LA Consulate is now offering Bangladeshi MRP (Machine Readable Passport) লস এঞ্জেলেসে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট

বাংলাদেশ কনস্যুলেট লস এঞ্জেলেসে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট প্রদান কার্যক্রম উদ্বোধন


অক্টোবর ৩১, ২০১১, লস এঞ্জেলেসঃ
যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম উপকূলে বসবাসরত বাংলাদেশিদের মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) ও মেশিন রিডেবল ভিসা (এমআরভি) সুবিধা দিতে লস এঞ্জেলেস বাংলাদেশ কনস্যুলেটে কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

Bangladeshi MRP (Machine Readable Passport) from LA Consulate

লস এঞ্জেলেসে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল অফিসে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট প্রদান কার্যক্রম উদ্বোধন করেন কন্সাল জেনারেল মোহাম্মদ এনায়েত হোসেন



যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশীরা এখন থেকে অত্যাধুনিক মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) পাবেন। গত সোমবার দুপুর দুইটায় লস এঞ্জেলেসে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল অফিসে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট প্রদান কার্যক্রম উদ্বোধন করেন কন্সাল জেনারেল মোহাম্মদ এনায়েত হোসেন। প্রবাসী বাংলাদেশীরা এখন থেকে লসএঞ্জেলেস সহ ওয়াশিংটন ডিসিতে বাংলাদেশ দূতাবাস ও নিউইয়র্কে কনস্যুলেট থেকে সরাসরি এমআরপি সংগ্রহ করতে পারবেন। এতে করে দেশের বাইরে যেতে বা প্রবাসীদের দেশে ফেরার সময় এয়ারপোর্টের ভোগান্তি অনেকখানি কমে যাবে। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্হিত ছিলেন ডেপুটি কনসাল জেনারেল শাহনাজ গাজী, নব-নিযুক্ত ভাইস কনসাল, কর্মাশিয়াল কন্সাল, বিদায়ী ভাইস কন্সাল শামীম আহমেদ সহ প্রবাসের বিশিষ্ট ব্যক্তি ও গণমাধ্যম প্রতিনিধিবৃন্দ।
বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও মিডিয়া কর্মী জাহান হাসানের মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট ইস্যুর মাধ্যমে লস এঞ্জেলেসে এই অফিশিয়াল কার্য্যক্রমের সূচনা হয়। দূতাবাস থেকে এমআরপি ইস্যু করা হচ্ছে – এই খবরটা আপনি আপনার আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবদের জানিয়ে দিন।

বিদেশে এমআরপি পেতে হলে বাংলাদেশী হিসেবে জাতীয় পরিচয়পত্র বা জন্ম নিবন্ধন সনদের অনুলিপি সংযুক্ত করতে হবে। তবে যাদের পরিচয়পত্র নেই তাদেরকে স্বজনদের মাধ্যমে বাংলাদেশের নিজ ইউনিয়ন বা পৌরসভা থেকে জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করার পরামর্শ দিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এই ক্ষেত্রে স্থানীয় কন্সুলেট ও আপনাকে সাহায্য করতে পারে। এমআরপি প্রবর্তনের ফলে এখন আর কেউ একাধিক পাসপোর্ট রাখতে পারবে না এবং তথ্য গোপন করাও সম্ভব হবে না। যারা আগের পাসপোর্ট ব্যবহার করছেন, তাঁদের পুরোনো পাসপোর্টেই চলবে ২০১৫ সাল পর্যন্ত।

চলিত পাসপোর্টের মতোই দেখতে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি)।
কেবল পার্থক্য হলো এই পাসপোর্টে থাকা তথ্য এয়ারপোর্টে থাকা কম্পিউটার পড়তে পারে । দেশের বাইরে যেতে বা প্রবাসীদের দেশে ফেরার সময় এয়ারপোর্টের ভোগান্তি এড়াতেই চালু করা হয়েছে এই পাসপোর্ট। এপ্রিলে চালু করার বাধ্যবাধকতা থাকলেও যারা আগের পাসপোর্ট ব্যবহার করছেন, তাঁদের পুরোনো পাসপোর্টেই চলবে ২০১৫ সাল পর্যন্ত।

