে অ্যালুমিনিয়াম অথবা স্টিলের বোতলে পানি খেতে। মেলবোর্ন ফ্যাশন উইকের অনুষ্ঠানেও চলতি বছর প্লাস্টিকের বোতলজাত পানি সরবরাহকে নিরুত্সাহিত করা হয়। কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলো প্লাস্টিকের ক্ষতিকর উপাদান কমিয়ে আনার নির্দেশ দিয়েছে। কাজও চলছে সেই মাফিক। অস্ট্রেলিয়ার ২০ হাজার মানুষের ওপর জরিপ চালিয়ে দেখা গেছে, তাদের বেশির ভাগই প্লাস্টিকের বোতলে পানি খাওয়ার মতো আধুনিকতা ত্যাগ করতে সম্মত হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার ক্যাথলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষবিদ্যার শিক্ষক ক্রিস উইনডার সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখিয়েছেন প্লাস্টিকের বিক্রিয়া ও মানবশরীরে এর ক্ষতিকর প্রভাব। তিনি জানিয়েছেন, প্লাস্টিক বোতলের পুনর্ব্যবহার ব্যাকটেরিয়াদূষণের জন্য দায়ী। প্রতিবার ব্যবহারের পর তা এমনভাবে ধুতে হবে, যেন অন্য কোনো উপাদান, যেমন- সাবান প্রভৃতি এর সঙ্গে লেগে না থাকে। তাহলে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ থেকে অন্তত রেহাই মিলবে। তবে অবশ্যই তা ঠাণ্ডা পানিতে ধুতে হবে। কারণ তাপে প্লাস্টিকে ব্যবহূত রাসায়নিক পদার্থগুলো উন্মুক্ত হয়; যা শরীরের ক্ষতি করে।

প্লাস্টিক বোতল তৈরি হয় মূলত দুই ধরনের প্লাস্টিক থেকে। এর একটি পলিকার্বন, যা বিসফেনল এ (বিপিএ) থেকে উত্পাদিত এবং অন্যটি পিইটি, যা পলিইথিলিন থেকে উত্পাদিত। পলিইথিলিনকে নিরাপদ বিবেচনা করা হয়। তবে বিপিএ ক্ষতিকর। ১৯৫০ সাল থেকেই বাণিজ্যিকভাবে প্লাস্টিক উত্পাদনে এর ব্যবহার হয়ে আসছে; যার ক্ষতিকর বিষয়গুলো এরই মধ্যে প্রমাণিত।

বিপিএ প্লাস্টিকের আধারে জমে থাকা উপাদান দ্রবীভূত করার ক্ষমতা রাখে। পানিতে এসব উপাদান মিশে যায় সহজেই। ৯৫ শতাংশ মার্কিনের মূত্রে এ রাসায়নিক উপাদানের উপস্থিতি টের পাওয়া গেছে। এর পরিমাণ শিশুদের মধ্যেই বেশি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব মারাত্মক হয়ে উঠতে পারে।

বিপিএর সঙ্গে এক প্রকার হরমোনের গাঠনিক মিল রয়েছে। এটি ওয়েসট্রোজেন মিকি হরমোন নামে পরিচিত। অধ্যাপক উইনডার জানিয়েছেন, বিপিএ নানা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকির কারণ। যেমন— অনুর্বরতা, মোটা হয়ে যাওয়া, ডায়াবেটিস, গলার ক্যান্সার, এমনকি এ উপাদান কেন্দ্রীয় সংবেদনশীলতাকেও অবশ করে দিতে পারে। স্তন ও জরায়ু ক্যান্সারের কারণও হয়ে উঠতে পারে এ বিপিএ। উইনডার আশা করছেন, মানুষ শিগগিরই এর বিপদ সম্পর্কে অবহিত হবে, ১০ বছরের মধ্যেই এ উপাদানের ক্ষতি সম্পর্কে সবাই জানবে এবং ২০ বছরের মধ্যেই প্লাস্টিকের বোতলে পানি খাওয়া বন্ধ হয়ে যাবে।

বিশ্বজুড়ে প্রতি বছর ১ দশমিক ৫ মিলিয়ন টন প্লাস্টিক ব্যবহার করা হয় পানির বোতল তৈরিতে। একবার ভাবলেই বিষয়টি উপলব্ধি করা সম্ভব। কারণ এ বোতল তৈরির ফলে ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ উত্পাদিত হয়। ক্ষতিকর উপাদানগুলোর মধ্যে রয়েছে নিকেল, ইথাইলবেনজিন, ইথিলিন অক্সাইড, বেনজিন প্রভৃতি। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, বিশ্বব্যাপী প্রতি সেকেন্ডে প্রায় দেড় হাজার পানির বোতল নিঃশেষ করা হয়। এর কারণে নষ্ট হয় ভূমির উর্বরতা ও ব্যাহত হয় জলাধারের স্বাভাবিক গতি।

আতঙ্কের আরো বিষয় হচ্ছে, প্লাস্টিক থেকে ক্ষতিকর উপাদান দূর করার যে মানদণ্ড দেয়া হয়, বিশ্বব্যাপীই তা মানা হয় না। পরীক্ষায় দেখা গেছে, বিশ্বজুড়েই অন্তত ২২ শতাংশ প্লাস্টিকের বোতলে ক্ষতিকর মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা হয় না। একই সঙ্গে পানির উত্স, এর বিশুদ্ধকরণ প্রক্রিয়া ও দাম বিষয়েও ঘাপলা তৈরি হয়।

সূত্রঃ বনিকবার্তা

ইন্টারনেটের আওতায় দেশের মাত্র ৫% মানুষ


ইন্টারনেটের আওতায় দেশের মাত্র ৫% মানুষ

ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যার দিক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে ৪৬তম।
মে ১৮, ২০১৩

জেসমিন মলি :
তথ্যপ্রবাহের অবাধ ব্যবহার নিশ্চিত করতে ইন্টারনেটের বিকল্প নেই। অথচ দেশে এর বিপরীত চিত্রই দৃশ্যমান। বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানির তথ্য অনুযায়ী দেশের ২৭ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। কিন্তু ইন্টারনেট ওয়ার্ল্ড স্ট্যাটাসের চলতি বছরের প্রতিবেদন বলছে, ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে পিছিয়ে রয়েছে। বাংলাদেশে ইন্টারনেট পেনিট্রেশন বা ঘনত্বের হার ৫ শতাংশ, যা এশিয়ার মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারী সংখ্যার মাত্র দশমিক ৭ শতাংশ। আর ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩৩ লাখ ৫২ হাজার।
প্রসঙ্গত, সারা বিশ্বে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর তথ্য নিয়ে তথ্যভাণ্ডার তৈরি করে ইন্টারনেট ওয়ার্ল্ড স্ট্যাটাস।
প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, দক্ষিণ এশিয়ায় ইন্টারনেট ঘনত্বে সবচেয়ে বেশি ভুটানে। দেশটির মোট জনসংখ্যার ২১ শতাংশ ইন্টারনেট ব্যবহার করে আর তাদের ফেসবুক গ্রাহকের সংখ্যা ৪২ হাজার। ভারতে ইন্টারনেট ঘনত্বের হার ১১ দশমিক ৪ শতাংশ এবং ফেসবুক ব্যবহারকারী ৬২ কোটি ৭ লাখ। পাকিস্তানে ইন্টারনেট ঘনত্বের হার ১৫ দশমিক ৩ শতাংশ এবং ফেসবুক গ্রাহক ৭ কোটি ৯৮ লাখ। শ্রীলংকায় ১৫ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধাপ্রাপ্ত আর ফেসবুক গ্রাহক ১ কোটি ৫১ লাখ। নেপালে ৯ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে আর ফেসবুক গ্রাহক ১৯ লাখ ৪০ হাজার।
ইন্টারনেট ওয়ার্ল্ড স্ট্যাটাসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১২ সালে এশিয়ায় ৪৪ দশমিক ৮ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করে। এ হার ইউরোপে ২১ দশমিক ৫, দক্ষিণ আমেরিকায় ১১ দশমিক ৪, লাতিন আমেরিকা ও ক্যারিবীয় অঞ্চলে ১০ দশমিক ৪, আফ্রিকায় ৭, মধ্যপ্রাচ্যে ৩ দশমিক ৭ এবং ওশেনিয়ায় ১ শতাংশ। গত বছর পুরো এশিয়ায় ৪৪ দশমিক ৮ শতাংশ গ্রাহক ইন্টারনেট ব্যবহারের আওতায় ছিল, যা মোট জনসংখ্যার ২৭ দশমিক ৫ শতাংশ। আর বিশ্বের বাকি অংশে ছিল ৫৫ দশমিক ২ শতাংশ, যা মোট জনসংখ্যার ৫৫ দশমিক ২ শতাংশ। এশিয়ায় ইন্টারনেট ব্যবহারের ঘনত্ব উত্সাহব্যঞ্জক হলেও বাংলাদেশে এ চিত্র হতাশাজনকই।
ফেসবুক-সংশ্লিষ্ট নানা পরিসংখ্যান সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান সোস্যাল বেকারস বলছে, ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যার দিক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে ৪৬তম।
ইন্টারনেট ওয়ার্ল্ড স্ট্যাটাসের প্রতিবেদনের তথ্য ভুল বলে দাবি করে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা শেফায়েত হোসেন জানান, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানির তথ্য অনুযায়ী ইন্টারনেট ঘনত্ব ৩ থেকে ২৭ শতাংশে পৌঁছেছে। সে হিসাবে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারের চিত্র উত্সাহব্যঞ্জক। সারা দেশে অপটিক্যাল ক্যাবল ফাইবার নেটওয়ার্কের আওতায় ও টেলিটকের থ্রিজি পুরোপুরি চালু হলে এ হার আরো বাড়বে।
ঢাকা কমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এমএ হাকিম এ প্রসঙ্গে বণিক বার্তাকে জানান, কোনো দেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ঘনত্ব বাড়াতে হলে সে পরিমাণ অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা থাকতে হয়। কিন্তু দেশে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে পর্যাপ্ত অবকাঠামোর সুযোগ না থাকায় ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ছে না। এ কারণে সরকারের নিজস্ব অবকাঠামো তৈরির ওপর জোর দিতে হবে।
দেশে ইন্টারনেট ব্যবহার বাড়াতে সরকারি-বেসরকারি নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ওয়াইম্যাক্স, থ্রিজির মতো প্রযুক্তিতে প্রবেশ করেছে গ্রাহক। ইন্টারনেটে কাজের সুযোগ করে নিয়েছেন অনেক ফ্রিল্যান্সার। কিন্তু অতিরিক্ত দাম ও অপর্যাপ্ত গতির কারণে তাদের কাজ ঠিকভাবে করতে পারছেন না। সরকার কয়েক দফা ব্যান্ডউইডথের দাম কমিয়েছে। কিন্তু গ্রাহকপর্যায়ে এর সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারস অ্যাসোসিয়েশন (আইএসপিএবি) অবশ্য বিষয়টি মানতে নারাজ। তাদের মতে, শুরুর সময় বেশি মূল্যে গ্রাহক কম গতির সংযোগ ব্যবহার করত। এখন একই মূল্যে বেশি গতির সংযোগ ব্যবহার করছে। এ কারণে এ অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন আইএসপিএবির সাবেক পরিচালক মাক্তুবুর রহমান।

– বণিক বার্তা

ঢাকা- নিউইয়র্কের মাঝে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট অচিরেই চালু হচ্ছে।


ঢাকা- নিউইয়র্কের মাঝে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট অচিরেই চালু হচ্ছে।

একুশ নিউজ মিডিয়া,লস এঞ্জেলেস, ২৮ জুলাই : বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান এমপি তার ব্যক্তিগত সফরের অংশ হিসাবে নবনির্বাচিত ক্যালিফোর্ণিয়া ষ্টেট আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত ইফতারি ও মতবিনিময় সভায় স্থানীয় প্রবাসীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাংলার মাটিতে হবেই। ‘৭৫-এ আমরা বঙ্গবন্ধুকে রক্ষা করতে পারিনি। বঙ্গবন্ধুকে রক্ষা করতে না পারায় ‘৭১-এ পরাজিত যুদ্ধাপরাধীরা এদেশে রাজনীতি করার সুযোগ পেয়েছিলো। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবীতে তিনি প্রবাসীদের সোচ্চার হবার জন্য আহ্বান জানান। BADAM Los Angeles

বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান একুশ নিউজ মিডিয়ার জাহান হাসানের সাথে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, গার্মেন্ট শিল্পের মত বাংলাদেশের পর্যটন খাতকে আরও বিকশিত করার লক্ষ্যে প্রাইভেট ট্যুর অপারেটরদের উৎসাহিত করার জন্য অচিরেই প্রনোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করা হচ্ছে। ট্যুর বাসসহ পর্যটন খাতে ব্যবহৃত সামগ্রীর উপর আমদানি কর কমানো হচ্ছে। ১২টি দেশে পর্যটন মেলাতে বাংলাদেশের প্রাইভেট ট্যুর অপারেটররা অংশ নিচ্ছে। ইতিমধ্যে জার্মানী, স্পেন ও জাপান থেকে ট্যুর অপারেটরদের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশ সফর করে গেছে।

BADAM Los Angeles Ekush News Media Jahan Hassanআমেরিকা ও ইউরোপ থেকে আগত টুরিস্টদের অন-এরাইভ্যাল ভিসা প্রদান করা হচ্ছে। গত বছর বিদেশ থেকে ৫ লাখেরও বেশী পর্যটক বাংলাদেশ ভ্রমণ করে গেছেন। ২০১০-১১ অর্থবছরে বিদেশি পর্যটকদের বাংলাদেশ ভ্রমণ বাবদ মোট ৫৯৪ কোটি ৬৬ লাখ ৬০ হাজার টাকা বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হয়েছে। দেশের মাঝে পর্যটনকে আকর্ষনীয় করার লক্ষ্যে প্রতি বছর ৬টি পর্যটনমেলার আয়োজন করা হচ্ছে।

পর্যটন মন্ত্রী বলেন পর্যটন শিল্পকে গুরুত্ব দিয়ে কক্সবাজারকে পৃথিবীর সুন্দরতম পর্যটন নগরী হিসাবে গড়ে তোলার অংশ হিসাবে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ নামে একটি সংস্থা মন্ত্রীপরিষদ ক্যাবিনেট মিটিংএ অনুমোদিত হয়েছে। আগামী সংসদে এই বিল উত্থাপণ করা হবে। এতে বিদেশী পর্যটকদের জন্য এক্লুসিভ টুরিস্ট জোন থাকবে। ২০১৪ সালের টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপকে সামনে রেখে কক্সবাজার স্টেডিয়াম নির্মিত হতে যাচ্ছে। তিনি বলেন, পর্যটনের এই বিশাল সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে। এতে দেশের ভাবমূর্তির উন্নতি হবে। বৈদেশিক মুনাফা অর্জন করা সম্ভব হবে।

BADAM Los Angeles Ekush News Media Jahan Hassanমন্ত্রী লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান বলেন, তিন বছর পর ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিশেন অর্গানাইজেশন (আইকাও) এর কালো তালিকা থেকে মুক্ত হলো বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। ২০০৯ সালের জুনে ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশন (আইকাও) বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) কার্যক্রমে নানা অসঙ্গতির কারণে বাংলাদেশকে নিরাপত্তা উদ্বেগের বিষয়ে সিগনিফিকেন্ট সেফটি কনসার্নের (এসএসসি) তালিকাভুক্ত করে। যা বিমান চলাচল ব্যবসায় কালো তালিকা হিসেবে ধরা হয়। এদিকে এসএসসিতে থাকার ফলে আমেরিকান ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফএএ) বেবিচককে ক্যাটাগরি-২ এ রেখেছে।

BADAM Los Angeles Ekush News Media Jahan Hassanতিনি বলেন, এই কালো তালিকা থেকে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর বের হয়ে আসার ফলে আগামী ৬ মাসের মধ্যে ঢাকা- নিউইয়র্কের মাঝে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট চালু হবার প্রবল সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। বাংলাদেশ ২টি অত্যাধুনিক বোয়িং ৭৭৭-৩০০ বিমান কিনেছে। তিনি বলেন, বিশ্বের উন্নত বিমানবন্দরগুলোর সাথে সামঞ্জস্য রেখেই এ বিমানবন্দরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। এজন্য পুরো বিমানবন্দরকেই অত্যাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন নিরাপত্তা বলয়ের আওতায় আনা হচ্ছে। তাছাড়া বিমানবন্দরের সংরক্ষিত এলাকায় অবৈধ অনুপ্রবেশ ঠেকাতে স্থাপন করা হচ্ছে স্বয়ংক্রিয় এর্লাম ও ভিডিও সার্ভিলেন্স সিস্টেম। একই সাথে যাত্রীদের দেহতল্লাশি, ব্যাগেজ ও কেবিন ব্যাগেজ স্ক্যানিং পদ্ধতিতেও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের পরিবহন নিরাপত্তা প্রশাসন (টিএসএ ) এবং আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রত্যয়ন অনুসারে বিস্ফোরকদ্রব্য ও ধাতব-অধাতব পদার্থ শনাক্ত করতে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে স্থাপিত হচ্ছে সিটি প্রযুক্তির স্ক্যানিং মেশিন। পাশাপাশি বিমানবন্দরের সার্বিক নিরাপত্তা কার্যক্রম তদারকি ও নিয়ন্ত্রণের জন্য খোলা হচ্ছে নিরাপত্তা কন্ট্রোল সেন্টার। বাণিজ্যিকভাবে বিমানকে লাভজনক করার জন্য ১০টি উড়োজাহাজ সংগ্রহ, সার্বিক খরচ কমানো ও ফ্লাইট সূচি পরিবর্তনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

BADAM Los Angeles Ekush News Media Jahan Hassanক্যালিফোর্ণিয়া ষ্টেট আওয়ামী লীগ আয়োজিত ইফতার ও মতবিনিময় অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে বারব্যাঙ্ক নির্বাচনী এলাকার ডেমোক্রেটিক ইউ এস রিপ্রেজেন্টেটিভ কংগ্রেসম্যান এডাম শীফ উপস্থিত ছিলেন। তিনি বাংলাদেশের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের পর্যটন শিল্পসহ অন্যান্য খাতে অবিরাম সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

ডাঃ রবি আলমের সঞ্চালনা ও শফিকুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে লস এঞ্জেলেসের কন্সাল জেনারেল এনায়েত হোসেন, ভাইস কন্সাল, কমার্শিয়াল কন্সাল সহ অনেক স্থানীয় প্রবাসীরা এই উপলক্ষে উপস্থিত ছিলেন।

ছবি লিঙ্কঃ
http://www.facebook.com/media/set/?set=a.10151048843531897.456294.826936896&type=3&l=0e4bd1f1d9

ল্যাটিন আমেরিকার বিভিন্ন দেশসহ আফ্রিকার কয়েকটি দেশে এদেশের তৈরি পোশাকের পর্যাপ্ত চাহিদা রয়েছে


