ওয়াল স্ট্রিট দখলকারীদের সাহসী ভুবন


ওয়াল স্ট্রিট দখলকারীদের সাহসী ভুবন
Wall Street protesters urge students to boycott loan payments


অ্যামি গুডম্যান • মঙ্গলবার রাত ১টার পর আমাদের কাছে খবর এলো, নিউইয়র্ক সিটি পুলিশ অকুপাই ওয়াল স্ট্রিট আন্দোলনকারীদের ক্যাম্পে হামলা চালিয়েছে। আমি ‘ডেমোক্রেসিনাউ’ টিমের সংবাদকর্মীদের সঙ্গে জুকুটি পার্কের দিকে দৌড়ালাম। এই পার্কটির নতুন নামকরণ হয়েছে লিবার্টি স্কয়ার বা স্বাধীনতা চত্বর। গিয়ে দেখি কয়েকশ’ দাঙ্গা পুলিশ ইতোমধ্যেই এলাকাটি ঘিরে ফেলেছে। দেখলাম, পুলিশ একদিকে তাঁবুগুলো ছিঁড়ে ফেলছে আর সিটি পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা আন্দোলনকারীদের জিনিসপত্রগুলো ময়লার ট্রাকে ছুড়ে মারছে। পুলিশ বেষ্টনির বাইরে পার্কের কেন্দ্রস্থলে ২০০ থেকে ৩০০ আন্দোলনকারীকে হাত বাঁধা অবস্থায় বসে থাকতে দেখলাম। কিছুতেই তারা দুই মাস ধরে দখল করে বসে থাকা জায়গাগুলো ছেড়ে যাবে না। তাদের সবাইকে এক এক করে হাতকড়া পরিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা যে ক’জন সংবাদকর্মী পুলিশকে ফাঁকি দিয়ে ঘটনাস্থলের কাছাকাছি পৌঁছতে পারলাম তাদের জুকুটি পার্ক সংলগ্ন রাস্তাগুলোর ওপর দাঁড়াতে দেওয়া হলো। তবে আমরা আমাদের ক্যামেরাগুলো চালু করার সঙ্গে সঙ্গেই আমাদের সামনে দুটি পুলিশ বাস এনে দাঁড় করিয়ে দেওয়া হলো যাতে আমরা ভেতরকার ছবি তুলতে না পারি। আমি আর আমার কয়েকজন সহকর্মী বাস দুটির ফাঁক গলিয়ে এবং ছেঁড়া তাঁবু আর স্লিপিং ব্যাগের স্তূপ পেরিয়ে পার্কের ভেতর ঢুকে পড়লাম। পুলিশ এতবড় একটা ধ্বংসযজ্ঞের চিত্র মিডিয়ার কাছ থেকে প্রায় আড়ালই করে ফেলছিল।

একটি ধ্বংসস্তূপের মধ্যে বইয়ের একটি ভাঙা তাক আমার চোখে পড়ল। পার্কের বেশ কিছুটা ভেতরে গিয়ে দেখতে পেলাম একটি বই পড়ে আছে। বইটির গায়ে ‘ওডব্লিউএসএল’ চিহ্ন সাঁটা ছিল যার মানে হচ্ছে বইটি অকুপাই ওয়াল স্ট্রিট লাইব্রেরির। এটি এখন পিপলস লাইব্রেরি হিসেবেও পরিচিত। চলমান গণতান্ত্রিক আন্দোলনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ফসল এই লাইব্রেরিটি। সর্বশেষ তথ্য মতে, বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের দান করা ৫ হাজার বইয়ের একটি সংগ্রহ রয়েছে এটির। ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে থাকা গণতন্ত্রের ধ্বংসাবশেষের মাঝখানে যে বইটি আমার দৃষ্টিগোচর হলো সেটি পড়েছিল একটি আবর্জনার স্তূপের ওপর। বইটির নাম ‘ব্রেইভ নিউ ওয়ার্ল্ড রিভিজিটেড’। লেখক এলডাস হাকসলি।

রাত গভীর হতে থাকলে হাকসলির বইটি চোখে পড়ার মাহাত্ম্য স্পষ্ট লাগল। তার বিখ্যাত উপন্যাস ব্রেইভ নিউ ওয়ার্ল্ড লেখার ৩০ বছর পর ১৯৫৮ সালে হাকসলি এই বইটি লেখেন। মূল বইটিতে তিনি ভবিষ্যৎ পৃথিবীর মানুষকে হ্যাভস এবং হ্যাভনটস এই দুই ভাগে বিভক্ত করেছিলেন। তার বর্ণিত দ্য ব্রেইভ নিউ ওয়ার্ল্ডের মানুষ আনন্দ, উন্মাদনা, বিজ্ঞাপন আর নেশা জাগানিয়া দ্রব্যাদির সাহচার্যে গা ভাসাবে। যাকে বলে প্রকৃত অর্থেই একটি ভোগবাদী জীবন। এই সমাজের নিচের স্তরের মানুষ ওপরের স্তরের অভিজাত কিছু মানুষকে সব ধরনের সেবা যুগিয়ে যাবে। তবে হাকসলির ব্রেইভ নিউ ওয়ার্ল্ড রিভিজিটেড বইটি কিন্তু উপন্যাসধর্মী রচনা নয়। এটিতে তিনি আধুনিক সমাজের একটি বিবর্ণ ভবিষ্যতের চিত্র তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন। এই বইটির এখানে একটি প্রাসঙ্গিকতা রয়েছে। কারণ আমরা দেখেছি যে, বাণিজ্য এবং বিশ্বায়নের আধিপত্যকে বিরোধিতা করে গড়ে ওঠা আন্দোলনকে ধ্বংসের চেষ্টা চলছে। আন্দোলনকারীদের ক্যাম্প ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

হাকসলি তার বইতে লিখেছেন ‘প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে এবং ছোট ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দিয়ে গড়ে ওঠা বড় বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো রাষ্ট্র কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে। আর রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রক বলতে বোঝায় পার্টির মুষ্টিমেয় নেতৃত্বের নিয়ন্ত্রণই। সামরিক বাহিনী, পুলিশ এবং বেসামরিক আমলারা ওই মুষ্টিমেয় নেতৃত্বের আজ্ঞাবাহী হয়ে কাজ করেন। যুক্তরাষ্ট্রের মতো পুঁজিবাদী একটি গণতন্ত্রে এই নিয়ন্ত্রণটি রয়েছে অধ্যাপক সি রাইট মিলসের ভাষায় পাওয়ার এলিটদের হাতে। হাকসলি বলছেন, এই পাওয়ার এলিট বা ক্ষমতাবান গোষ্ঠীটি দেশের লাখ লাখ মানুষকে তাদের কারখানা, অফিস এবং স্টোরগুলোতে কর্মে নিয়োজিত করে। অন্যদিকে নিজেদের উৎপাদিত পণ্যসামগ্রী কেনার জন্য এই পাওয়ার এলিটরা আবার লাখ লাখ মানুষকে টাকা ধার দেয় এবং এর মাধ্যমে তাদের ওপর নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে।

তাছাড়া নিজেদের মালিকানাধীন গণমাধ্যমগুলোকে ব্যবহার করে প্রতিটি মানুষের চিন্তাভাবনা, আবেগ-অনুভূতি এবং কর্মকান্ডকেও তারা বিপুল পরিমাণে প্রভাবিত করে থাকে। জুকুটি পার্কে পুলিশি হামলা চলার সময় পিপলস লাইব্রেরির কর্মী স্টিফেন বয়ার সেখানে উপস্থিত ছিলেন। গ্রেফতার এড়িয়ে এবং আক্রান্তদের জন্য প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করার পর তিনি বলছেন, পার্কে আমরা যেসব জিনিস জড়ো করেছিলাম তার সবই নষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। এত সুন্দর একটি লাইব্রেরিও ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে। লাইব্রেরির সংগ্রহে থাকা ৫ হাজার বইও হারিয়ে গেছে। অনুদান হিসেবে পাওয়া আমাদের তাঁবুগুলোও ছিঁড়ে তছনছ করে দেওয়া হয়েছে। আন্দোলনের ভেতর দিয়ে গড়ে ওঠা আমাদের সব অর্জন এরা নস্যাৎ করে দিয়েছে।

নিউইয়র্ক সিটির মেয়র মিচেল ব্লুমবার্গের অফিস থেকে পরে অবশ্য উপরে কিছু বই সাজিয়ে রাখা একটি টেবিলের ছবি প্রচার করা হয়েছে এবং দাবি করা হয়েছে যে, লাইব্রেরির বইগুলো সংরক্ষিত আছে। তবে পিপলস লাইব্রেরির টুইটারে বলা হয়েছে, কিছু বই অক্ষত আছে দেখে আমরা স্বস্তি বোধ করছি। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে আমাদের অন্য বইগুলো কোথায়, আমাদের আচ্ছাদন আর বাক্সগুলোই বা কোথায়? প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, লাইব্রেরিকে এই আচ্ছাদনগুলো উপহার দিয়েছিলেন ন্যাশনাল বুক অ্যাওয়ার্ড বিজয়ী বিখ্যাত রক অ্যান্ড রোল শিল্পী প্যাটি স্মিথ।