প্রসঙ্গত, আন্তর্জাতিক সিভিল এভিয়েশন সংস্থা ২০১৪ সাল থেকে ডিজিটাল ইলেক্ট্রনিক পাসপোর্ট বা ই-পাসপোর্ট চালুর ব্যাপারে বাধ্যবাধকতা আরোপ করেছে। এরপর থেকে এর সদস্যভুক্ত ১৮১টি দেশে (বাংলাদেশসহ) ভ্রমণ করতে হলে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট থাকলেও ই-পাসপোর্ট ব্যবহার করতে হবে। এছাড়া আন্তর্জাতিক সিভিল এভিয়েশন সংস্থার বেঁধে দেওয়া সময় অনুযায়ী ২০১০ সালের ১ এপ্রিল থেকে বাংলাদেশে এমআরপি দেওয়া শুরু হয়। সে অনুযায়ী বিভিন্ন দূতাবাস থেকে এমআরপি প্রদানের কার্যক্রম শুরু করা হয়। আবুধাবি, বেইজিং, দুবাই, হংকং, জেদ্দা, কুয়ালালামপুর, কুয়েত, রিয়াদ, সিঙ্গাপুর মিশন ছাড়াও যুক্তরাজ্যের লন্ডন, বার্মিংহাম ও ম্যানচেস্টার, দক্ষিণ আফ্রিকার প্রিটোরিয়া ও কানাডার অটোয়াসহ অন্যান্য মিশনে এমআরপি চালু করা হয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

এমআরপি প্রবর্তনের ফলে এখন আর কেউ একাধিক পাসপোর্ট রাখতে পারবে না এবং তথ্য গোপন করাও সম্ভব হবে না। যন্ত্রে পাঠযোগ্য পাসপোর্ট বিভিন্ন দেশের উন্নত প্রযুক্তিনির্ভর পাসপোর্টের আদলে তৈরি। এ পাসপোর্টে উন্নত দেশগুলোর পাসপোর্টের মতোই বিশেষ কাপড়ের কভার ব্যবহার করা হয়েছে। হাতে লেখা পাসপোটের মতোই শুরু থেকে ৫ থেকে পঞ্চম পৃষ্ঠা পর্যন্ত ছবিসহ প্রয়োজনীয় এক পাতায় আছে। আছে জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বরও। এ পাসপোর্টে এক পাতার এসব তথ্যের পাশাপাশি একপাশে আছে বিশেষ সাংকেতিক নম্বর, যাকে ‘যন্ত্রে পাঠযোগ্য এলাকা’ বলা হয়। এই নম্বরের মধ্যেই থাকছে পাসপোর্টধারীর সব তথ্য, যা কম্পিউটার পড়তে পারে। পুরো প্রক্রিয়াটিই চলছে আন্তর্জাতিক মেশিন রিডেবল পাসপোর্টের অনুমোদন সংস্থা আইসিএভি-এর নির্দেশনা অনুসারে।

যুক্তরাষ্ট্রে এমআরপির জন্য ফি : সাধারণ পাসপোর্টের জন্য ১১০ ইউএস ডলার এবং জরুরি পাসপোর্টের জন্য ২২০ ইউএস ডলার
ইন্টারনেট থেকে বিনামূল্যে ফরম সংগ্রহ করা যাবে। বহিরাগমন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটেই (www.dip.gov.bd) এই ফরম পাওয়া যাবে।
চার পৃষ্ঠার এ আবেদনপত্রে আবেদনকারীকে নাম, বাবার নাম, মার নাম, তাদের পেশা, জাতীয়তা, জন্মস্থান, জন্ম তারিখ, জন্ম সনদপত্র নম্বর, জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর, বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা, যোগাযোগের তথ্য সরবরাহ করতে হবে। এসব তথ্য সঠিকভাবে পূরণ করে আবেদনকারীকে নির্দিষ্ট জায়গায় স্বাক্ষর ও তারিখ লিখতে হবে। এ ছাড়া আবেদনকারীকে একটি রঙিন পাসপোর্ট সাইজ ছবি লাগবে। আবেদন ফরমের সঙ্গে প্রার্থীকে নিজের একটি রঙিন ছবি আঠা দিয়ে নির্দিষ্ট স্থানে লাগিয়ে দিতে হবে। সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্ম সনদপত্রের ফটোকপি। অপ্রাপ্তবয়স্ক (১৫ বছরের কম) আবেদনকারীর ক্ষেত্রে আবেদনকারীর বাবা ও মায়ের একটি করে রঙিন ছবি লাগবে।
Pictures Link:
বিস্তারিতঃ http://www.bangladeshconsulatela.com http://www.bangladeshconsulatela.com/docs/birthreg.pdf Form: http://www.bangladeshconsulatela.com/forms.html

Visit us on FaceBook একুশ নিউজ মিডিয়া এখন ফেস বুক এ

একুশ নিউজ মিডিয়া এখন ফেস বুক এ
More Video: www.EkushTube.com
Massive Opportunity ASea – Advancing Life

Advertisements

তথ্য কণিকা Jahan Hassan জাহান হাসান
Ekush, Publisher/Editor/ Hollywood media hyphenate/ একুশ নিউজ মিডিয়া, লিটল বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস / 1 818 266 7539 / FB: JahanHassan

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: