ব্যবসা ও ব্যবসায়ী

ব্যবসা ও ব্যবসায়ী

চিররঞ্জন সরকার

ব্যবসায়ীদের প্রতি আমাদের দেশের মানুষের বড় বেশি ভক্তি-শ্রদ্ধা নেই। তারা লাখপতি, কোটিপতি হতে পারেন, দামি গাড়ি-বাড়ি, বিপুল বিত্ত-বৈভব, প্রভাব-প্রতিপত্তির অধিকারী হতে পারেন; কিন্তু আমাদের সমাজে ব্যবসায়ীদের ইমেজ খুব একটা ইতিবাচক নয়।

এর অবশ্য কারণও আছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমরা ব্যবসায়ীদের আঙুল ফুলে কলা গাছ হতে দেখি। সত্ পথে থেকে সত্ভাবে ব্যবসা করে বড় লাভের মুখ দেখা সম্ভব নয়—এমন একটা বদ্ধমূল ধারণা আমরা লালন করি। যারা ব্যবসা করেন, তারা চোরাপথে মাল কিনে, শ্রমিক-কর্মচারীদের ঠকিয়ে, ভেজাল বা নিম্নমানের জিনিস গছিয়ে, ওজনে কম দিয়ে, ট্যাক্স ফাঁকি দিয়ে বড়লোক হন বলে অনেকের বিশ্বাস। আমাদের দেশের বেশিরভাগ বড়লোকই হচ্ছেন ব্যবসায়ী। তারা কোনো না কোনো ধরনের ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত। দুই নম্বরি করে তারা বড়লোক হয়েছেন—এই সন্দেহের বশে আমরা তাদের খারাপ চোখে দেখি। তবে এই খারাপ চোখে দেখার ব্যাপারটা তখন আর শুধু বড়লোক ব্যবসায়ীদের প্রতি সীমাবদ্ধ থাকে না; পুরো ব্যবসায়ী সমপ্রদায়ের ওপর বর্তায়।

তবে ব্যবসা-বাণিজ্যের মূল কথাই হচ্ছে লাভ। যে কোনো উপায়ে লাভ করাই একজন ব্যবসায়ীর প্রধান লক্ষ্য। শুধু লাভ নয়, মহালাভ খোঁজেন তারা। লাভ করতে গিয়ে কোনো ঝুটঝামেলা, ইনকাম ট্যাক্স, সেল্স ট্যাক্স, কাস্টমস, পুলিশ, মামলা, অসন্তোষ, হরতাল, ধর্মঘটে জড়িয়ে না পড়েন—ব্যবসায়ীদের মনে এই আকাঙ্ক্ষাও প্রবলভাবে কাজ করে। তবে ব্যবসা করা সহজ কাজ নয়। অনেক ঝানু ব্যক্তি ব্যবসা করতে গিয়ে ফতুর হয়েছেন, আবার অনেক হাঁদারামও ব্যবসায় সফল হয়ে কোটিপতি বনেছেন। উভয় প্রকার উদাহরণই আমাদের সমাজে ভূরিভূরি আছে। প্রখর বুদ্ধি, কঠোর পরিশ্রম, অমিত আত্মবিশ্বাস, সেইসঙ্গে ভাগ্যদেবীর সুনজর—এসব না হলে ব্যবসায় সফল হওয়া যায় না।

হ্যাঁ, সেইসঙ্গে সততাও প্রয়োজন। আমরা ছোটবেলায় দেখতাম দোকানে কাচের ফ্রেমে বাঁধানো রয়েছে—সততাই আমাদের একমাত্র মূলধন। আজকাল অবশ্য এরকম কোনো ঘোষণাপত্র কোনো দোকানে বা শোরুমের দেয়ালে দেখা যায় না। পুরো সমাজ থেকেই যেখানে সততা বিদায় হয়েছে, সেখানে দোকানে তা আর টিকে থাকবে কীভাবে? ব্যবসায় সততা বলতে যে কিছুই আর অবশিষ্ট নেই তেমন নয়; সততা এখনও আছে। তবে তা ভিন্ন সংজ্ঞায়, আলাদা মানে নিয়ে। এ প্রসঙ্গে একটি গল্প বলা যাক।

এক বৃদ্ধ ব্যবসায়ী তার শিশু নাতিকে নিয়ে নিজের দোকানে এসেছেন। তিনি নাতিকে নিয়ে ক্যাশবাক্সের পেছনে গদিতে বসেছেন, পাশের দেয়ালেই ‘সততাই আমাদের মূলধন’ বিজ্ঞপ্তি ঝুলছে। নাতি পড়তে শিখেছে। সে ওটা দেখে পিতামহকে প্রশ্ন করল: দাদু সততা কী? দাদু বললেন, সততা একটা খুব খাঁটি জিনিস। চট করে বোঝানো কঠিন। মনে কর আমি আর তুমি এ ব্যবসার অংশীদার। এখন একজন গ্রাহক এসে একটা জিনিস কিনে ১০ টাকা দিতে গিয়ে ভুল করে ২০ টাকার নোট তোমাকে দিয়ে চলে গেল। তুমিই ক্যাশবাক্সে বসেছ, তোমার অংশীদার আমি দোকানের অন্যদিকে রয়েছি। আমি দেখতে পাইনি যে, গ্রাহক ভুল করে ১০ টাকা বেশি দিয়েছে। এখন তুমি যদি ওই ১০ টাকা থেকে আমাকে ৫ টাকা দাও তাহলে সেটাই হলো তোমার সততা।

নাতি বললো, কিন্তু দাদু গ্রাহক. . .

দাদু বললেন, গ্রাহকের কথা ভেব না, ওটা বাদ দাও। এ ঘটনার অনেক দিন পরের কথা। বৃদ্ধ ভদ্রলোক এখন আর নিজে দোকানে যান না। তার ছেলে যায়। কিন্তু ছেলে তার মতো তুখোড় নয়। ব্যবসাপত্র বেশ মন্দ যাচ্ছে।

বৃদ্ধ সারাদিন বাসায় বসে থাকেন। সাত-পাঁচ চিন্তা করেন আর নাতির পড়াশুনা দেখেন। নাতির কৌতূহল এখনো নানা বিষয়ে অপরিবর্তিত রয়েছে। একদিন কী একটা পড়তে পড়তে দাদুকে জিজ্ঞেস করলো, আচ্ছা দাদু রসাতল কী?

দাদু শুকনো গলায় একটু খুকখুক করে কেশে জবাব দিলেন, রসাতল হলো সেই জায়গা যেখানে তোমার বাবা আমার ব্যবসাকে পাঠাচ্ছে।

ব্যবসা বড় বিচিত্র জিনিস। কিসে কত লাভ এক দোকানদার ছাড়া কেউ জানে না। যখন দোকানদার বলছে, স্যার আপনাকে আমি কেনা দামে জিনিস দিচ্ছি, তখন সে ডাহা মিথ্যা কথা বলছে। আর একটা কথা মনে রাখা উচিত, ব্যবসায়ে মিথ্যা বলা ব্যবসায়ীর কাছে মোটেও পাপ নয়, বরং সেটাই তার ধর্ম। ব্যবসার আসল কথা হলো লাভ, তা সে যেভাবেই হোক। লাভের জন্য ব্যবসায়ীরা যা বলেন, যা করেন সবই তার জন্য ‘সততা’ বা ‘ন্যায়’।

লাভ প্রসঙ্গে আর একটি গল্প বলা যাক। একটি ঘড়ির দোকানের বাইরে বিজ্ঞাপনে লেখা ছিল:’এখানে লোভনীয় দামে ঘড়ি বিক্রি হয়।’ এক পথচারী সেই দোকানে ঢুকে ঘড়ির দাম কীরকম জানতে চাইল। দোকানদার বললেন, আমরা আমাদের ঘড়ি কোম্পানির কেনা দামের চাইতেও শতকরা পঁচিশ টাকা কমে বিক্রি করি। পথচারী এ কথা শুনে বিস্মিত হয়ে বলল, তাহলে ঘড়ি বেঁচে তো আপনাদের ক্ষতি হয়। দোকানদার গম্ভীর হয়ে বললেন, তা হয়। পথচারী আবার প্রশ্ন করলেন, তাহলে আপনাদের দোকান চলছে কী করে?

অধিকতর গম্ভীর হয়ে দোকানদার বললেন, ক্ষতিটা ঘড়ি সারিয়ে পুশিয়ে নিই।

আমাদের দেশে গত প্রায় দুই যুগ ধরে একশ্রেণির ব্যবসায়ী বেশ ভালোই লাভ করছে। লবণ, সয়াবিন তেল, তৈরি পোশাক, ঝুট কাপড়, ইয়াবা থেকে শুরু করে শেয়ার ব্যবসায়ীরা পর্যন্ত নানা কারসাজিতে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন এবং নিচ্ছেন। বাজার নিয়ন্ত্রণের সরকারি প্রচেষ্টা কোনো কাজে দেয়নি। তবে চোরের ওপর বাটপাড়ি শুরু করেছে সরকারের আরেক আশীর্বাদ চাঁদাবাজ-সন্ত্রাসীচক্র। ব্যবসায়ীদের লাভের গুড়ে এই চক্র ভাগ বসাচ্ছে। বনিবনা না হলে দু’একজন মাঝারি গোছের ব্যবসায়ী খুনও হচ্ছেন। সরকার কার পক্ষ নেবে? এই দু’পক্ষই যে তাদের একান্ত আপনজন!

আগে মোটা অংকের চাঁদার বিনিময়ে ব্যবসায়ীরা সরকারকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করত। তাদের স্বার্থের পক্ষে নীতি ও আইন প্রণয়নের জন্য অনেক কাঠখড় পোড়াতে হত। বর্তমানে ব্যবসায়ীরাই রাজনীতিবিদ, রাজনীতিবিদরাই ব্যবসায়ী। এখন আর তোয়াজ-তোষামোদের বালাই নেই। এখন তারাই সর্বেসর্বা। তারা নিজেদের স্বার্থে আইন প্রণয়ন যেমন করছেন, নিজেদের প্রয়োজনে সেই আইনকে বুড়ো আঙ্গুলও দেখাচ্ছেন। দেখারও কেউ নেই আর বলারও কিছু নেই। প্রধানমন্ত্রীসহ দু’চারজন ছাড়া বাকি সবাই প্রায় নামে-বেনামে বিভিন্ন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত। কাজেই তারাই এখন নীতি-নির্ধারক। দণ্ডমুণ্ডের কর্তা। আমাদের মতো আমপাবলিকের হারিকেন হাতে নিয়ে বসে থাকা ছাড়া অন্য কোনো ভূমিকা আছে বলে মনে হয় না।
https://i1.wp.com/i.usatoday.net/news/_photos/2012/03/13/31-dead-in-Bangladesh-ferry-crash-3L14SBFF-x-large.jpg
পুনশ্চ: আমাদের দেশে বিভিন্ন পোশাক কারখানায় (বাংলাদেশের সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান) অগ্নিকাণ্ড বা ভবন ধসের ঘটনা নিয়মিতই ঘটছে। এসব ঘটনায় ব্যাপক প্রাণহানি হচ্ছে। এ নিয়ে মিডিয়ায় ঝড় উঠছে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট মালিক বা ব্যবসায়ীদের তাতে কোনো ভ্রূক্ষেপ আছে বলে মনে হয় না। সেই একই ঝুঁকিপূর্ণ কর্মপরিবেশ, নিরাপত্তাহীনতা, অমানবিকতা, জুলুমবাজি চলছে তো চলছেই। শ্রমিকদের সমূহ ক্ষতি হলেও মালিক-কর্তৃপক্ষের কোনো ক্ষতি বা সমস্যা হচ্ছে না। হবেইবা কেন? তাদের জন্য যে ভর্তুকি নিয়ে ব্যাংক-বীমাসহ বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান তৈরি! এ প্রসঙ্গে মনে পড়ছে একটি পুরানো গল্প।

ব্যাংককের পাতায়া সমুদ্র সৈকতে একটি চারতারা হোটেলের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ঘরে বসে দুই সদ্য পরিচিত ব্যবসায়ী ঠাণ্ডা বিয়ার খাচ্ছেন। তাদের দু’জনের আজকেই আলাপ হয়েছে। দু’জনে পাতায়া বেড়াতে এসে একই হোটেলে উঠেছেন। এই দু’ ব্যবসায়ীর বাক্যালাপের কিছু অংশ উদ্ধৃত করা যাক—

প্রথম ব্যবসায়ী : আপনি কী করেন?

দ্বিতীয় ব্যবসায়ী: এখন কিছু করি না। আমার একটা কারখানা ছিল, সেটা আগুনে পুড়ে গিয়েছে। দুর্ঘটনা বীমার ভর্তুকি পেয়ে এখানে বেড়াতে এসেছি। ভবিষ্যতে কী করা যায় সেটাও ভেবে দেখছি আর কি। (এরপর একটু থেমে) আচ্ছা আপনি কী করেন?

প্রথম ব্যবসায়ী: ঐ আপনার মতোই আমারও একটা কারখানা ছিল।

দ্বিতীয় ব্যবসায়ী: সেটা আগুনে পুড়ে গেল?

প্রথম ব্যবসায়ী: না, তা নয়। আমার কারখানাটা বন্যায় ভেসে গেছে। দুর্ঘটনা বীমার ভর্তুকি পেয়ে এখানে বেড়াতে এলাম।

দ্বিতীয় ব্যবসায়ী: (গলা নামিয়ে, চুপিচুপি স্বরে) আচ্ছা ভাই, আগুন লাগার ব্যাপারটি তো বুঝি; কিন্তু বন্যা লাগান কী করে একটু বুঝিয়ে বলবেন?

লেখক:কলামিস্ট

Advertisements

তথ্য কণিকা Jahan Hassan জাহান হাসান
Ekush, Publisher/Editor/ Hollywood media hyphenate/ একুশ নিউজ মিডিয়া, লিটল বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস / 1 818 266 7539 / FB: JahanHassan

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s