দখল অবস্থান নেওয়া আরো কিছু স্থানেও ইতোমধ্যেই হামলা চালানো হয়েছে। ওকল্যান্ডের মেয়র জ্যা কুয়ান বিবিসির কাছে স্বীকার করেছেন, পরিস্থিতি নিয়ে তিনি ১৮টি নগরীর কর্তৃপক্ষেও সঙ্গে কথা বলেছেন। অন্য আরেকটি খবরে জানা গেছে, এফবিআই এবং হোমল্যান্ড সিকিউরিটিও পরিস্থিতি সম্পর্কে নগরীগুলোর কর্তৃপক্ষকে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে। মঙ্গলবার নিউইয়র্ক স্টেট আদালতের একজন বিচারক এই মর্মে রায় দিয়েছেন, আন্দোলনকারীদের উৎখাত করার বিষয়টি বহালই থাকবে এবং তারা আর তাঁবু ও স্লিপিং ব্যাগ নিয়ে জুকুটি পার্কে ফিরে যেতে পারবে না। এই রায় জারির পর সংবিধান বিশেষজ্ঞ একজন আইনজীবী আমাকে এই মর্মে একটি বার্তা পাঠিয়েছেন, ‘মনে রাখবেন আন্দোলন কিন্তু এখন রাজপথে অবস্থান নিয়েছে। আদালতকে সব সময়ই শেষ সম্বল হিসেবে বিবেচনা করা হয়ে থাকে।’ কিংবা প্যাট্টি স্মিথের বিখ্যাত সেই গান ‘জনগণই সর্বশক্তিমান’।

কমন ড্রিমস থেকে ভাষান্তর

আদর্শকে নিশ্চিহ্ন করা যায় না •

দুই মাস আগের ঘটনা। মাত্র ২০০ জন মানুষ আমরা তাঁবু গেড়ে বসলাম ওয়াল স্ট্রিটের দোরগোড়ায়। সেই থেকেই অকুপাই ওয়াল স্ট্রিট একটি জাতীয় এবং এমনকি আন্তর্জাতিক প্রতীকে পরিণত হয়েছে। একই কায়দায় সারা আমেরিকায় এবং বিশ্বজুড়েই বিভিন্ন শহর এবং নগরে দখল করে নেওয়ার ঘটনা ঘটে চলেছে। এখন এতে হাজার হাজার মানুষ অংশ নিচ্ছে। ক্রমশ বাড়তে থাকা গণআন্দোলন আমাদের জাতীয় অর্থনীতি, আমাদের গণতন্ত্র এবং আমাদের ভবিষ্যতের চেহারাটাই তাৎপর্যপূর্ণভাবে পাল্টে দিতে শুরু করেছে।

এই গণআন্দোলনকে প্রতিহত করতে পুলিশি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তবে আমরা কিন্তু এতটুকুও দমে যাইনি। আমাদের শক্তি এখন তুঙ্গে। আমাদের মনোবল অনমনীয়। ক্রমেই বাড়তে থাকা এই আন্দোলন কেবল একটি প্রতিবাদ মাত্র নয়, তার চেয়েও বড় কিছু। এটি দখল করে নেওয়ার চেয়েও বেশি কিছু এবং এটিকে কেবল একটি কৌশল হিসেবে দেখলেই চলবে না। শারীরিকভাবে যারা দখল কার্যে অংশ নিতে পেরেছেন এই আন্দোলনে ‘আমরা’ শব্দটি দিয়ে তাদের চেয়ে আরো বড় একটি পরিসরকে বোঝানো হয়েছে। এই আন্দোলনে যারা সহযোগিতা প্রদান করেছেন, যারা আন্দোলনের অন্তর্নিহিত বিষয়গুলো নিয়ে বন্ধু-বান্ধব এবং পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেছেন কিংবা যারা কোনো না কোনোভাবে নাগরিক সমাজের এই কর্মকান্ডে যুক্ত হয়েছেন তারা সবাই এই আন্দোলনের অংশ।

আমাদের জীবন বিপন্নকারী সংকটের মুহূর্তে আমরা যেমন সবাই একত্রে মিলে আমেরিকার অন্তর্নিহিত শক্তিকে আবিষ্কার করে সেই সংকট মোকাবিলা করি এবারের এ আন্দোলনও তারচেয়ে কম কিছু নয়। এমন একটি আন্দোলনকে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়া যায় না। কিছু রাজনীতিক আমাদের হয়তো শারীরিকভাবে আমাদের অবস্থান থেকে সরিয়ে নিতে পারেন, গণজমায়েত ভেঙে দিতে পারেন। বলপ্রয়োগের এই প্রচেষ্টায় তারা হয়তো সফলও হবেন। কিন্তু মনে রাখতে হবে, আমরা এখন একটি আদর্শিক লড়াইয়ে অবতীর্ণ। আমাদের ভাবনার জায়গাটি অনেক বেশি শক্তিশালী। আমরা চাই, আমাদের রাজনৈতিক ব্যবস্থাটি আমাদের সেবা দেবে। কেবল ধনসম্পদ আর ক্ষমতাবানদের নয়, সেবা দেবে রাষ্ট্রের সব নাগরিককে। আমরা বিশ্বাস করি, আমাদের এই চিন্তার সঙ্গে সব মানুষই সহমত পোষণ করে। কারণ আমাদের প্রতিনিধি পরিষদ কংগ্রেস ওয়াল স্ট্রিটের ঘটনা দেখেও না দেখার ভান করেছে, তারা ঘরে ঘরে জন্ম নেওয়া অসন্তোষ, প্রতিবেশীর হৃদয়ের আর্তনাদ, অর্থনৈতিক কারণে দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের কষ্টের কাহিনীকে অবজ্ঞা করেছে। আমরা একটি গণতন্ত্রের স্বপ্ন দেখি। অকুপাই ওয়াল স্ট্রিট এবং আমরা ৯৯%-এর আন্দোলনে সেই স্বপ্ন মূর্ত হতে শুরু করেছে।

১০০ মানুষ জেলে বসে আছেন। আজ সকালেই একজন বিচারক রায় দিয়েছেন যে, আমরা আমাদের জিনিসপত্র ফিরে পাওয়ার অধিকার রাখি, অধিকার রাখি আমাদের অবস্থানে ফিরে যাওয়ারও। তবে মেয়র ব্লুমবার্গ ঘোষণা দিয়েছেন, পার্কটি বন্ধই থাকবে। তাতে অবশ্য কিছুই আসে যায় না। আমরা আবারো রাস্তার দখল নেব। আমরা জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত স্থানগুলো দখল করে নেব। সর্বত্র আমরা এ কাজ করব। কারণ আমরা জানি যে, আমাদের চিন্তাকে হত্যা করা যাবে না।

কমন ড্রিমস থেকে ভাষান্তর [সাপ্তাহিক বুধবার থেকে]

স্থায়ী ক্যাম্পাস না গড়া বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বিপদ!


স্থায়ী ক্যাম্পাস না গড়া বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে বিপদ!


বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণের সর্বশেষ অবস্থা জানতে চেয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কোন কোন বিশ্ববিদ্যালয় সনদ অর্জনের যোগ্যতা অর্জন করেছে সেই তথ্য জানতে চেয়ে গত রবিবার বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কাছে চিঠি পাঠায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সংশিস্নষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণ করতে না পারা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যই এ তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০১০-এর ৪৭ ধারা উদ্ধৃত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে বলা হয়েছে, ১৯৯২ সালের আইনের অধীনে প্রতিষ্ঠিত যেসব বিশ্ববিদ্যালয় এখনো শর্ত পূরণ করে সনদ নিতে পারেনি সেসব বিশ্ববিদ্যালয়কে বিদ্যমান আইনের সংশিস্নষ্ট শর্ত পূরণ করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সনদ গ্রহণ করে স্থায়ী হতে হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যেসব বিশ্ববিদ্যালয় শর্ত পূরণ করে সনদ গ্রহণ করে স্থায়ী হতে পারবে না, সরকার সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের সাময়িক অনুমতি বাতিল করে বন্ধ ঘোষণা করবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়-গুলোর সর্বশেষ অবস্থা জানার জন্যই ইউজিসিকে এই চিঠি পাঠানো হয়েছে। ইউজিসি এ বিষয়ে তথ্য দেওয়ার পর একটি সভা করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হবে।

ইউজিসির সদস্য (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়) অধ্যাপক আতফুল হাই শিবলী কালের কণ্ঠকে বলেন, মন্ত্রণালয়ের চিঠি পাওয়ার পর স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কী অবস্থান সে বিষয়ে কাজ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত প্রায় ১০টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাসে গিয়ে পাঠদান কার্যক্রম শুরু করেছে।