তৈরি পোশাকের নয়াবাজারে ঢুকতে পারছে না বাংলাদেশ

ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, চিলি, উরুগুয়ে, পর্তুগালসহ ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলোতে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের দারুণ চাহিদা। একই অবস্থা আফ্রিকার কয়েকটি দেশে। তবে এসব দেশের নতুন বাজারে ঢুকতে পারছেন না দেশের তৈরি পোশাকের উদ্যোক্তারা। সরকারি পর্যায়ে নানা জটিলতা এবং সংশ্লিষ্ট দেশগুলোতে বাংলাদেশের কোনো দূতাবাস না থাকায় এ সমস্যা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
দেশের সবচেয়ে বড় রফতানি আয়ের খাত তৈরি পোশাক শিল্প। এ শিল্পের বাজার প্রতিনিয়তই বাড়ছে। দেশের রফতানি আয়ের প্রায় ৭৮ শতাংশই আসে এ খাত থেকে। মূলত বাংলাদেশের তৈরি পোশাক ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি রফতানি হচ্ছে। সাড়ে ১২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের এ শিল্পটি বাজার সম্প্রসারণের জন্য নানা উদ্যোগ নিলেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের দূতাবাস অথবা কাউন্সিলিং সেন্টার না থাকায় উদ্যোগগুলো কাজে লাগছে না।
এদিকে পোশাক শিল্পের নতুন বাজার খুঁজতে গিয়ে গত বছর বিজিএমইএর একটি প্রতিনিধি দল ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, চিলি, উরুগুয়ে, পর্তুগালসহ ল্যাটিন আমেরিকার আরও কয়েকটি দেশ ভ্রমণ করে। এ ভ্রমণের ফলাফল হিসেবে সম্প্রতি শেষ হওয়া বাটেক্সপো মেলায় উপরোক্ত দেশগুলোর ক্রেতাদের অংশগ্রহণ এবং এদেশ থেকে তারা পোশাক কেনার জন্য স্পট অর্ডারও দিয়েছেন।
এবারের বাটেক্সপো মেলায় মোট ৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের স্পট অর্ডার পেয়েছেন এদেশের পোশাক শিল্প মালিকরা। পাশাপাশি আরও ৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের অর্ডার নিয়ে আলোচনা চলছে। কিন্তু অর্ডার পেলেও সেসব দেশে বাংলাদেশের দূতাবাস বা কাউন্সিলিং সেন্টার না থাকায় রফতানি কার্যক্রম দ্রুত করা সম্ভব হচ্ছে না।
যেসব দেশে বাংলাদেশের দূতাবাস রয়েছে সেসব দেশে বাণিজ্যিক কর্মকর্তা না থাকায় রফতানি কার্যক্রম পরিচালনা করতে অনেক সময় লেগে যায়। ফলে বাংলাদেশকে প্রতি বছরই কোনো না কোনো বায়ার হারাতে হচ্ছে।
বর্তমানে জাতিসংঘের সদস্যভুক্ত ১৯৩টি দেশের মধ্যে মাত্র ৩৯টি দেশে বাংলাদেশের দূতাবাস অথবা কাউন্সিলিং সেন্টার রয়েছে।
একদিকে নতুন বাজার সম্প্রসারণের মাধ্যমে এ শিল্পকে যতই এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে বিজিএমইএ, অন্যদিকে সরকারের কূটনৈতিক পর্যায়ে জোর লবিংয়ের অভাবে বিশেষ করে আফ্রিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকার বিভিন্ন দেশে দূতাবাস না থাকায় দেশগুলোতে পোশাক রফতানি করতে পারছেন না রফতানিকারকরা। ল্যাটিন আমেরিকার বিভিন্ন দেশসহ আফ্রিকার কয়েকটি দেশে এদেশের তৈরি পোশাকের পর্যাপ্ত চাহিদা রয়েছে বলেও জানিয়েছে বিজিএমইএর একটি সূত্র।
এশিয়ার অনেক দেশে দূতাবাস থাকলেও বাণিজ্যিক পরামর্শক না থাকায় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারছেন না অনেক ব্যবসায়ী। চীন, জাপান, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ আরও কয়েকটি দেশেও পোশাক রফতানির অর্ডার পেয়েছেন দেশের ব্যবসায়ীরা। কিন্তু দ্রুত ভিসাপ্রাপ্তি এবং দূতাবাসগুলোতে বাণিজ্যিক লবিস্ট না থাকার কারণে খুব সহজে রফতানি করতে পারেছেন না পোশাক শিল্প মালিকরা।
বাংলাদেশ গার্মেন্ট মেনুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজিএমইএ) সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী বলেন, নতুন বাজার সম্প্রসারণের মাধ্যমে কয়েক বিলিয়ন মার্কিন ডলার রফতানি আয় করতে পারবে এ দেশ। ফলে দেশের অর্থনীতি আরও মজবুত হবে। এ ব্যাপারে পররাষ্ট্রমন্ত্রী অনেক আশার কথা শুনিয়েছেন; কিন্তু এখনও কার্যকরী কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ আমাদের চোখে পড়েনি।
তিনি আরও বলেন, এরই মধ্যে ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, চিলিসহ দক্ষিণ আফ্রিকায় বাজার সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু এ বাজার ধরে রাখার জন্য এবং সম্প্রসারণের জন্য ব্যবসায়ীদের সে দেশগুলোতে যেতে হয়। কিন্তু আমরা তা পারছি না। ফলে বাজার সম্প্রসারণ হচ্ছে না।
বাংলাদেশ নিটঅয়্যার মেনুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিকেএমইএ) সহ-সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম এ বিষয়ে গতকাল আমার দেশকে বলেন, বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার পর যেমন ইউরোপ-আমেরিকায় তৈরি পোশাকের ব্যাপক চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে, তেমনি নতুন বাজারও তৈরি হয়েছে। তিনি বলেন, আফ্রিকার অনেক দেশ আছে যেসব দেশে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক তৃতীয় কোনো দেশ থেকে রফতানি হচ্ছে; কিন্তু এ সুযোগ বাংলাদেশ নিতে পারছে না।
আমাদের সময়, আলোচনা, ইত্তেফাক, কালের কণ্ঠ, জনকন্ঠ, ডেসটিনি, দিগন্ত, দিনের শেষে, নয়া দিগন্ত, প্রথম আলো, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ভোরের কাগজ, মানবজমিন, মুক্তমঞ্চ, যায় যায় দিন, যায়যায়দিন, যুগান্তর, সংগ্রাম, সংবাদ,চ্যানেল আই, বাঙ্গালী, বাংলা ভিশন, এনটিভি,এটিএন বাংলা, আরটিভি, দেশ টিভি, বৈশাখী টিভি, একুশে টিভি, প্রবাস, প্রবাসী, ঠিকানা, জাহান হাসান, বাংলা, বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস, লিটল বাংলাদেশ, ইউএসএ, আমেরিকা, অর্থনীতি, প্রেসিডেন্ট ওবামা,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র,অর্থ, বাণিজ্য, শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়া, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামাত, রাজাকার, আল বদর, Jahan, Hassan, Ekush, bangla, desh, Share, Market, nrb, non resident, los angeles, new york, ekush tube, ekush info,

অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতার সত্ত্বেও আরো গোপন তথ্য ফাঁস: উইকিলিকসে বাংলাদেশ বিষয়ে ২১৮২ নথি


অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতার সত্ত্বেও আরো গোপন তথ্য ফাঁস

সবকিছুর জন্য যুক্তরাষ্ট্র দায়ী :অস্ট্রেলিয়া

যৌন অপরাধের মামলায় প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ গ্রেফতার হওয়া সত্বেও থামানো যাচ্ছে না তার সাড়া জাগানো সৃষ্টি ওয়েবসাইট-ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম উইকিলিকস। যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের কয়েকটি দেশের লাখ লাখ গোপন নথি ফাঁস করে দুনিয়াজুড়ে আলোচনার ঝড় তোলা উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা অ্যাসাঞ্জ মঙ্গলবার ব্রিটেনে গ্রেফতার হন। সুইডেনের একটি গ্রেফতারি পরোয়ানায় তাকে আটক করা হয়। দু’জন মহিলার উপর যৌন নিপীড়নের অভিযোগে অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে সুইডিশ কর্তৃপক্ষ আগেই পরোয়ানা জারি করেছিল।

তবে অস্ট্রেলিয়া বলেছে, উইকিলিকসে আড়াই লাখ কূটনৈতিক গোপন নথি ফাঁস হওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রই দায়ী, সংবাদমাধ্যমটির প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ নন। অ্যাসাঞ্জকে সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে তার দেশ অস্ট্রেলিয়া। খবর বিবিসি, এপি ও এএফপির।

যৌন অপরাধের অভিযোগ জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ ব্রিটেনে গ্রেফতার হলেও গতকাল বুধবার তার প্রতিষ্ঠান উইকিলিকস আরো গোপন তথ্য ফাঁস করেছে। ওয়েবসাইটের এক ঘোষণায় বলা হয়েছে, সামনে আরো গোপন তথ্য প্রকাশ্যে আনবে উইকিলিকস। উইকিলিকস মুখপাত্র ক্রিস্টিন রাফসোন টুইটারে এক ক্ষুদ্রবার্তার সহায়তায় গতকাল বলেন, নতুন আরো গোপন তথ্য ফাঁস করা হয়েছে। আমাদের মিডিয়া পার্টনাররা সময়মতো এগুলো জনগণের সামনে তুলে ধরতে পারবে। করপোরেট সেনসরশিপ আরোপ করে কিংবা আইনের কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে আমাদের মুখ বন্ধ করা যাবে না। উইকিলিকস অনলাইনে আছে। সম্পূর্ণ ওয়েবসাইটটি ৫০০ এর বেশি স্থান থেকে অনুলিপি করা আছে। তাই সাইটটি বন্ধ হবার আশংকা মিথ্যা।’ উইকিলিকস সর্বশেষ যে গোপন তথ্য ফাঁস করেছে তাতে আছে ব্রিটেন-লিবিয়া কুটনৈতিক সম্পর্ক, লকারবি বোমারু মেগরাহি ইসু্য, সৌদি যুবরাজ সম্পর্কিত তথ্য, ইত্যাদি।

মঙ্গলবার লন্ডন পুলিশের বিবৃতিতে বলা হয়, অনৈতিক বলপ্রয়োগের একটি ধারা, যৌন নিপীড়নের দুইটি ধারা ও ধর্ষণের একটি ধারায় সুইডিশ কর্তৃপক্ষ অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে। এ অপরাধগুলোর সব কয়টি ২০১০ সালের আগস্টে ঘটেছে। একারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র দায়ী ঃ অস্ট্রেলিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী কেভিন রাড বলেছেন, উইকিলিকসে আড়াই লাখ কূটনৈতিক নথি ফাঁস হওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রই দায়ী, সংবাদমাধ্যমটির প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ নন। কেভিন রাড বলেন, এই তথ্য ফাঁসের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষাকেই প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। তিনি আরও বলেন, তথ্যপ্রবাহে তার সম্পর্কে যে সমালোচনা হয়েছে করা হয়েছে তা নিয়ে তিনি চিন্তিত নন। কেভিনের এ অবস্থানকে সমর্থন করেছেন প্রধানমন্ত্রী জুলিয়া গিলার্ড। কেভিনের মন্তব্যেরও প্রশংসা করে গিলার্ড বলেন, ‘তিনি অত্যন্ত চমৎকার কাজ করছেন।’

উইকিলিকসের স্রষ্টা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ লন্ডনে গ্রেফতার

বিশ্ব তথ্যযুদ্ধের নায়ক অ্যাসাঞ্জ

বিশ্ব তথ্যযুদ্ধের নায়ক অ্যাসাঞ্জ


অবশেষে প্রতিশোধ নিয়েই ছাড়ল যুক্তরাষ্ট্র ও তার ইউরোপীয় দোসররা। দুই সুইডিশ নারীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে গ্রেফতার করা হল বর্তমানে বিশ্বে তোলপাড় সৃষ্টি করা ওয়েবসাইট ‘উইকিলিকসের’ স্রষ্টা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে। বিবিসি, পিপিআই।
বেশ কিছুদিন ধরেই ব্রিটেনে বসবাসকারী অ্যাসাঞ্জ মঙ্গলবার তার আইনজীবীদের নিয়ে লন্ডনে মেট্রোপলিটন পুলিশ কার্যালয়ে আত্মসমর্পণ করেন। এর পরই তাকে সুইডেনে জারি হওয়া ওয়ারেন্টের আওতায় গ্রেফতার দেখায় পুলিশ। তাকে এরপর ওয়েস্ট মিনিস্টার ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে তোলা হয়। সেখানে অ্যাসাঞ্জের আইনজীবীরা তার জামিন আবেদন করলে তা প্রত্যাখ্যান করেন আদালত। আদালতে অ্যাসাঞ্জ জানান, তাকে জোর করে সুইডেনে পাঠানোর চেষ্টা করা হচ্ছে এবং এর বিরুদ্ধে লড়াই করে যাবেন তিনি। এদিকে আদালতে পাঁচ বিশিষ্ট ব্রিটিশ নাগরিক অ্যাসাঞ্জের জামিনদার হতে চান। এদের মধ্যে রয়েছে প্রখ্যাত সাংবাদিক জন পিলগার, সমাজকর্মী ও কিংবদন্তী ক্রিকেট তারকা ইমরান খানের সাবেক স্ত্রী জেমিমা। ৩৯ বছর বয়স্ড়্গ অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক অ্যাসাঞ্জ একজন পেশাদার কম্পিউটার হ্যাকার। পেন্টাগনসহ মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কম্পিউটার নেটওয়ার্ক হ্যাক করে বিশ্ব রাজনীতির লাখ লাখ গোপন তথ্য বের করে আনেন তিনি। এরপর উইকিলিকস নামক ওয়েবসাইটটি তৈরি করে ওইসব তথ্য বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরেন অ্যাসাঞ্জ। ফাঁস হয়ে যায় মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের কথিত ধারক ও বাহক যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের নানা গোপন কাহিনী। জনগণ আঁতকে উঠেন ইরাকসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র অত্যাচার-নির্যাতনের কথা শুনে। কিভাবে বিশ্বের বিভিন্ন রাষ্ট্র প্রধানের কুকীর্তির তথ্য ফাঁস করে দেয়ার ভয় দেখিয়ে তাদের নিজেদের ইশারায় নাচায় এ তথাকথিত বন্ধুপ্রতিম দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। একের পর এক নোংরা কাহিনী ফাঁস হয়ে যাওয়ায় আঁতে ঘা লাগে এই বিশ্ব পরাশক্তির। হুমকি-ধমকি দিয়ে উইকিলিকসকে ডোমেইন বরাদ্দ দেয়া প্রতিষ্ঠানকে বাধ্য করে তাদের ডোমেইন প্রত্যাহার করে নিতে। এতে সফলও হয় তারা। বন্ধ হয়ে যায় উইকিলিকস। কিন্তু তা মাত্র কয়েকঘণ্টার জন্য। এরপর ওয়েব ঠিকানা সামান্য পরিবর্তন করে আবারও সচল হয় উইকিলিকস। এরই মধ্যে ২০০৯-এ সুইডেনে দায়ের হওয়া ওই যৌন নির্যাতনের অভিযোগে অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি করা হয়। অ্যাসাঞ্জ অবশ্য বরাবরই নিজেকে নির্দোষ ও একে যুক্তরাষ্ট্রের সাজানো নাটক হিসেবেই দাবি করে আসছিল। ইরাক-ইরান যুদ্ধের সময়ের পরম বন্ধু সাদ্দামকে কাজ শেষ হয়ে যাওয়ার পর বিশ্বের জন্য হুমকি আখ্যা দিয়ে ফাঁসিতে ঝোলানো এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের বিরুদ্ধে গেরিলাযুদ্ধ পরিচালনার জন্য নিজেদের সৃষ্টি করা তালেবান ও আল কায়দাকে প্রয়োজন ফুরিয়ে যাওয়ার পর নির্মূল করতে উঠেপড়ে লাগা যুক্তরাষ্ট্রের অতীত ইতিহাস ঘাটলে অ্যাসাঞ্জের দাবিকে চিরায়ত সত্যের মতোই মনে হবে। তবে ঘটনা যাই হোক, সত্যের জয় হবে এমনই প্রত্যাশা সবার।

————————————————————————————————————————
বিশ্ব তথ্যযুদ্ধের নায়ক অ্যাসাঞ্জ গ্রেফতার
তথ্য ফাঁস নয়, অভিযোগ যৌন নিপীড়নের

বিশ্ব তথ্যযুদ্ধের নায়ক ও আলোড়ন সৃষ্টিকারী ওয়েবসাইট উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে গতকাল মঙ্গলবার ব্রিটেনে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে লাখ লাখ মার্কিন গোপন তথ্য ফাঁসের জন্য নয়, তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে তথাকথিত যৌন নিপীড়নের অভিযোগে। গতকালই তাকে আদালতে হাজির করার পর জামিনের আবেদন খারিজ করে দেয়া হয়। গ্রেফতারের প্রতিক্রিয়ায় উইকিলিকসের একজন মুখপাত্র বলেছেন, এতে আমাদের গোপন ফাইল প্রকাশ বন্ধ হবে না। খবর বিবিসি, সিএনএন, রয়টার্স ও অন্যান্য সূত্রের।
স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড জানিয়েছে, অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে ইউরোপীয় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি থাকায় লন্ডনের পুলিশ গতকাল সকালে তাকে গ্রেফতার করেছে। স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড আরো বলেছে, অ্যাসাঞ্জ নিজেই তার আটকের সময় নির্ধারণ করে দিয়েছিলেন। লন্ডন পুলিশের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘অনৈতিক বলপ্রয়োগের একটি ধারা, যৌন নিপীড়নের দু’টি ধারা ও ধর্ষণের একটি ধারায় সুইডিশ কর্তৃপক্ষ অনলাইন পত্রিকাটির সম্পাদক অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে। সব অপরাধ ২০১০ সালের আগস্টে ঘটেছে।’ এর আগে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে সুইডেন সরকার তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছিল।
আলজাজিরা জানায়, মিডিয়ার খবরে বলা হয়, আগস্টে সুইডেন সফরকালে অ্যাসাঞ্জ দুই নারীর সাথে শুয়েছিলেন। তাদের একজনের উদ্ধৃতি দিয়ে একটি সুইডিশ পত্রিকা একটি অদ্ভুত তথ্য জানায়। বলা হয়, সম্মতিক্রমেই সেক্স শুরু হলেও শেষটা নাকি হয় ‘বলপূর্বক’। তবে পেন্টাগনের মদদে এই অভিযোগ আনা হয়েছে বলে যে দাবি করা হচ্ছে, তা ওই নারী প্রত্যাখ্যান করেন। এএফপি জানায়, ওই দুই নারী ছিলেন উইকিলিকসের স্বেচ্ছাসেবী। অ্যাসাঞ্জ চলতি বছরের প্রথম দিকে বেশ কিছু দিন সুইডেনে ছিলেন।
অ্যাসাঞ্জ অভিযোগগুলো প্রত্যাখ্যান করে এটিকে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হিসেবে অভিহিত করেছেন। অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারকে তার আইনজীবী বর্ণনা করেছেন রাজনৈতিক চমক হিসেবে।
গ্রেফতারের কয়েক ঘণ্টা পর গতকালই তাকে আদালতে হাজির করা হয়। কালো গাড়িতে করে তাকে ওয়েস্টমিনস্টার ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে হাজির করার সময় রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়া হয়। গ্রেফতারের পর তাকে আলাদাভাবে রাখা হয়েছিল বলেও বিভিন্ন সূত্র জানায়।
সুইডিশ কৌঁসুলিরা অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে মামলা নিয়েও বেশ জটিলতায় পড়েছেন। প্রথমে তারা যে মামলাটি করেছিলেন, সেটা তারা প্রত্যাহার করেন। তারপর আবার তারা অভিযোগের তদন্ত শুরু করেন।
উইকিলিকসের মুখপাত্র হরাফনসন গতকাল রয়টার্সকে বলেন, অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতার সংবাদপত্রের স্বাধীনতার প্রতি হামলা। উইকিলিকস কাজ করে যাচ্ছে। আমরা আগের মতোই একইভাবে কাজ করে যাবো। জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের কোনো বিষয় নিয়ে আমাদের পরিকল্পনায় পরিবর্তন আসবে না।
এর আগে অ্যাসাঞ্জ নিজেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছিলেন, তাকে গ্রেফতার করা হলে তার সহকর্মীরা আরো ভয়াবহ তথ্য ফাঁস করে দেবে। তার কাছে গুয়ানতানামো বেসহ মারাত্মক সব তথ্য এবং আফগানিস্তানে মার্কিন বিমান হামলায় বেসামরিক লোকের প্রাণহানির ভিডিওচিত্রও আছে বলে তিনি দাবি করেন। উইকিলিকসের মুখপাত্র বলেন, উইকিলিকস লন্ডন ও অন্যান্য গোপন স্থান থেকে একটি গ্রুপের মাধ্যমে পরিচালিত হয়।
বিবিসি জানায়, গ্রেফতারের আগে অ্যাসাঞ্জের আইনজীবী মার্ক স্টিফেনস জানিয়েছিলেন, ‘পুলিশের কাছে তার স্বেচ্ছায় যাওয়ার বিষয়টি নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি।’ তিনি জানান, তার মক্কেল অভিযোগগুলোর ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে ও নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে চান। সোমবার রাতে ব্রিটিশ পুলিশ তাকে জানিয়েছিল, তারা সুইডিশ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে গ্রেফতারি পরোয়ানা পেয়েছে।
মার্ক স্টিফেনসের উদ্ধৃতি দিয়ে আলজাজিরা জানায়, উইকিলিকসের তথ্য ফাঁসে ক্ষুব্ধ হয়ে যুক্তরাষ্ট্রই এসব অভিযোগ উত্থাপনের জন্য চাপ দিয়ে আসছিল।
অ্যাসাঞ্জের লন্ডনভিত্তিক আইনজীবী জেনিফার রবিনসন বলেন, তার মক্কেল তাকে সুইডেনে ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ প্রতিরোধ করবেন। কারণ তিনি আশঙ্কা করছেন, তাকে যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দেয়া হতে পারে। তবে আইনি জটিলতা থাকায় তাকে শিগগিরই সুইডেনে হস্তান্তর করা সম্ভব হবে না বলে আইনজীবীরা দাবি করেছেন।
উল্লেখ্য, ইরাক, আফগান যুদ্ধ ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের লাখ লাখ গোপন নথি উইকিলিকসের ওয়েবসাইটে প্রকাশ হলে বিপাকে পড়ে যুক্তরাষ্ট্র। গত ৬ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের পাইপলাইন, যোগাযোগ ও পরিবহন, ক্যাবল লোকেশন, স্যাটেলাইট ও বিএই সিস্টেম প্লান্টসহ বেশ কিছু গোপন স্থাপনার তালিকা প্রকাশ করে উইকিলিকস। এতে ওই সব স্থাপনা এখন সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কার মুখে রয়েছে। এসব তথ্য ফাঁসের কারণে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনকে অন্য দেশগুলোর কাছে দুঃখও প্রকাশ করতে হয়। আরো অনেক বিশ্বনেতার তোপের মুখেও পড়েন জুলিয়ান।
৩৯ বছর বয়সী অস্ট্রেলীয় নাগরিক অ্যাসাঞ্জকে আশ্রয় না দিতে মিত্র দেশগুলোর প্রতি ওয়াশিংটন আহ্বান জানায় বলে সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়। সোমবার ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইলিয়াম হেগ যুক্তরাজ্যসহ স্পর্শকাতর অবস্থানের তথ্য ফাঁস করায় উইকিলিকসের সমালোচনা করে বলেছিলেন, তারা সন্ত্রাসীদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হতে পারেন। সাবেক মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী সারাহ পলিন অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে রক্তমাখা হাতে মার্কিনবিরোধী কার্যক্রম পরিচালনার অভিযোগ আনেন। অ্যাসাঞ্জের নিজ দেশ অস্ট্রেলিয়া সরকারের কাছ থেকেও তার সহায়তা পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী জুলিয়া গিলার্ড ইতোমধ্যে অ্যাসাঞ্জের সমালোচনা করেছেন। তিনি নথি প্রকাশকে বেআইনি কাজ হিসেবে অভিহিত করেছেন।
যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি ইন্টারনেট সার্ভিস যোগানদাতা প্রতিষ্ঠান উইকিলিকসকে সুবিধা দিতে অস্বীকৃতি জানানোর পর তারা সুইস সার্ভার নিতে বাধ্য হয়। সোমবার সুইস কর্তৃপক্ষ অ্যাকাউন্ট খোলার সময় অ্যাসাঞ্জ তার আবাসস্থল সম্পর্কে ভুল তথ্য দেয়ার অভিযোগে অ্যাসাঞ্জের একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়া হয়। এতে এক সপ্তাহে অ্যাসাঞ্জ এক লাখ ইউরো হারিয়েছেন। পোস্ট ফিনান্সের ওয়েবসাইটে দাবি করা হয়, জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের সাথে সব ধরনের ব্যবসায়িক সম্পর্ক ছিন্ন করা হয়েছে। এতে আরো বলা হয়েছে, অ্যাসাঞ্জ তার স্থায়ী নিবাস হিসেবে জেনেভা উল্লেখ করেছেন। কিন্তু তদন্তে তা মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। তার সুইজারল্যান্ডে বসবাসের কোনো প্রমাণ না থাকায় তিনি পোস্ট ফিন্যান্সের সাথে ভোক্তার সম্পর্ক রাখার শর্ত ভঙ্গ করেছেন। এ কারণে ব্যাংক তার অ্যাকাউন্ট জব্দ করার অধিকার রাখে।
উইকিলিকস এক বিবৃতিতে জানায়, গত সপ্তাহে ইন্টারনেটের মাধ্যমে পরিশোধের বড় প্রতিষ্ঠান পেপ্যাল জার্মান দাতব্য সংস্থা ওয়াও হল্যান্ড ফাউন্ডেশনের ৬০ হাজার ইউরো জব্দ করেছে। এ প্রতিষ্ঠান পরোক্ষভাবে উইকিলিকসকে সহায়তা করে থাকে।
সম্প্রতি ওবামার পদত্যাগ করা উচিত বলে মন্তব্য করে অ্যাসাঞ্জ বলেন, যদি দেখা যায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা জাতিসঙ্ঘ কর্মকর্তার পেছনে যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিকদের গোয়েন্দা লাগানোর প্রস্তাব অনুমোদন করেন তাহলে তার পদত্যাগ করা উচিত। তিনি বলেন, যিনি এমন কাজের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি যদি আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হন এবং যুক্তরাষ্ট্রকে একটি মর্যাদাশীল দেশ হিসেবে দেখতে চান তাহলে তাকে পদত্যাগ করা উচিত।
প্রকাশিত ওই নথিগুলোর মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য অংশ হলো, জাতিসঙ্ঘের কর্মকাণ্ড গোপনে মনিটরিং করা, সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনকে বলা হয়েছিল তিনি যেন জাতিসঙ্ঘ কর্মকর্তার টেলিফোন, ই-মেইল ও ক্রেডিট কার্ডসহ যাবতীয় বিষয়ে গোয়েন্দা লাগিয়ে রাখেন।
চমস্কির স্বাক্ষরঃ এএফপি জানায়, বিখ্যাত মার্কিন বুদ্ধিজীবী, ভাষাতাত্ত্বিক নোয়াম চমস্কি উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের পক্ষাবলম্বন করে তাকে সমর্থনের আহ্বান জানিয়ে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী জুলিয়ান গিলার্ডের কাছে পাঠানো একটি খোলা চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন। ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলোজির (এমআইটি) অধ্যাপক ও মার্কিন পররাষ্ট্রনীতির কড়া সমালোচক নোয়াম চমস্কি ওই চিঠিতে গিলার্ডকে তিনি এ বিষয়ে দৃঢ়তাপূর্ণ বিবৃতি দেয়ার জন্যও বলেন। অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন আইনজীবী, লেখক ও সাংবাদিক এই চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন।
চিঠিতে লেখা রয়েছে, অস্ট্রেলিয়ার বংশোদ্ভূত অ্যাসাঞ্জকে লক্ষ্য করে ক্রমবর্ধমান সহিংস বিতর্ক শুরু হয়েছে। স্বাক্ষরকারীরা বলেন, উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতার নিরাপত্তা নিয়ে গভীর উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। ভিক্টোরিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জে স্প্যারো ও মানবাধিকার আইনজীবী লিজি ও’শেরার লিখিত চিঠিটিতে গিলার্ডকে অবাধে রাজনৈতিক বক্তব্য দেয়ার অস্ট্রেলিয়ার প্রতিশ্রুতির কথা স্মরণ করিয়ে দেয়া হয়।

————————————————————————————————————————
উইকিলিকসে বাংলাদেশ বিষয়ে ২১৮২ নথি

কালের কণ্ঠ, Sun 5 Dec 2010
ওয়েবভিত্তিক সংবাদমাধ্যম উইকিলিকস যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতিসহ গোটা বিশ্বের যে আড়াই লাখ নথি ফাঁস করার মিশনে নেমেছে, তার মধ্যে দুই হাজার ১৮২টি বাংলাদেশবিষয়ক। গতকাল শনিবার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টা পর্যন্ত উইকিলিকস তার ওয়েবসাইটে ৬৮৩টি নথি প্রকাশ করেছে। বাকিগুলো গুরুত্ব বুঝে পর্যায়ক্রমে আগামী কয়েক মাসে প্রকাশ করা হবে বলে উইকিলিকসের ওয়েবসাইটে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে আরো বলা হয়, ১৯৬৬ সাল থেকে এ বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর ও বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে দেশটির ২৭৪টি দূতাবাসের মধ্যে আদান-প্রদান হওয়া নথি ওয়েবসাইটটি প্রকাশ করতে যাচ্ছে। তবে উল্লেখযোগ্য নথিগুলোর উৎস দেখানোর জন্য ওয়েবসাইটে প্রকাশিত লেখচিত্রে (গ্রাফ) ৪৫টি দূতাবাস স্থান পেয়েছে। সেগুলোর মধ্যে ৩৭ নম্বর অবস্থানে আছে ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস।

উইকিলিকস সূত্রে জানা গেছে, প্রকাশিত ও প্রকাশিতব্য নথির মধ্যে আট হাজার ৩২০টি চীনবিষয়ক, সাত হাজার ৯৫টি আফগানিস্তানবিষয়ক, পাঁচ হাজার ৮৭টি ভারতবিষয়ক এবং চার হাজার ৭৭৫টি পাকিস্তানবিষয়ক। গতকাল বিকেল পর্যন্ত প্রকাশিত নথির চারটিতে বাংলাদেশের নাম এসেছে। এগুলোর মধ্যে দুটি প্যারিসের যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস থেকে এবং বাকি দুটি ইসলামাবাদের দূতাবাস ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দপ্তর থেকে পাঠানো। ইসলামাবাদের যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস থেকে পাঠানো নথিতে বাংলাদেশে লস্কর-ই-তৈয়বার আস্তানা থাকতে পারে বলে ধারণা দেওয়া হয়েছে। প্যারিসের দূতাবাস থেকে পাঠানো নথিতে ২০০৬ সালের সন্ত্রাসবিরোধী প্রতিবেদনের বর্ণনা রয়েছে। এতে বলা হয়, আলজেরিয়া, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও মরক্কো থেকে আসা কমপক্ষে ২০ জন ইমামকে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বা এতে মদদ দেওয়ার অভিযোগে ২০০৬ সালে ফ্রান্স থেকে বহিষ্কারের আদেশ দেওয়া হয়েছে। প্যারিসে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের নথিতে বাংলাদেশসহ ৯টি দেশে ডিএনএ পরীক্ষা শুরুর পরিকল্পনার কথা জানানো হয়েছে। এ ছাড়া আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দপ্তর থেকে পাঠানো নথিতে বাংলাদেশসহ বেশ কয়েকটি দেশের ব্যাপারে জাতিসংঘ-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে তথ্য চাওয়া হয়েছে।

এ পর্যন্ত ফাঁস হওয়া এমন সাতটি নথি রয়েছে যেগুলোর অনুলিপি ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসে এসেছে। এগুলো হলো শ্রীলঙ্কায় যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ বিষয়ে ‘শ্রীলঙ্কা ওয়ার ক্রাইম অ্যাকাউন্টিবিলিটি : দ্য তামিল’, সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন ইস্যুতে পাকিস্তান সরকারকে চাপে রাখার বিষয়ে ‘টেরর ফিন্যান্স : এমবাসি প্রেসেস গভর্নমেন্ট অব পাকিস্তান অন ইউএন ১২৬৭’, ইরাক থেকে সেনা প্রত্যাহার না করতে আমেরিকান সিনেটর জন ম্যাককেইনের কাছে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল পারভেজ মোশাররফের অনুরোধ বিষয়ে ‘মোশাররফ টেলস ম্যাককেইন : ডোন্ট পুল আউট ফ্রম ইরাক’, সন্ত্রাসবিরোধী লড়াই ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের জেনারেল স্কুমেকার এবং দেশটির রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ও সেনাপ্রধান জেনারেল পারভেজ মোশাররফের বৈঠক বিষয়ে ‘প্রেসিডেন্ট মোশাররফ ব্রিফস জেনারেল স্কুমেকার অ্যান্ড’, আফগানিস্তানের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক নিয়ে দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়াবিষয়ক যুক্তরাষ্ট্রের আন্ডার সেক্রেটারি রিচার্ড বাউচারের সঙ্গে প্রেসিডেন্ট জেনারেল পারভেজ মোশাররফের বৈঠক প্রসঙ্গে ‘মোশাররফ টেলস বাউচার অ্যাবাউট পাকিস্তানস প্ল্যান ফর’, যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি সভার স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির সঙ্গে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল পারভেজ মোশাররফের বৈঠক বিষয়ে ‘প্রেসিডেন্ট মোশাররফ মিটস স্পিকার পেলোসি’ এবং ভারত, নেপাল ও বাংলাদেশে লস্কর-ই-তৈয়বার আস্তানা থাকতে পারে বলে ধারণা পোষণ বিষয়ে ‘প্রিজার্ভিং ইনফরমেশন শেয়ারিং’

—————————————————————————————————-
নিজেদের রক্ষায় পদক্ষেপ নিয়েছে উইকিলিকস কর্তৃপক্ষ

প্রথম আলো, Sun 5 Dec 2010
উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ বলেছেন, তাঁর জীবন ঝুঁকির মুখে রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র সরকারের গোপন বার্তা প্রকাশের পর থেকে তাঁকে হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। অ্যাসাঞ্জ বলেন, তিনি ও তাঁর সহকর্মীরা যেকোনো হুমকি থেকে নিজেদের বাঁচাতে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়েছেন।
গত শুক্রবার অজ্ঞাত স্থান থেকে অনলাইনে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ এসব কথা বলেন। তাঁর এ সাক্ষাৎকার ব্রিটেনের প্রভাবশালী দৈনিক গার্ডিয়ান-এর ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

এদিকে অ্যাসাঞ্জ নতুন করে আরও তথ্য প্রকাশের ঘোষণা দিয়েছেন। গার্ডিয়ানকে তিনি বলেছেন, ভিনগ্রহের প্রাণী (এলিয়েন) ও অজ্ঞাত উড়ন্ত বস্তু (ইউএফও) সম্পর্কিত যুক্তরাষ্ট্রের গোপন তথ্যও তিনি প্রকাশ করবেন। তিনি তরুণ মার্কিন সেনা ব্রাডলি ম্যানিংকে �অপ্রতিদ্বন্দ্বী নায়ক� বলে আখ্যায়িত করেছেন। ধারণা করা হচ্ছে, মার্কিন সেনাবাহিনীর গোয়েন্দা শাখার এই সেনাই সে দেশের গোপন দলিলপত্র উইকিলিকসের কাছে পাচার করেছেন। পুলিশ চলতি বছরের মে মাসে ম্যানিংকে গ্রেপ্তার করে।

অ্যাসাঞ্জ বলেছেন, তাঁকে কেউ হুমকি দিলে তা হত্যার প্ররোচনা হিসেবে বিবেচিত হবে। তিনি বলেন, �আমাদের জীবনের হুমকির বিষয়টি সবারই জানা। পরাশক্তির সঙ্গে পেরে উঠতে এ বিষয়ে আমরা যথাযথ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছি।� নিজের নিরাপত্তাব্যবস্থা এরই মধ্যে বাড়ানো হয়েছে বলে তিনি জানান।
অ্যাসাঞ্জের আইনজীবী বলেছেন, যৌন নিপীড়নের অভিযোগে তাঁর মক্কেলকে সুইডেনের কাছে হস্তান্তরের সব প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে তিনি লড়বেন। তিনি আরও বলেন, তাঁর বিশ্বাস, বিদেশি শক্তিগুলো সুইডেনকে এ ব্যাপারে প্রভাবিত করছে।
এদিকে সুইডেন কর্তৃপক্ষ বলছে, তারা এরই মধ্যে ব্রিটেনের কাছে অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে জারি করা গ্রেপ্তারি পরোয়ানার কাগজপত্র হস্তান্তর করেছে। ১০ দিনের মধ্যে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের জ্যেষ্ঠ রাজনীতিবিদ মাইক হুকাবি বলেছেন, যে ব্যক্তিই গোপন মার্কিন দলিল প্রকাশ করুক না কেন, তার বিচার করতে হবে।
আফগানিস্তান ও ইরাক যুদ্ধ নিয়ে মার্কিন সেনাবাহিনীর গোপন দলিল প্রকাশ করে উইকিলিকস বিশ্বব্যাপী আলোচনার ঝড় তোলে। সর্বশেষ তারা বিপুল পরিমাণ গোপন মার্কিন কূটনৈতিক বার্তা প্রকাশ করে। এ নিয়ে উইকিলিকস যুক্তরাষ্ট্রের তোপের মুখে পড়ে।

এর পর থেকেই তাঁকে হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অ্যাসাঞ্জ দাবি করছেন। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নিজেদের জীবনের নিরাপত্তা নিজেরাই নিশ্চিত করতে পদক্ষেপ নেওয়ার ঘোষণা দিল ওয়েবসাইট কর্তৃপক্ষ।
গত বৃহস্পতিবার দি ইনডিপেন্ডেন্ট-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অ্যাসাঞ্জ সম্ভবত দক্ষিণ ইংল্যান্ডের কোনো এক জায়গায় অবস্থান করছেন। ব্রিটেনের পুলিশ তাঁর অবস্থান সম্পর্কে অবগত আছে।

—————————————————————————————————-

আত্মপক্ষঃ রহস্যজনক প্রতিষ্ঠান উইকিলিকস

এবনে গোলাম সামাদ

সম্প্রতি উইকিলিকস (WikiLeaks) ওয়েবসাইট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অনেক গোপন তথ্য ফাঁস করে দিয়েছে। এসব গোপন তথ্য উইকিলিকস কিভাবে সংগ্রহ করতে পেরেছে সেটা বিস্ময়কর। শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নয়, আরো অনেক রাষ্ট্রের গোপন তথ্য ফাঁস করছে উইকিলিকস। তাই উইকিলিকসের ফাঁস করা তথ্য যে বানোয়াট, তা কোনো রাষ্ট্রই বলছে না। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চেয়েছিল পাকিস্তানের পরমাণু চুল্লি থেকে সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম সরিয়ে নিতে। কিন্তু পাকিস্তান সরকার এটা হতে দেয়নি। উইকিলিকস এই তথ্য ফাঁস করেছে পাকিস্তানের একজন সরকারি মুখপত্র বলেছেন, উইকিলিকসের দেয়া তথ্য যথার্থ। উইকিলিকসের ফাঁস করা সব তথ্যই মনে হচ্ছে বস্তুনিষ্ঠ আর এর আছে দালিলিক ভিত্তি। কী করে একটি প্রতিষ্ঠান এত দলিল সংগ্রহ করতে পারল, সেটা অনেকের কাছেই মনে হচ্ছে বিস্ময়কর।

উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জি (Julian Assange) একজন অস্ট্রেলীয় নাগরিক। তার জন্ম সে দেশে। অ্যাসাঞ্জি বলেছেন, তার সাথে সর্বক্ষণ কাজ করে মাত্র পাঁচজন। আর এ ছাড়া যারা কাজ করে তারা কেউই সার্বক্ষণিক নয়। প্রায় ৮০০ লোক পৃথিবীর নানা দেশ থেকে সহযোগিতা করছে অ্যাসাঞ্জিকে। উইকিলিকস নাম দুটো শব্দকে একত্রে মিলিয়ে তৈরি। উইকি (Wiki)শব্দটা হাওয়াই দ্বীপের ভাষা থেকে পাওয়া। শব্দগত অর্থ হলো দ্রুত। আর খপথর শব্দটা ইংরেজি। এর একটা মানে হলো ফাঁস করা। শব্দগত অর্থে তাই উইকিলিকস বলতে বোঝাচ্ছে ‘দ্রুত ফাঁস করা’। অ্যাসাঞ্জি ঘোষণা করেছেন, তাদের প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য হচ্ছে প্রধানত বিভিন্ন দেশের সরকারের গোপন তথ্য ফাঁস করা। যাতে বিভিন্ন দেশের সরকারকে সেসব দেশের মানুষের কাছে হতে হয় জবাবদিহিতার মুখোমুখি। উইকিলিকস বস্তুনিষ্ঠভাবে বিভিন্ন দেশের সরকারের স্বরূপ করে চলবে উন্মোচন।

উইকিলিস প্রতিষ্ঠানের মালিক অ্যাসাঞ্জি নন। এর মালিক হলো সানশাইন প্রেস (The Sunshine Press)। উইকিলিকস শুরু হয়েছে ২০০৬ সালে। কিন্তু মাত্র এই কয় বছরে তা হয়ে উঠেছে বিশেষ আলোচ্য ও তথ্যের উৎস। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের New York Times, বিলাতের The Guardian, জার্মানির Der Spiege , এবং ফ্রান্সের Le monde Gog এসব পত্রিকা খুবই নামকরা। আর হালকা ধরনের নয়। এসব পত্রিকায় ছাপানো হচ্ছে উইকিলিসের ফাঁস করা তথ্য। আর বিভিন্ন দেশের পাঠক সমাজের কাছে তা গৃহীত হচ্ছে নির্ভরযোগ্য হিসেবে। উইকিলিকস সম্প্রতি ফাঁস করেছে, সৌদি আরবের বাদশা আবদুল্লাহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে অনুরোধ করেন, সে যেন ইরানের পরমাণু স্থাপনায় আঘাত করে। বাদশা আবদুল্লাহ চেয়েছেন ইরানের পরমাণু স্থাপনার ধ্বংস। উইকিলিকসের দেয়া এই তথ্য ইরান ও সৌদি আরবের মধ্যে নিশ্চয় সম্পর্কের আরো অবনতি ঘটাবে। খবরটি এমনই এক সময় উইকিলিকসের পক্ষ থেকে ফাঁস করা হলো, যখন বাইরে থেকে দেখে মনে হচ্ছিল ইরান ও সৌদি আরব তাদের মধ্যকার সম্পর্ক উন্নয়নে ইচ্ছুক।

উইকিলিকস দাবি করেছে, তার হাতে আছে আফগানিস্তানের ওপর ৭৬ হাজার ৯০০ দলিল, যা সে প্রকাশ করবে আফগানিস্তান সম্পর্কে মার্কিন নীতিকে উন্মোচিত করার জন্য। উইকিলিকস বলেছে, চীনের লক্ষ্য হচ্ছে দুই কোরিয়াকে এক করে একটি রাষ্ট্রে পরিণত করা এবং সেখান থেকে মার্কিন সৈন্যের অপসারণ। উইকিলিকস সেটা বলেছে, চীনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার গোপন বক্তব্য উদ্ধৃৃত করে। প্রশ্ন উঠেছে উইকিলিকস এত সব গোপন তথ্য কী করে সংগ্রহ করতে পারছে? এসব তথ্য সংগ্রহ করতে নিশ্চয় তার ব্যয় করতে হচ্ছে বিপুল পরিমাণ অর্থ। তার এই অর্থের উৎস জানা যাচ্ছে না। সম্প্রতি খবরে প্রকাশ, তথ্য প্রচারের জন্য মার্কিন গোয়েন্দা তথ্য বিশ্লেষক ব্রাডলি ম্যানিংকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি গোপন তথ্য দিয়েছেন অ্যাসাঞ্জিকে। অ্যাসাঞ্জি বলেছেন, ব্রাডলি ম্যানিংয়ের মামলার সব খরচ তিনি বহন করবেন উইকিলিকসের পক্ষ থেকে। এই মামলায় প্রচুর অর্থ লাগবে। অ্যাসাঞ্জি এই অর্থ কোথা থেকে পাবেন তা নিয়ে দেখা দিচ্ছে প্রশ্ন। অর্থাৎ উইকিলিসককে যে ধরনের প্রতিষ্ঠান বলা হচ্ছে সে তা নয়। এর পেছনে আছে একটা শক্তিমান চক্র। যারা সাহায্য করে চলেছে অ্যাসাঞ্জিকে।

উইকিলিকসের কোনো সদর দফতর নেই। উইকিলিকসের কাজ চলেছিল সুইডেনকে নির্ভর করে। কিন্তু সুইডেনে অ্যাসাঞ্জির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে যৌন হয়রানির। অ্যাসাঞ্জির বয়স ৩৯। তার বিরুদ্ধে হুলিয়া জারি করেছে আন্তর্জাতিক পুলিশ সংস্থা ইন্টারপোল। অনেকে বলছেন, অ্যাসাঞ্জিকে বিপাকে ফেলার জন্যই করা হয়েছে এই মামলা। প্রমাণ করার চেষ্টা হচ্ছে, তিনি একজন যৌন বিকারগ্রস্ত মানুষ। শোনা যাচ্ছে অ্যাসাঞ্জি এখন আছেন বিলাতে, কিন্তু বিলাতের পুলিশ নাকি তাকে ধরতে আগ্রহী নয়। তাই তিনি এখনো ধরা পড়েননি। বিলাতের পুলিশ কেন তাকে ধরতে আগ্রহ দেখাচ্ছে না, সেটা স্পষ্ট নয়। অ্যাসাঞ্জিকে মনে হয় রক্ষা করার চেষ্টা হচ্ছে কোনো বিশেষ মহল থেকে। উইকিলিকসের জন্ম বেশি দিন হয়নি। ২০০৬ সাল থেকে শুরু হয়েছে এর কর্মকা । কিন্তু ইতোমধ্যেই তা প্রতিষ্ঠা পেতে পেরেছে একটা শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান হিসেবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলছে, সে দেশে অ্যাসাঞ্জির বিরুদ্ধে মামলা করা হবে গোপন তথ্য চুরি করার অভিযোগে। কিন্তু অ্যাসাঞ্জি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে উপস্থিত থেকে এই কাজ করনেনি। তাই মার্কিন আদালতে এই মামলার বৈধতা নিয়ে থাকবে প্রশ্ন। অন্য দিকে ব্রিটেনে তার বিপক্ষে কোনো মামলা করা যাবে না, কারণ তিনি ব্রিটেন থেকে কোনো তথ্য চুরি করেননি। এ ছাড়া ব্রিটেনের আইন বলে (বিল অব রাইটস-১৬৮৯ খ্রিঃ) মানুষের মত প্রকাশের স্বাধীনতা আছে। সংবাদপত্রে বিলাতে কোনো খবর ছাপাতে বাধা নেই। বিলাতের আইনে তাই অ্যাসাঞ্জিকে বলা যাচ্ছে না কোনোভাবেই অপরাধী।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও আইন আছে খবর জানার অধিকারের। অ্যাসাঞ্জির বিরুদ্ধে মামলা উঠলে নিশ্চয় এই অধিকার নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আছে গোপন তথ্য সংরক্ষণের কড়াকড়ি। কিন্তু তথাপি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অনেক গোপন তথ্য ফাঁস হতে পারছে। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী (সচিব) বলেছেন, অ্যাসাঞ্জি যা করছেন তা হলো তথ্য সন্ত্রাস। আর এই তথ্য সন্ত্রাসের ফলে কেবল যে মার্কিন স্বার্থই বিপন্নই হচ্ছে তা নয়, তার মিত্রদেরও পড়তে হচ্ছে বিপাকে। ফলে বিশ্বশান্তি বিপন্ন হতে পারে। বিপন্ন হতে পারে আন্তর্জাতিক অর্থব্যবস্থা। অ্যাসাঞ্জি ঘোষণা করেছেন, উইকিলিকসের হাতে আছে এমন দলিলপত্র যা প্রকাশিত হলে মানুষ জানতে পারবে মার্কিন ব্যাংক ব্যবস্থার দুর্বলতার কথা। তিনি এসব দলিল প্রকাশের উদ্যোগ নিতে যাচ্ছেন। অ্যাসাঞ্জি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য এখনো পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি কী করে এত দূর ক্ষমতাধর একজন ব্যক্তি হয়ে উঠতে পারলেন, সেটা থাকছে অজ্ঞাত। সে যা হোক, উইকিলিকস হয়ে উঠেছে সারা বিশ্বের পত্রপত্রিকার বিশেষ খবর। উইকিলিকস যদি বিভিন্ন দেশের খবর ফাঁস করে চলতে পারে, তবে নিশ্চিতভাবেই তা প্রভাবিত করতে সক্ষম হবে বিশ্ব রাজনীতির ধারাকে।

লেখকঃ প্রবীণ শিক্ষাবিদ ও কলামিস্ট

আমাদের সময়, আলোচনা, ইত্তেফাক, কালের কণ্ঠ, জনকন্ঠ, ডেসটিনি, দিগন্ত, দিনের শেষে, নয়া দিগন্ত, প্রথম আলো, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ভোরের কাগজ, মানবজমিন, মুক্তমঞ্চ, যায় যায় দিন, যায়যায়দিন, যুগান্তর, সংগ্রাম, সংবাদ,চ্যানেল আই, বাঙ্গালী, বাংলা ভিশন, এনটিভি,এটিএন বাংলা, আরটিভি, দেশ টিভি, বৈশাখী টিভি, একুশে টিভি, প্রবাস, প্রবাসী, ঠিকানা, জাহান হাসান, বাংলা, বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস, লিটল বাংলাদেশ, ইউএসএ, আমেরিকা, অর্থনীতি, প্রেসিডেন্ট ওবামা,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র,অর্থ, বাণিজ্য, শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়া, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামাত, রাজাকার, আল বদর, সুখ, টেলিভিশন, বসন্ত উৎসব, Jahan, Hassan, jahanhassan, Ekush, bangla, desh, Share, Market, nrb, non resident, los angeles, new york, ekush tube, ekush.info

সারাবিশ্বের পত্রপত্রিকা ও নিউজ এজেন্সিগুলো উইকিলিকসের ফাঁস করা তারবার্তাগুলো প্রকাশ করছে। জনগণের স্বার্থেই এসব প্রকাশ করা হচ্ছে। বেশির ভাগ পশ্চিমা নেতাই উইকিলিকসের তথ্য ফাঁস ঘটনার নিন্দা করলেও, এমনকি এগুলো মানুষের জীবন বিপন্ন করবে বলে ঘোষণা দিলেও নিজ নিজ মিডিয়াকে এসব তারবার্তা প্রকাশে বাধা দিচ্ছেন না।


উইকিলিকস মার্কিন পররাষ্ট্রনীতিতে পরিবর্তন আনবে?

wikileaks

wikileaks


ও সা মা আ ল শ রী ফ
“Could become as important a journalistic tool as the Freedom of Information Act.” – Time Magazine…<<উইকিলিকসের ওয়েবসাইট

এ সপ্তাহে উইকিলিকসের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের গুরুত্বপূর্ণ লাখ লাখ তারবার্তা ফাঁস হওয়ার ঘটনাটি বিশ্বজুড়ে হৈচৈ ফেলে দিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের নেতারা আন্তর্জাতিক ঘটনাপ্রবাহ, বিশ্ব নেতৃবৃন্দ, অন্য দেশের সঙ্গে তাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ইত্যাদি বিষয়কে কিভাবে দেখেন, তা এসব তারবার্তার মাধ্যমে গোটা বিশ্বের কাছে উন্মোচিত হয়ে গেল। কূটনীতির দুনিয়া সম্পর্কে এতদিন যে সাধারণ ধারণা ছিল, তা উইকিলিকস কেলেংকারির ধাক্কায় বদলে যাবে। ১৯৬৬ থেকে ২০১০- প্রায় সাড়ে চার দশকে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের সঙ্গে বিশ্বের ২৭৪টি মার্কিন দূতাবাস, কনসুলেট অফিস ও কূটনৈতিক মিশনের মধ্যে যেসব তারবার্তা চালাচালি হয়েছে, তারই বিশাল ভাণ্ডার তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছে উইকিলিকস। এত বড় তথ্য ফাঁসের ঘটনা এর আগে ঘটেনি। ক’দিন আগে ইরাক যুদ্ধের কিছু দলিল ফাঁস করেছিল উইকিলিকস। এ নিয়েও হৈচৈ হয়েছে। তবে উইকিলিকস কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে, ওদের কাছে যত তথ্য আছে তার আকার ইরাক যুদ্ধের দলিলের চেয়ে সাত গুণ বেশি। এসব তারবার্তা নিঃসন্দেহে অস্বস্তিতে ফেলেছে যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে। সেই সঙ্গে তার মিত্রদের জন্যও বিষয়টি বিব্রতকর। কিন্তু এর চেয়েও বড় কথা হল, এ তথ্য ফাঁসের ঘটনা কূটনীতি জগতেও পরিবর্তন আনবে। বিভিন্ন দেশের সরকার বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কিভাবে কূটনৈতিক তৎপরতা চালাবে, সে বিষয়টি নিয়ে নতুন করে ভাববে।

বিভিন্ন দেশের মধ্যে কূটনৈতিক কার্যক্রমের শুরু কয়েকশ’ বছর আগে। প্রতিটি দেশের পররাষ্ট্রনীতির অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে এর মাধ্যমে শুধু বন্ধু নয়, শত্রুদের সঙ্গেও খোলাখুলি আলোচনা করে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেয়া হয়। তবে বিভিন্ন দেশের পারস্পরিক আলোচনা, বোঝাপড়া বা তথ্য আদান-প্রদানের মতো বিষয়গুলো জনগণের কাছ থেকে আড়াল রাখাই হল নিয়ম। সরকারগুলো জনগণকে কূটনীতির টেকনিক্যাল টার্ম প্রয়োগ করে নিজেদের মতো করে সবকিছু বোঝায়। অনেক ক্ষেত্রেই এসব বক্তব্যের সত্যতা খুবই কম।

এই যে কূটনীতির জগৎ নিয়ে এত লুকোচুরি, কূটনৈতিক কার্যক্রমের ওপর ভারি একটা পর্দা ঝুলিয়ে একে চিরতরে জনগণের আড়ালে রাখার চেষ্টা- উইকিলিকসের তথ্য ফাঁসের ঘটনায় এ জগৎটাই উন্মুক্ত হয়ে গেল। গত দুই দশকের ডিজিটাল বিপ্লবের ফলেই এটা সম্্‌ভব হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি, বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্য নীতির ওপর এ ঘটনার প্রভাব দীর্ঘস্থায়ী হবে। যুক্তরাষ্ট্রের বুদ্ধিবৃত্তিক ও আইনগত কাঠামোর মধ্যেও দীর্ঘদিন ধরে এর ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া এবং এ নিয়ে বিতর্ক চলবে। আর এসবের ফলে যুক্তরাষ্ট্রে এ ধরনের তথ্য ফাঁসের ঘটনা আরও ঘটতে থাকবে।

তবে এ মুহূর্তে যে ক্ষতিটা হয়ে গেছে তা সারানো জরুরি। তাই যুক্তরাষ্ট্রকে বন্ধু ও মিত্র রাষ্ট্রগুলোর কাছে দৌড়াতে হবে। বিশেষ করে উইকিলিকসে প্রকাশিত কিছু তারবার্তায় যেসব বন্ধুরাষ্ট্রের নেতা সম্পর্কে মার্কিন নেতারা অযাচিত মন্তব্য করেছেন, তাদের সঙ্গে সম্পর্ক ঠিক রাখতে হবে। আবার তাদের প্রতি আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর আস্থা ফিরিয়ে আনতেও কাজ করতে হবে যুক্তরাষ্ট্রকে। কারণ অনেক দেশ বা সংস্থা সম্পর্কে মার্কিন নেতারা বিব্রতকর মন্তব্য করেছেন, এমনকি কোথাও কোথাও যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে বিপজ্জনক কিছু নীতি গ্রহণের কথাও প্রকাশ পেয়েছে।

এ পরিস্থিতিতে বিভিন্ন দেশের মার্কিন কূটনীতিকরা গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের সম্পর্কে তাদের মন্তব্য ও তাদের চরিত্রহননের মতো বিষয়গুলো নিয়ে বিব্রত হবেন। আবার কেউ কেউ বুঝে নেবেন যে বিশেষ কিছু এলাকায় যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থের জায়গায় তাদের সমঝোতা করতে হবে। বিশেষ করে পাকিস্তান, উপসাগরীয় এলাকা এবং ইয়েমেনে যুক্তরাষ্ট্রের কূটনৈতিক তৎপরতায় কিছু ছাড় দিতে হবে।

এখানে বিপরীত একটা দিকও আছে। শুধু কি যুক্তরাষ্ট্রই এভাবে অন্যান্য দেশে কূটনৈতিক তৎপরতা চালায়? উইকিলিকস যদি রাশিয়া ও চীনের কূটনৈতিক তারবার্তাগুলো পেত, আর সেগুলো প্রকাশ করত; তবে একইভাবে সেগুলো পড়েও বিশ্ববাসী চমকে উঠত। একই ধরনের ঘটনা সেসব দেশের ক্ষেত্রেও ঘটে, তবে যুক্তরাষ্ট্রের মতো এত বড় আকারে হয়তো নয়।

উইকিলিকসের তথ্য ফাঁসের ঘটনাকে এরই মধ্যে ‘ক্যাবলগেট’ নাম দেয়া হয়েছে। সত্তরের দশকে নিক্সন সরকারের আমলের সাড়া জাগানো ‘ওয়াটারগেট’ কেলেংকারির মতো এই নাম। এ ‘ক্যাবলগেট’ কেলেংকারি যুক্তরাষ্ট্রেই শুধু সম্্‌ভব হয়েছে, অন্য দেশে এটা সম্্‌ভব ছিল না। কারণ উইকিলিকস মার্কিন পররাষ্ট্রনীতির কিছু ব্যর্থ সিস্টেমের সুযোগ নিয়েছে। এ দুর্বলতার পেছনে ৯/১১ বা সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে আমেরিকার যুদ্ধের মতো বিষয়গুলো থাকতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয়ের খুব অভাব। তাছাড়া তাদের মধ্যে তথ্যের আদান-প্রদানও কম। এসব কারণে যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূমির ওপর সব ধরনের সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ঠেকাতে দেশটি ব্যর্থ হচ্ছে।

তবে এ ঘটনা থেকে ভালো কিছুও তো পাওয়া যেতে পারে, নয় কি? দেখা গেছে সারাবিশ্বের পত্রপত্রিকা ও নিউজ এজেন্সিগুলো উইকিলিকসের ফাঁস করা তারবার্তাগুলো প্রকাশ করছে। তাদের যুক্তি হল, জনগণের স্বার্থেই এসব প্রকাশ করা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র কিভাবে তাদের পররাষ্ট্রনীতি তৈরি করে, বিশেষ করে উত্তর কোরিয়া, ইরান, চীন ইত্যাদি স্পর্শকাতর ইসুøতে মার্কিন নেতা ও কূটনীতিকদের কাজকর্মের কথা জানার অধিকার বিশ্ববাসীর রয়েছে। তাই বেশির ভাগ পশ্চিমা নেতাই উইকিলিকসের তথ্য ফাঁস ঘটনার নিন্দা করলেও, এমনকি এগুলো মানুষের জীবন বিপন্ন করবে বলে ঘোষণা দিলেও নিজ নিজ মিডিয়াকে এসব তারবার্তা প্রকাশে বাধা দিচ্ছেন না।

তাই সম্্‌ভবত এসব ঘটনা থেকে ভালো কিছুও বেরিয়ে আসবে। যুক্তরাষ্ট্র একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র, এটা ঠিক। কিন্তু দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের পর থেকে দেশটির পররাষ্ট্রনীতি পুরোপুরি আগ্রাসী, কখনও কখনও অনৈতিক। উইকিলিকস বিভিন্ন দেশে যুক্তরাষ্ট্রের বিতর্কিত ভূমিকাগুলোর ওপর সামান্য আলো ফেলতে পেরেছে মাত্র। ওরা আরও তথ্য প্রকাশ করলে আরও অনেক অপ্রীতিকর সত্য বেরিয়ে আসবে। মার্কিন নেতারা বিশ্বজুড়ে নানা আলোচিত ঘটনায় কিভাবে কতটুকু জড়িত ছিলেন তা জানা যাবে।

এর মানে আবার এটা নয় যে, কূটনীতিকরা রাতারাতি বদলে যাবেন। তবে মার্কিন কূটনীতির ধারাটা বদলে যেতে পারে। ডিজিটাল তথ্যপ্রবাহের এ যুগে কোন কিছুই জনগণের চোখের আড়ালে রাখা সম্্‌ভব নয়। হয়তো আরও দৃঢ় নেটওয়ার্ক দিয়ে তথ্য ফাঁসের ঘটনা বন্ধ করার চেষ্টা হবে। আইনি কাঠামোগুলোও জোরদার করা হবে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র যেভাবে এখন তাদের পররাষ্ট্রনীতি চালাচ্ছে- সেটা কি বদলে যাবে?

আরব নিউজ পত্রিকা থেকে ভাষান্তরঃ ফারহানা মিলি

ওসামা আল শরীফঃ জর্ডানের প্রবীণ সাংবাদিক ও রাজনৈতিক ভাষ্যকার
Prosecuting WikiLeaks For Publishing Documents Would Raise Serious Constitutional Concerns, Says ACLU

আমাদের সময়, আলোচনা, ইত্তেফাক, কালের কণ্ঠ, জনকন্ঠ, ডেসটিনি, দিগন্ত, দিনের শেষে, নয়া দিগন্ত, প্রথম আলো, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ভোরের কাগজ, মানবজমিন, মুক্তমঞ্চ, যায় যায় দিন, যায়যায়দিন, যুগান্তর, সংগ্রাম, সংবাদ,চ্যানেল আই, বাঙ্গালী, বাংলা ভিশন, এনটিভি,এটিএন বাংলা, আরটিভি, দেশ টিভি, বৈশাখী টিভি, একুশে টিভি, প্রবাস, প্রবাসী, ঠিকানা, জাহান হাসান, বাংলা, বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস, লিটল বাংলাদেশ, ইউএসএ, আমেরিকা, অর্থনীতি, প্রেসিডেন্ট ওবামা,মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র,অর্থ, বাণিজ্য, শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়া, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামাত, রাজাকার, আল বদর, সুখ, টেলিভিশন, বসন্ত উৎসব, Jahan, Hassan, jahanhassan, Ekush, bangla, desh, Share, Market, nrb, non resident, los angeles, new york, ekush tube, ekush.info,

তারা কোথায় যায়? দরকার স্বপ্ন দেখা ও দেখানোর মতো বাতিওয়ালা-স্বপ্নের জাদুকর


তারা কোথায় যায়?
ফসীহ বণিক

নদী ভাঙন

নদী ভাঙন

নদী টেনে নেয় যাদের জমি-জিরেত, বাড়িঘর এবং আশার শেষ বাতিঘর তারা কী নিয়ে বেঁচে থাকে আর তাদের ঠাঁইবা হয় কোথায়? কেউ রাজধানীর সিগন্যাল স্টপে দাঁড়িয়ে থাকা গাড়ির কাচের আব্রুর রঙিন চশমায় উঁকি দিয়ে হাত পেতে থাকা কোনো অভাগীর করুণ চাহনিতে এর উত্তর খোঁজেন। আর কেউবা রেললাইনের ধারে কোনো মস্তানের গড়ে তোলা ও তোলা জায়গিরে আঁতিপাঁতি করে খোঁজেন ছিন্ন পাতার শতদল একসাথ করার মতো করে; মুখে শোনা বয়ানের সঙ্গে মিলিয়ে দেখেন আর ভাবেন, আমি যারে খুঁজি এই কি সেই? এসব হতভাগা-হতভাগিনীর কারো কারো ঠাঁই যে শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে হয় তার একটা হিসাব তো পূর্ব ইউরোপে কমিউনিস্ট জুজু বুড়ি বিদায় নেওয়ার পর পশ্চিম ইউরোপ-আমেরিকার ব্রোথেলগুলো এবং ভবঘুরেদের রগরগে কাহিনীর মধ্যেই খুঁজে পাওয়া যায়। তাদের মধ্যে কেউ একজন শান্তা যদি শেষ পর্যন্ত নর্দমা ফুঁড়ে বেরিয়ে আলো ছড়ান, তখন আমরা সভ্য মানুষরা নিজেদের লাজলজ্জা ঝেড়ে ফেলে অর্থ-মোক্ষ লাভের নেশায় তার শরণাগত হতে দ্বিধা করি না। এই দুনিয়ায় ‘সারভাইবাল ফর দি ফিটেস্ট’ আপ্তবাক্যকেই আমরা প্রায় সবাই জীবনের সার করে নিয়েছি কি-না! তা না হলে আমাদের ফি বছর নদীভাঙনের শিকার হাজার হাজার আশ্রয়হীন মানুষের জন্য আমরা এখনও দীর্ঘমেয়াদি কোনো পরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারিনি কেন?

আমরাই তো বিভিন্ন উপলক্ষে নেদারল্যান্ডসের উদাহরণ দিই। দেশটি সমুদ্রপৃষ্ঠের নিচে অবস্থান হওয়ার পরও কীভাবে নিত্য ঝড়-জলোচ্ছ্বাস ও ভাঙনকে মোকাবেলা করে সোনার দেশে পরিণত হয়েছে, তার ইতিহাস তো এখন ওয়েভ এবং স্যাটেলাইটের কল্যাণে তামাম দুনিয়ার মানুষের দৃষ্টি ও শ্রবণসীমার মধ্যেই। কীভাবে তারা ইয়া বড় বড় কংক্রিটের বাঁধ দিয়ে সমুদ্র-নদীকে বশ করেছে তা কিন্তু আরব্য রজনীর গল্পের চেয়ে কোনো অংশে কম শিহরণ জাগানিয়া নয়। হাজার হাজার বছর ধরে প্রজন্মের পর প্রজন্ম বাঁধ দেওয়া ও পানি আসা-যাওয়ার পথ তৈরি করে ভূমিকে সমুদ্র-নদীগর্ভ থেকে তুলে নিজেদের ভবিষ্যৎ সবধরনের নিরাপদ আবাস নিশ্চিত করেছেন। মানুষ অসাধ্যকে সাধন করতে পারে বলেই সে আধুনিক সভ্যতার তকমা গায়ে জড়াতে পেরেছে। এই সভ্যতার দানকে গ্রহণ করে আধুনিক নেদারল্যান্ডস তাদের দেশের সীমানাকেও অনেক দূর বাড়াতে সক্ষম হয়েছে। আর আমরা ফি বছর নদীভাঙনকে রোধ করতে পারি না। এ যেন ‘তোমাতে-আমাতে চোখের দেখা, তবুও যোজন যোজন দূর’_ কবিতার চরণের মতো। তারা যা পারে আমরা তা পারি না। কেউ কেউ যেমনটা বলেন, এটা কি আমাদের জনগণের বাঙালিসুলভ আলস্য বাতিকের ফলশ্রুতি! তাহলে এই জাতি ফেব্রুয়ারিতে, মার্চে সঙ্গিনের সামনে বুক চিতিয়ে দাঁড়িয়েছিল কী করে সামনাসামনি? এই জাতি দিকদিশা পেলে সমুদ্র মন্থন করে অমৃতও তুলে আনতে পারে। সাহস, বীর্য কোনোটারই অভাব নেই। একটু যা অপরের কাসুন্দি ঘাঁটতে ভালোবাসি আমরা, এই যা।

আমরাও পারি। তবে এজন্য দরকার স্বপ্ন দেখা ও দেখানোর মতো বাতিওয়ালা-স্বপ্নের জাদুকর। যিনি আমাদের তার শৌর্য-বীর্য, জ্ঞান-প্রজ্ঞা, লোভ-লালসাহীন-নির্মোহতা গুণে সংকীর্ণতাকে ভুলিয়ে সবাইকে এক দেহ এক মন-প্রাণ করে নেবেন। কিন্তু কবে দেখা মিলবে তেমন ধর্মপুত্র যুধিষ্ঠিরের? সেই পর্যন্ত কি একটি জাতি নিশ্চেষ্ট থাকতে পারে?

যারা সরকারে থাকেন এবং যাদের ওপর উন্নয়ন পরিকল্পনার ভার ন্যস্ত তারা কি তাদের গুরুত্বপূর্ণ সময়ের একটা সামান্য অংশ এসব নদীভাঙনের শিকার হতভাগ্যদের ভবিষ্যৎ চিন্তায় নিয়োজিত করতে পারেন না?
আটপৌরে গৃহস্থ বাড়ি পদ্মায় টেনে নেওয়ার মাঝে যে সুদীর্ঘকালের মানব বসতির হাসি-কান্না, জীবনের চালচিত্রের ইতিহাস বুকফাটা আর্তনাদ হয়ে নদীর ঢেউয়ে আছড়ে পড়ে, তার মূল্য কি কোনো অংশে কম! এসব আমাদের কর্তাব্যক্তিদের হৃদয় কন্দরে ব্যাকুলতা সৃষ্টি করে কি?