সংশিস্নষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, স্থায়ী ক্যাম্পাসে কাজ শুরু করা এসব বিশ্ববিদ্যালয়ই সনদ পাওয়ার যোগ্যতা অর্জন করেছে। অন্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বিষয়ে কী হবে জানতে চাইলে অধ্যাপক শিবলী বলেন, আমরা (ইউজিসি) তথ্য দেওয়ার পর তাদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইনের আলোকে সনদ অর্জনে ব্যর্থ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সনদ অর্জনের গ্রহণযোগ্যতা সাপেক্ষে চলতি বছরের ফল সেমিস্টার পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ভর্তি করতে পারবে বলে গত ১৭ জানুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয় আদেশ জারি করে। ওই আদেশের আলোকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সর্বশেষ অগ্রগতি পর্যালোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ১৮ অক্টোবর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে একটি সভা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু অনিবার্য কারণে সভাটি হয়নি। এ অবস্থায় ফল সেমিস্টার শেষ হওয়ার পথে। ফলে স্থগিত হওয়া সভাটি শিগগিরই অনুষ্ঠিত হবে। আর ওই সভা সামনে রেখেই ইউজিসি থেকে সব তথ্য জানতে চেয়ে চিঠি দিয়েছে মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় সূত্রে আরো জানা যায়, গত বছরের ডিসেম্বরে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ যে ২২টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাপারে ্তুরেড অ্যালার্ট্থ জারি করেছিলেন সেগুলোর মধ্যে ১৪টি স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণে বিভিন্নভাবে উদ্যোগ নিয়েছে।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির সহসভাপতি আবুল কাশেম হায়দার কালের কণ্ঠকে বলেন, স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণের জন্য অনেক বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় জমি খুঁজছে। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মালিকের সঙ্গে আমার আলাপ হয়েছে। সরকারকে তাঁদের সময় দিতে হবে। কারণ জমি পেলেই তো হবে না, এগুলোর প্রসেস করতে একটু সময় লাগে। তিনি বলেন, যেসব বিশ্ববিদ্যালয় এরই মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে গেছে তারা সময় পেয়েছে ১২ বছর। অন্যদিকে যারা যেতে পারেনি তাদের (বিশ্ববিদ্যালয়) জন্ম হয়েছে মাত্র সাত-আট বছর। কাজেই স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণের জন্য সবাইকে একই পরিমাণ সময় দেওয়া উচিত।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের একটি সূত্রে জানা যায়, দেশে ৫৪টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সাতটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য কোনো উদ্যোগই নেয়নি। ৯টি বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ভবন রয়েছে; কিন্তু আইনানুযায়ী নির্ধারিত পরিমাণ জমিতে নয়। ১৭টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য জমি কিনেছে; কিন্তু অবকাঠামো নির্মাণ শুরু করেনি। সাতটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে, যারা স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য জমি কিনে এখন অবকাঠামো নির্মাণ করছে। ৯টি বিশ্ববিদ্যালয় এরই মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে চলে গেছে। তিনটি বিশ্ববিদ্যালয় আদালতের অনুমতি নিয়ে চালাচ্ছে। একটি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন না পাওয়ায় স্থায়ী ক্যাম্পাসের হিসাবে আসেনি।

সূত্র মতে, যেসব বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাসে গেছে সেগুলো হলো নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি চট্টগ্রাম, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম, আহ্‌ছান উলস্নাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এগ্রিকালাচার অ্যান্ড টেকনোলজি, বিজিসি ট্রাস্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি, ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ ও স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি। ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় সাভারে স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণ করেছে বলে ইউজিসিকে জানিয়েছে। তবে স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণসংক্রান্ত প্রয়োজনীয় কোনো তথ্য ইউজিসিতে পাঠানো হয়নি। সেখানে পুরোপুরিভাবে শিক্ষা কার্যক্রমও শুরু করা হয়নি।

যেসব বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য জমি কিনেছে এবং অবকাঠামো নির্মাণ করছে সেগুলো হলো ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি, গণবিশ্ববিদ্যালয়, সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটি, সিটি ইউনিভার্সিটি, দি ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ও ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি। যেসব বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য জমি কিনেছে কিন্তু অবকাঠামো নির্মাণ শুরু করেনি সেগুলো হলো আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, শান্ত মারিয়াম ইউনিভার্সিটি অব ক্রিয়েটিভ টেকনোলজি, ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়া, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, সাউদার্ন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অলটারনেটিভ, লিডিং ইউনিভার্সিটি সিলেট, ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস, ইবাইস ইউনিভার্সিটি, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি সিলেট, গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ, ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ, উত্তরা ইউনিভার্সিটি ও নর্দান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ।

যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ভবন আছে কিন্তু আইনানুযায়ী নির্ধারিত পরিমাণ জমিতে নেই সেগুলো হলো পিপলস ইউনিভর্সিটি অব বাংলাদেশ, মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, স্টেট ইউনিভার্সিটি, প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি, ডেফোডিল ইউনিভার্সিটি, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, দ্য মিলেনিয়াম ইউনিভার্সিটি ও সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

অতীশ দীপংকর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এক বিঘা জমি কিনেছে বলে জানিয়েছে। বিষয়টি ইউজিসি তদন্ত করছে।

এ ছাড়া আদালতের স্থগিতাদেশ নিয়ে চালু রয়েছে তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়। এগুলো হচ্ছে আমেরিকা বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি, কুইন্স ইউনিভার্সিটি, সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি। সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটির শিক্ষা কার্যক্রম চালানোর জন্য আদালতের রায় থাকলেও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমতি মেলেনি।

যেসব বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী ক্যাম্পাসের জন্য উদ্যোগ নেয়নি সেগুলো হলো দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয়, প্রাইম ইউনিভার্সিটি, ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি, প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি, প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি, রয়েল ইউনিভার্সিটি অব ঢাকা ও বাংলাদেশ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়।

দৈনিক কালের কণ্ঠ / প্রথম পাতা : ২৯/১১/২০১১
—————————————–
Here is the list of the UGC Approved private university of Bangaldesh:

1. Ahsanullah University of Science and Technology(AUST)
2. American International University – Bangladesh(AIUB)
3. America Bangladesh University
4. ASA University Bangladesh (ASAUB)
5. Asian University of Bangladesh (AUB)
6. Atish Dipankar University of Science & Technology(ADUST)
7. Bangladesh University(BU)
8. Bangladesh University of Business and Technology(BUBT)
9. Begum Gulchemonara Trust University(BGTU)
10. BGC Trust University Bangladesh(BTUB)
11. Brac University(BracU)
12. Central Women’s University
13. City University(CU)
14. Daffodil International University (DIU)
15. Darul Ihsan University
16. Dhaka International University(DIU)
17. East West University (EWU)
18. Eastern University (EU)
19. Gano Bishwabidyalay
20. Green University of Bangladesh (GUB)
21. IBAIS University
22. Independent University, Bangladesh (IUB)
23. International Islamic University Chittagong (IIUC)
24. International University of Business, Agriculture & Technology (IUBAT)
25. Leading University
26. Manarat International University (MIU)
27. Metropolitan University, Sylhet
28. North South University (NSU)
29. Northern University – Bangladesh (NUB)
30. Premier University , Chittagong
31. Presidency University
32. Prime University
33. Primeasia University
34. Pundra University of Science and Technology
35. Queens University
36. Royal University of Dhaka (RUD)
37. Santa Marium University of Creative Technology
38. South East University (SEU)
39. Southern University
40. Stamford University
41. State University of Bangladesh (SUB)
42. Sylhet International University
43. The People’s University of Bangladesh (PUB)
44. The Millenium University
45. The University of Asia Pacific (UAP)
46. United International University (UIU)
47. University of Development Alternative (UODA)
48. University of Information Technology & Sciences (UITS)
49. University of Liberal Arts Bangladesh (ULAB)
50. University of Science and Technology, Chittagong (USTC)
51. University of South Asia (UniSA)
52. Uttara University
53. Victoria University of Bangladesh
54. World University of Bangladesh

Private university in Bangladesh is increasing day by day. As the students are rapidly increasing & the number of public university in Bangladesh are very few; so there is no substitute of private university to manage the higher education for the passed students of all over the Bangladesh.

But students have to be careful to choose the correct private university (Which is UGC Approved) for him/her to enlighten his/her future academic life. I am saying so because a lot of private university is inaugurating almost every new year; who are just selling the certificates by taking lots of money without providing any proper and qualified education.

Meat not up to Islamic Law, market pays $527,000


Meat not up to Islamic Law, market pays $527,000
D.A.: Anaheim Super King Market was falsely selling halal meat.
By ERIC CARPENTER
2011-11-21

ANAHEIM – An Anaheim market has agreed to pay more than a half-million dollars in a civil settlement after claims that it falsely advertised and sold generic meat that it advertised as halal meat.

Calling meat “halal” indicates that it was butchered in a specific way and slaughtered in the name of Allah, making it permissible to eat in accordance with Islamic law.

An investigation by the Orange County District Attorney’s office found that Anaheim Super King Market was selling meat from various sources as Halal meat, even though it did not meet those standards.

The Anaheim Super King Market agreed Monday to pay $527,000 to settle the case. While Super King Market has several locations throughout Southern California, the settlement only applies to the Anaheim location. A spokesperson for Anaheim Super King Market could not be reached for comment.

The Anaheim market, located near Magnolia Avenue and Cerritos Street, is on the outskirts of a large Muslim-American district, often referred to as Little Arabia.

Officials with the Orange county Health Department began investigating the market in April 2010 and discovered that various meats were being delivered to the store with no clear labeling. Once reaching the display case, they were “co-mingled with generic meats” and falsely advertised as meeting halal standards.

The D.A.’s consumer-fraud unit began investigating in summer 2010. The same unit has prosecuted cases involving fraudulent health supplements and male-enhancement pills, among other cases.

The prosecution of Anaheim Super King resulted from concerns raised by the Health Department, not from a public complaint, said Farrah Emami, a spokeswoman for the District Attorney’s office.

“In some cases, if specific victims can be identified, they might receive part of a monetary settlement. But in this case, it’s impossible to know who all the victims might have been,” she said. So the money will be used to prosecute other consumer-fraud cases.

The settlement didn’t require the market to admit fault. Anaheim Super King now must only purchase meat that is clearly labeled on the invoice and packaging and must ensure that halal meat is properly segregated, according to the settlement.

Prosecuting such cases is important, the District Attorney said in a statement, because “it protects customers from deceptive and harmful business practices and also prevents the defendant from gaining an unfair advantage over legitimate businesses.”

Contact the writer: 714-704-3769 or ecarpenter@ocregister.com

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও আরবীয় জনগণের মতাদর্শিক সংঘর্ষ


মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও আরবীয় জনগণের মতাদর্শিক সংঘর্ষ


রামজে বারোউদ • স্বেচ্ছাচারীদের চ্যালেঞ্জ করা, পুরনো কাঠামো ধ্বংস করা এবং উন্নত ভবিষ্যতের জন্য কর্মপন্থা উদ্ভাবনের কাজে আরবদের সংগ্রাম অব্যাহত থাকলেও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার ব্যর্থ নীতি, ভুল ধারণা ও আত্মস্বার্থে অবিচল রয়েছে। আরবরা নিজেদের মধ্যে অনেক বিষয়ে ভিন্নমত পোষণ করে, কিন্তু এ বিষয়ে খুব কম লোকই ভিন্ন মত পোষণ করে যে, এখন পিছনে ফিরে যাওয়ার কোনো পথ নেই। মুবারক ও বেন আলীর মতো স্বেচ্ছাচারীদের যুগ শেষ হয়ে যাচ্ছে। তারা মনে করে, তাদের ওপর অর্পিত হয়েছে নতুন কিছু চ্যালেঞ্জসহ নতুন সকাল। এ এলাকায় গণতন্ত্র, সুশীল সমাজ ও নাগরিকত্ব বিষয় নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। আরবের যেসব বুদ্ধিজীবী এখনো সন্ত্রাসবাদ ও পারমাণবিক অস্ত্র নিয়ে বাগাড়ম্বর করে তাদের ওয়াশিংটন ভিত্তিক বুদ্ধিজীবী গোষ্ঠী কাজে লাগিয়েছে অথবা তাদের মধ্যে এমন কিছু বেপরোয়া লোক আছে যারা মিথ্যার বেসাতি বিক্রেতা রুপার্ট মারডকের ফক্স নিউজে উপস্থিত হন।

একটা কথা সহজে অনুমেয় – আরব বিশ্বের অগ্রাধিকার বিষয়গুলো এখন আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অগ্রাধিকারের বিষয় নয়। হোসনি মুবারক যখন মিসরের প্রেসিডেন্ট ছিলেন তখনকার অবস্থার সঙ্গে এখনকার অবস্থার মিল নেই। একদল ‘আরব মধ্যস্থতাকারীর’ পরিচালনায় মুবারকের প্রধান দায়িত্ব ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র নীতির প্রতিফলন ঘটানো। ব্যাপারটা ছিল যেন তা মিসরের জাতীয় স্বার্থের জন্যও একটা জরুরি বিষয়। ইতোমধ্যে সিরিয়ার বাশার আল আসাদ পরস্পরবিরোধী অবস্থার মধ্যে আটকা পড়ে গেছেন। তথাকথিত সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ বিষয়ে ভালো কাজে কৃতিত্ব লাভের জন্য তিনি বেপরোয়া ছিলেন – তিনি এখনো আরব প্রতিরোধের অভিভাবক হিসেবে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যখন ২০০১ সালের শেষ দিকে আফগানিস্তান দখল করে তখন ‘সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ’ কথাটা আরব সংস্কৃতিতে আলোচনার প্রধান বিষয়ে পরিণত করা হয়। সাধারণ আরববাসীদের এমন বিষয়ে উদ্যোগ নিতে বাধ্য করা হয় যা তাদের কাছে গুরুত্বহীন ছিল, অথচ সেই বিষয়টিই এ অঞ্চলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনী ও রাজনৈতিক কৌশলের ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে প্রতিভাত হয়।

আরব নারী-পুরুষ সবাইকে অধিকার ও মর্যাদা থেকে বঞ্চিত করা হয়, এমনকি তাদের আশাশূন্য করা হয়। তাদের শুধু ওসামা বিন লাদেন, আল কায়েদা ও অন্যান্য বিষয়ে জনমত জরিপের উপাদান হিসেবে গণ্য করা হয়। অথচ এসব বিষয় তাদের দৈনন্দিন জীবনের দুঃখ-কষ্ট ও অবমাননার জন্য দায়ী কোনো বিষয় ছিল না।

আরব স্বেচ্ছচারীরা তাদের নিজস্ব নিরাপত্তার স্বার্থে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বদ্ধ সংস্কারকে গ্রহণ করে। ইয়েমেনের আলী আবদুল্লাহ সালেহকে ‘আল কায়েদাকে পরাজিত’ করতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক শত্রুভাবাপন্নভাবে দখল অথবা নিজেকেই ক্ষতিকর একটি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ার মধ্যে যে কোনো একটা পথ বেছে নিতে হয়। তিনি শেষোক্ত বিকল্পটি বেছে নেন এবং এমন ভূমিকার ফলাফল হাতে হাতেই পেয়ে যান। ইয়েমেনী জনগণ রাস্তায় নেমে আসে – তারা দাবি করে স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের। সালেহ অনুগত বাহিনী ও রিপাবলিকান গার্ডদের পাঠান হঠাৎ বেড়ে যাওয়া আল কায়েদা যোদ্ধাদের এবং নিরস্ত্র গণতন্ত্রকামী লোকদের একসঙ্গে হত্যা করার জন্য। সরাসরি ও কঠোর এ কাজকে তুলনা করা যায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে অকথিত দরকষাকষির অাঁতাত, তোমাদের খারাপ লোকদের বিরুদ্ধে আমি যুদ্ধ করব যতক্ষণ আমি নিজেকে ধ্বংস করতে পারব এমন ভাবনার সঙ্গে।

লিবিয়ার মুয়াম্মার গাদ্দাফিও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অগ্রাধিকার বিষয়গুলো কাজে লাগান। তার শাসনামলে প্রতিনিয়ত জোর দেওয়া হয়েছে যে, বিরোধী দলগুলোর সদস্যদের মধ্যে আল কায়েদা আছে। এসব কথা পশ্চিমা গণমাধ্যমে যথেষ্ট গুরুত্ব পায়। পাশ্চাত্যকে শান্ত করার জন্য গাদ্দাফি এমন বেপরোয়া হয়ে যান যে, তিনি বলেন, বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে তার যুদ্ধ ফিলিস্তিনি ‘চরমপন্থীদের’ বিরুদ্ধে ইসরাইলের যুদ্ধের চেয়ে ভিন্ন কিছু নয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং আরব স্বৈরশাসকরা যে ভাষায় কথা বলেন তা নির্যাতনের ভাষা কোষে খুঁজে পাওয়া যায় না এবং এটা একটা বিস্ময়কর বিষয়। অপরদিকে সাধারণ আরব জনগণ তাদের দীর্ঘদিন ধরে অস্বীকৃত মৌলিক অধিকারগুলো ফিরে পাওয়ার আশায় উদ্বেলিত ছিল। আল কায়েদা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বর্ণনা অনুযায়ী আরব জনগণ ঐক্যবদ্ধ নয়, অন্য কিছু বিষয়ে তারা ঐক্যবদ্ধ যা পশ্চিমা ভাষ্যকার ও সরকারি কর্মকর্তাদের দৃষ্টি এড়িয়ে যায়। অংশীদারিত্বমূলক ইতিহাস, ধর্ম, ভাষা ও পরস্পরের প্রতি সহানুভূতিশীল ঐক্য ছাড়াও তাদের মধ্যে আছে নির্যাতন, বিচ্ছিন্নতা, অন্যায় ও অসাম্যের এক সাধারণ অভিজ্ঞতা।

২০০৫ সালে প্রকাশিত জাতিসংঘের তৃতীয় আরব উন্নয়ন রিপোর্টে বলা হয় যে, আধুনিক আরব রাষ্ট্রে ‘নির্বাহী প্রক্রিয়ার ধরন একটা কৃষ্ণ গহবরের মতো, যা এর আশপাশের সামাজিক পরিবেশকে এমনভাবে গঠন করে যে, তা থেকে কিছু এগিয়ে যায় না এবং যা থেকে কিছু পালিয়ে যেতে পারে না।’ আরব রাষ্ট্রগুলোর জন্য ২০০৯ সালটা খুব ভালো ছিল না। ওই সময় এ ধরনের রিপোর্টের পঞ্চম খন্ডে বলা হয়, ‘মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব বলে আশা করা হয়। অথচ বেশ কয়েকটা আরব দেশে দেখা গেছে, তা হয়ে উঠেছে আন্তর্জাতিক সনদ ও জাতীয় শাসনতান্ত্রিক ধারাগুলোর প্রতি হুমকিস্বরূপ।’ মে’তে টাইম ম্যাগাজিন ‘হাউ দ্য এরাব স্প্রিং মেড বিন লাদেন অ্যান আফটারথট’ শিরোনামে একটা রিপোর্ট প্রকাশ করে। আরব বিপ্লবের সম্মিলিত ধর্মনিরপেক্ষ প্রকৃতির কথা উল্লেখ করে ওই রিপোর্টে পাঠকদের স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়, মিসরের তাহরির স্কোয়ারে ওসামা বিন লাদেনের প্রশংসা করে কোনো ব্যানার দেখা যায়নি। তিউনিসিয়া, লিবিয়া বা এমনকি ইয়েমেনেও সরকারবিরোধী প্রতিবাদ মিছিলে তার ডেপুটি আয়মান আল জাওয়াহিরির কোনো ছবি দেখা যায়নি।’

সত্যের এই প্রকাশ পশ্চিমা মিডিয়ায় বিভিন্নভাবে প্রকাশ করা হলেও তাকে মোটামুটিভাবে বলা যায় একটা প্রতারণা। আসল কথা হলো, আল কায়েদা মডেল কখনো আরব সমাজের মূলধারায় প্রতিফলিত হয়নি। আরব বিপ্লব আল কায়েদা সম্পর্কে আরব সমাজের ধারণাকে চ্যালেঞ্জ করেনি। কারণ ওই ধারণা সমগ্র আরব সমাজের ধারণার খুবই সামান্য একটা অংশ মাত্র। যা হোক, এসব বিপ্লব আরবদের সম্পর্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি ধারণাকে এখনো সত্যিকারভাবে চ্যালেঞ্জ করেনি।

জগবি ইন্টারন্যাশনাল জুলাইয়ে এরাব অ্যাটিচিউড ২০১১ প্রকাশ করে। এতে ছয়টি আরব রাষ্ট্রের এমন ধারণা প্রকাশ পায় যা এতে আরবদের মধ্যে বারাক ওবামার জনপ্রিয়তা শতকরা ১০ ভাগ কমে যাওয়ার কথাও রয়েছে। ২০০৯ সালে কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ে ওবামা যখন তার বিখ্যাত ভাষণ দেন তখন অনেক আরব মনে করে যে, কোনো কোনো অংশে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-আরব অগ্রাধিকার চূড়ান্তভাবে এসে মিলেছে। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নীতি কোনো অনুকূল দিকে পরিচালিত না হওয়ায় আরবরা অনুধাবন করে, মার্কিন নীতিগুলো সুনির্দিষ্টভাবে নির্ধারিত হয়েই আছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার যুদ্ধ, ইসরাইলের প্রতি তার সমর্থন এবং তাদের পুরনো মিত্র অত্যন্ত দুর্নীতিপরায়ণ আরব শাসক ও অভিজাতদের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছে। আরবরা আবিষ্কার করেছে অথবা পুনরায় আবিষ্কার করেছে তাদের আশা-আকাঙ্ক্ষার সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নীতির কোনো মিল নেই, বরং ওই দুই ধারা আসলে সাংঘর্ষিক পর্যায়ে আছে।

এটা খুবই স্বাভাবিক, মধ্যপ্রাচ্যের মতো তেলসমৃদ্ধ দেশগুলোতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র স্পষ্ট স্বার্থ ও লক্ষ্যে তার নীতি পরিচালিত করবে। কিন্তু আসলে যা হচ্ছে তা হলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অগ্রাধিকারের জন্য অধিকাংশ আরব দেশের আশা আকাঙ্ক্ষা ও জাতীয় স্বার্থ পুরোপুরি ছিনিয়ে নেওয়া হচ্ছে। আরব স্বৈরাচারী শাসকদের সহায়তায় ওয়াশিংটনের অস্পষ্ট ও বিভ্রান্ত নীতি আরব জাতিগুলোর জন্য অকথিত ক্ষতি ডেকে এনেছে। লাখ লাখ সাধারণ আরব যাদের আশা-আকাঙ্ক্ষা ও অগ্রাধিকারকে পুরোপুরি হিসাবের বাইরে রাখা হয়েছে এবং এখন আরব জনগণ দেখাচ্ছে যে, তারা ওই বাস্তবতা গ্রহণে আর রাজি নয়।

ইন্টারনেট থেকে ভাষান্তর [সাপ্তাহিক বুধবার থেকে]
একুশ নিউজ মিডিয়া এখন ফেস বুক এ

কোন পথে আরব বিশ্ব


কোন পথে আরব বিশ্ব
তা রে ক শা ম সু র রে হ মা ন
আরব বিশ্বের রাজনীতি এখন কোন পথে? গেল বছরের নভেম্বরে তিউনিসিয়ার দীর্ঘদিনের শাসক বেন আলির দেশত্যাগের মধ্য দিয়ে যে পরিবর্তনের ধারা সূচিত হয়েছে তাতে গাদ্দাফির পতন ও মৃত্যুই শেষ কথা নয়। বরং পরিবর্তন আসছে সিরিয়ায়, সেখানে প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের পতন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। দিন যত যাচ্ছে, দেশটিতে গণঅসন্তোষ তত বাড়ছে। গত প্রায় আট মাস ধরে সেখানে সরকারবিরোধী যে আন্দোলন হচ্ছে, তাতে প্রায় তিন হাজার ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছে। গাদ্দাফির মৃত্যুর পর প্রেসিডেন্ট আসাদকে কিছুটা নমনীয় মনে হয়। গত ২ নভেম্বর কায়রোতে আরব লিগের প্রস্তাবনায় সিরিয়ায় সহিংসতা বন্ধে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। ওই চুক্তি অনুযায়ী সিরিয়ার বিভিন্ন শহর থেকে সেনা প্রত্যাহার, রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি ও বিরোধী পক্ষগুলোর সঙ্গে আলোচনার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু ওই চুক্তির ভবিষ্যত্ ইতোমধ্যে প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। কেননা চুক্তি স্বাক্ষরের পরও সিরিয়ার সেনাবাহিনী ট্যাঙ্ক ব্যবহার করেছে এবং একটি ঘটনায় ২৪ জন মানুষ হোমসে শহরে মারা গেছে। চলতি সপ্তাহে কায়রোতে সিরিয়ার সরকার ও বিরোধী দলের মাঝে আলাপ শুরু হওয়ার কথা। এই আলোচনার ফলাফলের ওপর অনেক কিছুই এখন নির্ভর করছে। বলা ভালো, আসাদের পিতা হাফিজ আল আসাদ ১৯৭১ সাল থেকেই সিরিয়ার ক্ষমতায় ছিলেন। বাথ পার্টির মাধ্যমে তিনি ক্ষমতা পরিচালনা করতেন। ২০০০ সালে তার স্বাভাবিক মৃত্যুর পর তার বড় সন্তান বাশার আল আসাদ ক্ষমতা গ্রহণ করেন।

আরব বিশ্বের এই যে পরিবর্তন, এই পরিবর্তনের ঢেউ গিয়ে লেগেছে বাহরাইনেও। সেখানে রাজনৈতিক স্বাধীনতা, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ও শাসক হামাদ বিন ঈসা আল খলিফার পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন হচ্ছে। গত ৪ নভেম্বর রাজধানী মানামায় বড় ধরনের বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে, সেখানে নারীরা অংশগ্রহণ করেছেন। পুলিশের গুলিতে একজন বিক্ষোভকারী মারাও গেছেন। তিউনিসিয়া থেকে শুরু করে বাহরাইন পর্যন্ত সর্বত্রই সরকার পতনের আন্দোলন হচ্ছে। কোথাও কোথাও সরকারের পরিবর্তন হয়েছে এবং একটি গণতান্ত্রিক ধারাও সেখানে শুরু হয়েছে। তিউনিসিয়ায় সর্বজন গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং একটি ইসলামিক শক্তি সেখানে নতুন শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। এন্নাহদার বিজয় আরব বিশ্বে নতুন এক রাজনৈতিক শক্তির জন্ম দিয়েছে। লিবিয়ায় গণ-আন্দোলনের মুখে গাদ্দাফির পতন হয়নি। একটি গৃহযুদ্ধে এবং বিদেশি শক্তির সামরিক হস্তক্ষেপে গাদ্দাফির সরকারের পতনই শুধু হয়নি, গাদ্দাফি নিজে নিহতও হয়েছেন। গাদ্দাফি-পরবর্তী লিবিয়াতে কোন ধরনের সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে তা নিয়েও নানা প্রশ্ন আছে। অন্তর্বর্তীকালীন সরকার আগামী আট মাসের মধ্যে সেখানে নির্বাচনের কথা বলছে। কিন্তু প্রশ্ন আছে অনেক। যদি লিবিয়াতে রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকারব্যবস্থা প্রবর্তন করা হয়, তা হলে আরেকজন স্বৈরাচারী একনায়কতন্ত্রের আবির্ভাব হওয়া বিচিত্র কিছু নয়। মুস্তাফা আবদেল জলিলের নেতৃত্বে একটি অন্তর্বর্তীকালীন প্রশাসন সেখানে যুদ্ধ পরিচালক করেছে এবং গাদ্দাফি-পরবর্তী রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করেছে। কিন্তু অন্তর্বর্তীকালীন প্রশাসনে দ্বন্দ্ব রয়েছে। বিশেষ করে সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহমুদ জিবরিলের ভূমিকা প্রশ্নের মুখে থাকবে। অতীতে আবদেল জলিল গাদ্দাফির বিচারমন্ত্রী ছিলেন। পক্ষ ত্যাগ করে তিনি বিদ্রোহীদের দলে যোগ দেন। কিন্তু জিবরিল যুক্তরাষ্ট্রে থাকতেন। পিটার্সবার্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করে সেখানেই বসবাস করেন। সম্ভবত তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক। জলিলের চেয়ে জিবরিল যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসনের খুব কাছের ব্যক্তি হবেন। যুদ্ধের কারণে প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র সাধারণ মানুষের কাছে চলে গেছে। গাদ্দাফি নিজেও অস্ত্রভাণ্ডার খুলে দিয়েছিলেন। ন্যাটোর বিমান থেকেও বিদ্রোহীদের জন্য অস্ত্র ফেলা হয়েছিল। এসব অস্ত্রের হদিস পাওয়া খুব কঠিন হবে। বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্রও রয়েছে ওইসব অস্ত্রশস্ত্রের মধ্যে। এই অস্ত্র আল কায়দার কাছে পৌঁছে যাওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। ফলে গাদ্দাফি-পরবর্তী লিবিয়ায় অস্ত্র একটি বড় ভূমিকা পালন করবে, যা গণতন্ত্রের উত্তরণে কোনো সাহায্য করবে না। গাদ্দাফি-পরবর্তী লিবিয়ায় ইসলামী জঙ্গিরা অন্যতম একটি শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হতে পারে। বেশ কয়েকটি জঙ্গি গ্রুপের খবর পাওয়া যায়, যারা গাদ্দাফির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছে; যেমন, বলা যেতে পারে Islamic Fighting Group (IFG), Abu Ubaidah-bin Januah Brigade, Abdel Hakim Belhadj Group, Tripoli Military Council কিংবা Salafi Group-এর কথা। এদের কারও কারও সঙ্গে আল কায়দার যোগাযোগ রয়েছে বলেও ধরে নেওয়া হয়। এক সময় IFG-কে পশ্চিমা শক্তি সমর্থন করেছিল। ১৯৯৬ সালে গাদ্দাফিবিরোধী আন্দোলনে IFG-কে যুক্তরাষ্ট্র সমর্থন করেছিল। এখন পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে অন্তর্বর্তী প্রশাসনের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক কী দাঁড়ায় সেটা দেখার বিষয়। গণতন্ত্রে উত্তরণের জন্য যা দরকার, তা হচ্ছে রাজনৈতিক দল ব্যবস্থাপনা, একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন, নিরপেক্ষ বিচারব্যবস্থা-যা লিবিয়াতে নেই। এখানে কোনো রাজনৈতিক দল নেই। এখন অন্তর্বর্তী প্রশাসনের সদস্যরা একাধিক দলের জন্ম দিতে পারেন এবং পরস্পরের বিরুদ্ধে ক্ষমতার দ্বন্দ্বে লিপ্ত হতে পারেন। লিবিয়ায় বেকার সমস্যা প্রকট। জনগোষ্ঠীর ৩০ ভাগ বেকার। লিবিয়ায় বিশাল তেলের রিজার্ভ থাকলেও তেলনির্ভর শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠেনি। লিবিয়ার জনগোষ্ঠীর ৪০ ভাগ হচ্ছে তরুণ। এদেরকে মূল ধারায় নিয়ে আসা, চাকরির ব্যবস্থা করা হবে কঠিন কাজ। না হলে এখানে চিরস্থায়ী একটি অস্থিতিশীলতা থাকবেই। লিবিয়া গোত্রকেন্দ্রিকভাবে বিভক্ত। গোত্রের লোকজন একত্রিত হয়ে মরুভূমি তথা পাহাড়ের নিচে বসবাস করেন। এরা আধুনিকমনস্ক নন। গাদ্দাফি যে গোত্রের প্রতিনিধিত্ব করেন, তারা গাদ্দাফির মৃত্যুকে সহজভাবে নেবেন না। ফলে একধরনের বিরোধিতা থেকেই যাবে। উপরন্তু দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে উত্তরাঞ্চলের বিরোধের জন্ম হয়েছে। তেল কূপগুলো পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত। বিদ্রোহ শুরু হয়েছিল দক্ষিণাঞ্চল থেকে। গাদ্দাফির পতনের পর লিবিয়ায় যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা শক্তিগুলোর প্রভাব বাড়বে। পশ্চিমা শক্তিগুলোর আগ্রহ মূলত লিবিয়ার তেল ও গ্যাসের কারণে। বিশ্বের রিজার্ভের ৩৫ ভাগ তেল রয়েছে লিবিয়ায়, যার পরিমাণ ৬০ বিলিয়ন ব্যারেল। গ্যাস রিজার্ভ রয়েছে ১ হাজার ৫০০ বিলিয়ন কিউবিক মিটার। যুদ্ধের আগে প্রতিদিন তেল উত্তোলিত হতো এক দশমিক তিন মিলিয়ন ব্যারেল থেকে এক দশমিক ছয় মিলিয়ন ব্যারেল। ভূমধ্যসাগরের নিচ দিয়ে পাইপের সাহায্যে এই গ্যাস যায় ইতালিতে (ত্বেবহংঃত্বধস চরঢ়বষরহব)। লিবিয়ার অভ্যন্তরে মাত্র এক ডলারে তেল পাওয়া যেত। অথচ আন্তর্জাতিক বাজারে ব্যারেলপ্রতি তেলের মূল্য ৮০ ডলার। সুতরাং আন্তর্জাতিক তেল কোম্পানিগুলোর স্বার্থটা কোথায় তা সহজেই অনুমেয়। লিবিয়ার পুনর্গঠনের নামে তখন লিবিয়াতে ব্যবসা খুঁজবে মার্কিনি কোম্পানিগুলো। আর লিবীয় সরকারকে তেল বিক্রি করে (অতিরিক্ত তেল উত্তোলন করে) পুনর্গঠনের বিল পরিশোধ করতে হবে। ঠিক যেমনটি হয়েছে ইরাকে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্রাটেজিতে লিবিয়ার অবস্থান খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পেন্টাগন যে দীর্ঘ পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে, তাতে লিবিয়া একটি ফ্যাক্টর। লিবিয়ার প্রশাসনকে যদি হাতে রাখা যায়, তা হলে উত্তর আফ্রিকা নিয়ন্ত্রণ করা সহজ। লিবিয়া নিয়ন্ত্রণে এলে পার্শ্ববর্তী শাদ ও নাইজারও নিয়ন্ত্রণে আসবে। শাদ ও নাইজারে রয়েছে তেল ও ইউরেনিয়াম, যা যুক্তরাষ্ট্রের জন্য খুবই প্রয়োজন। একুশ শতকে যে নতুন আফ্রিকার জন্ম হতে যাচ্ছে, সেখানে ফরাসি ভাষাভাষী অঞ্চলে কর্তৃত্ব বাড়বে যুক্তরাষ্ট্রের। কঙ্গো, রুয়ান্ডা, আইভরি কোস্ট ছিল একসময় ফ্রান্সের কলোনি। ফরাসি ভাষা এখানে সরকারি ভাষা। এ অঞ্চলে তখন বাড়বে যুক্তরাষ্ট্রের কর্তৃত্ব। ইতোমধ্যেই আফ্রিকাতে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে নতুন একটি মিলিটারি কমান্ড অঋজওঈঙগ। এ জন্য লিবিয়ায় ‘বন্ধুপ্রতিম’ সরকারের খুব প্রয়োজন ছিল। গাদ্দাফির মত্যু এই হিসাবটা সহজ করে দিল। লিবিয়ার ঘটনাবলি দিয়ে এটা প্রমাণিত হয়ে গেল যে, পৃথিবীর যেকোনো রাষ্ট্রের সরকারকে উত্খাত করার ক্ষমতা যুক্তরাষ্ট্র রাখে। তবে অবশ্যই সেই সরকারকে যুক্তরাষ্ট্রের অপছন্দের হতে হবে। অতীতে গাদ্দাফিকে যুক্তরাষ্ট্র তার স্বার্থে ব্যবহার করেছে। ইরাকে সাদ্দামের বিরুদ্ধে অভিযানের সময়ও যুক্তরাষ্ট্র গাদ্দাফিকে তার স্বার্থে ব্যবহার করেছিল। প্রয়োজন ফুরিয়ে যাওয়ায় গাদ্দাফিকে চলে যেতে হল। এভাবে একটি স্বাধীন দেশে ন্যাটোর বিমানবহর দিয়ে হামলা কোনো আন্তর্জাতিক আইন অনুমোদন করে না। এটা স্পষ্টতই আন্তর্জাতিক আইনের বরখেলাপ। নিরাপত্তা পরিষদ লিবিয়ায় তথাকথিত ‘গণহত্যা’(?) ঠেকাতে ন্যাটোর বিমান হামলার অনুমতি দিয়েছিল। কিন্তু সরকার পরিবর্তনের কোনো অনুমতি দেয়নি। কিন্তু দুর্ভাগ্য হচ্ছে নিরাপত্তা পরিষদে এ কথাগুলো আর কেউ বলবে না। বিশ্বব্যাপী যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আফ্রিকায় সামরিক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার স্বার্থেই লিবিয়ায় সরকার পরিবর্তন হল।

প্রশ্ন হচ্ছে, সমগ্র আরব বিশ্বের এই যে পরিবর্তন, এই পরিবর্তন কি সেখানে একটি গণতান্ত্রিক সংস্কৃতির জন্ম দেবে? তিউনিসিয়ায় এন্নাহদা পার্টির উত্থান সেখানে একটি ‘তুরস্ক মডেলের’ জন্ম দিতে যাচ্ছে। তুরস্কে ইসলাম আর গণতন্ত্রের সমন্বয়ে নতুন এক রাজনৈতিক সংস্কৃতির জন্ম হয়েছে। তুরস্কে ইসলামপন্থীরা কট্টরপন্থী নন। এরা আল কায়দাকে সমর্থনও করে না। বরং আল কায়দার রাজনীতিকে সমালোচনা করে। আধুনিকমনস্ক তুরস্কের নেতৃত্ব ইসলামিক বিশ্বে নতুন এক ইমেজ নিয়ে এসেছে। এন্নাহদার নেতা ঘান্নুচি তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী এরদোগানের রাজনীতির অনুসারী। এ কথা তিনি স্বীকারও করেছেন। একসময় মিসরের ইসলামিক ব্রাদারহুড পার্টির রাজনীতিতে আকৃষ্ট হয়েছিলেন ঘান্নুচি। এখন সেখান থেকে কিছুটা সরে এসেছেন। ‘তুরস্ক মডেল’ এখন তার কাছে আদর্শ। আগামী ২৮ নভেম্বর মিসরে সংসদ নির্বাচন। সেখানে ইসলামিক ব্রাদারহুড পার্টির বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তবে ক্ষমতাসীন সামরিক জান্তার সঙ্গে তাদের সম্পর্ক কোন পর্যায় গিয়ে দাঁড়ায় সেটাই দেখার বিষয়। সামরিক জান্তা প্রধান ফিল্ড মার্শাল তানতাবি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলেই ধারণা করা হচ্ছে। দেশটিতে অশান্ত পরিস্থিতি দিন দিন বাড়ছে। এখানে ইসলামপন্থীদের ক্ষমতা পরিচালনা করা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই গেল। ইয়েমেনের পরিস্থিতি একটু ভিন্ন। প্রেসিডেন্ট সালেহ ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিলেও এখনও পর্যন্ত সেই প্রতিশ্রুতি তিনি রাখেননি। তুলনামূলক বিচারে আল কায়দা অনেক শক্তিশালী ইয়েমেনে। এখানে গণতান্ত্রিক শক্তিগুলোর বিজয়ের সম্ভাবনা ক্ষীণ। তরুণ সমাজ সেখানে সালেহবিরোধী আন্দোলন গড়ে তুলেছিল। কিন্তু তাদের কোনো সংগঠন নেই। তবে আল কায়দার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট জঙ্গি গোষ্ঠীগুলোকে নিয়ে একটা ভয় থেকেই গেল। সিরিয়াতেও এদের তত্পরতা রয়েছে।
স্পষ্টতই আরব বিশ্বে ইসলামিক শক্তির উত্থান ঘটেছে। ১৯৫২ সালে মিসরে জামাল আবদুন নাসেরের ক্ষমতা গ্রহণের মধ্য দিয়ে আরব জাতীয়তাবাদী রাজনীতির জন্ম হয়েছিল, যা ছড়িয়ে গিয়েছিল প্রতিটি আরব রাষ্ট্রে। এখন তিউনিসিয়ায় গণতন্ত্রমনা একটি ইসলামিক শক্তির উত্থান সমগ্র আরব বিশ্বে ছড়িয়ে যায় কি না সেটাই দেখার বিষয়।

লেখক : অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
tareque.rahman(a)aol.com

একুশ নিউজ মিডিয়া এখন ফেস বুক এ

Believe it or not- Distressed children of Bangladesh: How can you help?


Dhaka | Monday| 21 November 2011 | 07 Agrahayan 1418 BS | 24 Zilhajj 1432 HIJRI
Daily Sun

Believe it or not
Distressed children of Bangladesh: How can you help?
Abdullah A Dewan
Abdullah A Dewan

Distressed children are everywhere in every country — an estimated one billion globally — and six million alone in Bangladesh. That’s why you see them every day wherever you go. Don’t many of us often turn our eyes away when we see them to escape from our qualms of conscience and moral callings to come to their rescue? I see these children everyday whenever I visit Bangladesh and meet people amongst us who work to save them from pains of hunger, disease, and the miseries of illiteracy.

Many of us are involved in some isolated way, helping some of these children in our locality back home. I have finally decided go one step further — join our friends Ruqsana Ahmed and Shafi Ahmed, among others, who are passionately involved in the rescue initiatives of these destitute and despairing children through their charity Distressed Children and Infants International (DCI).

On 15 October, Ruqsana and Shafi organised a fund raising dinner and discussions in Flint Michigan, attended by nearly 200 Bangladeshi professionals. The mayor of Flint and some local American doctors and their spouses also joined the event. Most notably, the fund raising festivity was festooned by the participation of Bangladesh celebrity movie star Bobita — designated as the goodwill ambassador of the DCI. Her speech highlighting her involvement with the DCI was highly motivating — to say the least.

Founded in 2003 by its current Executive Director Ehsan Hoque (MBBS, Ph.D), the DCI is a US registered nonprofit charitable organisation dedicated to the cause of underprivileged children worldwide.

The charity has been actively working in Bangladesh since 2005 with the mission to provide impoverished children with education, basic needs and health care, while enlightening young Americans about the challenges these children face daily and their possible role. At the fund raising event, Dr Hoque, who himself is being diagnosed nearly blind, articulated why he has sacrificed his profession to found an organisation for the welfare of the distressed children.

Unlike many traditional NGOs operating in Bangladesh, the DCI is nearly 100 per cent volunteer based (except a few paid field workers) and funded 100 per cent from charitable donations. Because of its volunteer based operations, the DCI can devote 93 per cent of its funds for the welfare of distressed children with administrative, and fund raising costs accounting for mere a 5 and 2 per cent respectively.

The uniqueness of the DCI is that it is US based, and organised and directed by Bangladeshi Americans — physicians, engineers, university professors, businessmen, homemakers, and so on. Its brochure and website will show that many distinguished American doctors and university professors are also involved for the cause of distressed children globally. The current President of the DCI is Dr Brian DeBroff, a Professor at the Yale University School of Medicine.

With Yale University’s support, the DCI’s annual conference on Child Rights and Sight is held at the Yale campus. The 3rd conference was held on 10 September 2011 in which I was invited as a guest speaker. In the conference, the activities of the DCI were particularly accentuated by speakers from the Amnesty International, UNICEF, International Labour Organisation, Bangladesh’s permanent representative at the UN and many other important dignitaries.

Of the estimated one billion poverty-badgered children worldwide, 250 million are reportedly child labourers of which 22,000 die every year in work-related accidents. Many of these child workers have no access to education and are snarled in low-skilled, low-paid jobs — drifting deeper and deeper into broken health and an entrenched cycle of perpetual poverty trap — if they survive at all. Other glaring statistics include 30,000 children dying each day due to poverty, 1.4 million dying every year from unsafe drinking water and inadequate sanitation and 2.2 million dying because of lack of immunisation.

According to a 2008 UNICEF report, there are nearly six million children between the ages of 5 and 15 in Bangladesh who are forced to work just to survive. Most of them virtually have no access to medical care and schooling. Nearly 450,000 children are living on the streets being exposed to physical and sexual abuse. Among them, girls in particular are prey for gangs who run street brothels. Reports of trafficking and commercial exploitation of children are not startling news to anyone anymore in Bangladesh. The problem is getting worse day by day and thus warrants attention and help from all quarters.
The flagship programme of the DCI is its Sun Child Sponsorship (SCH) initiatives. For just $15 a month, one can make a world of difference — giving hope from despair and life from death to a deprived child. Bangladeshi families living in Michigan have sponsored about 75 children so far and counting. Some of the notable accomplishments of the SCH programmes are:

-Blindness Prevention Pro-gramme: Emphasises preventative measures and education along with vision screening and eye surgery camps. So far 6822 children have received eye care, 255 received cataract surgeries and 100 primary ophthalmologists were trained in pediatric cataract surgery.

-Health for Underprivileged Programme: Provides curative and preventive health care for residents of slum areas. So far 17500 Dhaka City residents are receiving this support and 250 pregnant mothers have received prenatal care.

-Orphan Support Progra-mme: Provides basic necessities such as food and shelter as well as education, healthcare, and training services to orphans.

-Disaster Relief and Rehabi-litation Programme: Rebuilt 30 Sidr-destroyed houses and one school, and provided relief support to 1500 villagers of Sidr victims. Some 500 victims of Cyclone Aila and 1000 victims of 2007 flood were given relief support under the programme.

At present, 228 families are receiving skill-training and financial support for income generating activities and 68 underprivileged women have already developed independence by being hired as the DCI tutors.

Some recent activities of the DCI also include building an orphanage in Muhammadpur, Dhaka which was opened last year and now is fully operational — serving 18 orphan girls. The DCI’s health clinics are providing free treatment services to the families of Mohammadpur and Kallayanpur slum areas. Safe Motherhood Day was also observed on 28 May by the DCI addressing the problem of high maternal mortality rate among the underprivileged. The DCI operates a programme to help the mothers of Kallayanpur and Muhammadpur slums to ensure healthy pregnancies and safe deliveries.

An eye screening and surgery camp was opened in the Kallayanpur slum on 3 June with the help of two ophthalmologists, Dr Ferdous Akhter and Dr Shahana Karim of BIRDEM, Dhaka. On 6 June this year, the DCI’s collaboration with Diabetic Association of Bangladesh was renewed and expanded to include Childhood Blindness Preven-tion Programme through-out Bangladesh.
We cannot expect the government to do everything for everyone. The fortunate amongst us may get involved to work as volunteers, donors or sponsors of a child. So, please visit www.distressedchildren.org.

The mission of rescuing the distressed children from poverty and illiteracy, and providing medical care may seem “mission impossible”. But if we all get involved, in whatever small way possible, we can certainly brighten their future with hopes. Admittedly, I joined in this altruistic cause belatedly. However, I do not feel too bad for being late — better late than never.

The writer, formerly a Physicist and Nuclear Engineer, is a Professor of Economics at Eastern Michigan University.
Direct Link – The daily Sun:
—————————————————————————————————————————–

আতঙ্কিত ধনিকগোষ্ঠী


আতঙ্কিত ধনিকগোষ্ঠী

পল ক্রুগম্যান • গত ১৫ মে স্পেনের ‘ক্ষুদ্র জনতার আন্দোলনের’ রেশ ধরে ১৭ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া যুক্তরাষ্ট্রের ‘ওয়াল স্ট্রিট দখল করো’ আন্দোলনের উত্তাপ এখন ছড়িয়ে পড়েছে আমেরিকা-ইউরোপ হয়ে আফ্রিকা, এশিয়া ও অস্ট্রেলিয়া পর্যন্ত। শনিবার বিশ্বের ৮২টি দেশের ৯শ’রও বেশি শহরে লাখ লাখ মানুষ বিক্ষোভে শামিল হয়। পুঁজিবাদের সাম্প্রতিক প্রতিভূ করপোরেট ব্যবসায়ীদের লোভ-লালসা ও সীমাহীন লুটপাট, সে কারণে ধনী-দরিদ্রে্যর ব্যাপক বৈষম্য এবং এই লুটপাটের সহযোগী সরকারগুলোর ব্যয় সংকোচননীতি ও ধনীদের বেইল আউটের নামে কোটি কোটি ডলারের অর্থ সাহায্যের বিরুদ্ধে এই বিক্ষোভ পরিচালিত হচ্ছে। পুঁজিবাদের অন্তর্নিহিত ব্যবস্থাপনা দুর্বলতার কারণেই যে বর্তমান এই পরিস্থিতি এবং এই পরিস্থিতি যে মোকাবিলার শক্তিও সে ক্রমশই হারিয়ে ফেলছে তারই আভাস মিলছে এই বিক্ষোভের মধ্য দিয়ে। বিশ্বায়নের ধারায় মাত্র ১ শতাংশের লুটপাটের বিরুদ্ধে ৯৯ শতাংশের প্রতিবাদেরও বিশ্বায়ন ঘটছে, এরই নমুনা পাওয়া গেছে গত শনিবার। এরই বিশ্লেষণধর্মী দুটি লেখা প্রকাশ করা হলো এই বিক্ষোভের অন্তর্নিহিত কার্যকারণ অনুধাবনের জন্য।

ওয়াল স্ট্রিট দখল করো আন্দোলন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে বদলে দেয় কিনা তা দেখতে আমাদের আরো অপেক্ষা করতে হবে। তথাপি ওয়ালস্ট্রিট, সাধারণভাবে অতি বিত্তবান এবং রাজনীতিবিদ ও পন্ডিত যারা মূলত অধিকাংশ অর্থবিত্তের মালিক এক শতাংশ মার্কিনিদেরই স্বার্থ রক্ষা করে থাকে তারা এই আন্দোলনের বিরুদ্ধে প্রলাপ বকতে শুরু করেছে। তাদের এ ধরনের প্রতিক্রিয়ায় বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ধরা পড়েছে। তারা বলছে, চরমপন্থীরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মূল্যবোধ ধ্বংস করে দিতে চাচ্ছে। যেমন এফডিআর ওয়াল স্ট্রিট আন্দোলনকারীদের জাকুতি পার্কে সমবেত প্রতিবাদকারী না বলে ‘অর্থনৈতিক রাজানুগত্যবাদী’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।

একটু দেখে নেওয়া যাক রিপাবলিকান রাজনীতিকরা ক্রমশ ছড়িয়ে পড়তে থাকা অহিংস এই আন্দোলনকে কীভাবে চিত্রিত করছে। একথা ঠিক যে, আন্দোলনকারীরা ইতোমধ্যেই পুলিশের সঙ্গে দফায় দফায় বিরোধে জড়িয়ে পড়েছে। পুলিশও মাঝে মাঝে তাদের ওপর বেশিমাত্রায়ই চড়াও হয়েছে। তা সত্ত্বেও পরিস্থিতি এমন দাঁড়ায়নি যে, একে দাঙ্গা আখ্যায়িত করতে হবে। এসব ঘটনাকে কোনোভাবেই ২০০৯ সালের গ্রীষ্মে সংঘটিত টি পার্টির আন্দোলনের সঙ্গেও তুলনা করা যাবে না।

তারপর হাউজে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা এরিক ক্যান্টর আন্দোলনকারীদের হুজুগে জনতা আখ্যায়িত করে বলেছেন, ‘এরা এক মার্কিনিকে আরেক মার্কিনির বিরুদ্ধে খেপিয়ে তুলছে।’ আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান পার্টি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী মিট রমনি বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে ‘শ্রেণী সংগ্রাম’ শুরুর অভিযোগ এনেছেন। অন্যদিকে হারম্যান কেইন তাদের ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রবিরোধী’ বলে অভিহিত করেছেন। সিনেটর র‌্যান্ড পল আমার একজন প্রিয় ব্যক্তিত্ব। তিনিও কি জানি কি কারণে মনে করছেন আন্দোলনকারীরা আই প্যাডগুলো ছিনিয়ে নেবে। কারণ তারা মনে করে, এগুলো ধনীদের প্রাপ্য নয়।

নিউইয়র্কের মেয়র মাইকেল ব্লুমবার্গ নিজ যোগ্যতায়ই একজন ধনবান ব্যক্তি, আচার-আচরণেও সজ্জন এবং অপেক্ষাকৃত নমনীয় বলে পরিচিত। অথচ তিনিও আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে এই মর্মে অভিযোগ এনেছেন যে, তারা নাকি এই নগরে বসবাসকারী লোকজনের চাকরি-বাকরি কেড়ে নিতে চায়। অথচ আন্দোলনের প্রকৃত লক্ষ্যের সঙ্গে এ জাতীয় অভিযোগের কোনো মিলই নেই।

আপনি যদি সিএনবিসিতে প্রচারিত আলাপ-আলোচনা শুনতেন তাহলে শুনতে পেতেন যে, সেখানে বলাবলি হচ্ছে ‘আন্দোলনকারীরা তাদের খেয়ালের পতাকা উড়িয়ে যায় যাক’, ‘আসলে তারা তো হচ্ছে লেনিনেরই দোসর’।

বর্তমান অবস্থাটি বুঝতে হলে আগে বুঝতে হবে যে, এই অবস্থানটি হচ্ছে বৃহত্তর একটি প্রেক্ষিতের উপসর্গমাত্র। আসল ব্যাপার হলো বিপুল অর্থ সম্পদের অধিকারী ধনাঢ্য মার্কিনিরা বিশেষ একটি ব্যবস্থার মাধ্যমে নিজেদের জন্য সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলছে। আর যখনই কেউ তাদের এই সম্পদ সংগ্রহের প্রক্রিয়াটি নিয়ে কোনো রকম প্রশ্ন তোলে তখনই তারা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে।

আপনাদের নিশ্চয় মনে আছে, গত বছর প্রেসিডেন্ট ওবামা বড় বড় আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মালিকের বিরুদ্ধে মৃদু সমালোচনার সুরে কথা বলেছিলেন। আর তাতেই তারা ওবামার ওপর প্রচন্ড রকম ক্ষেপে যান। ওবামা ভলকার আইন নামে একটি আইনের অনুমোদন দিয়েছিলেন। তাতে বলা ছিল কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে আর্থিক সাহায্যের সুবিধাপ্রাপ্ত ব্যাংকগুলো কোনো রকম অনুমাননির্ভর বিনিয়োগের ঝুঁকি নিতে পারবে না। এই কারণেই সংশ্লিষ্ট ব্যাংক মালিকরা ক্ষেপে গিয়ে ওবামার আচরণকে প্রায় সমাজতান্ত্রিক বলে অভিহিত করেছিলেন। আর তাদের প্রস্তাব মতো কর নীতিতে পরিবর্তন মেনে নেওয়ার পর দেখা গেল, তাদের কাউকে কাউকে খুব অল্প পরিমাণেই কর দিতে হচ্ছে। এই অবস্থাটিকে ব্ল্যাকস্টোন গ্রুপের চেয়ারম্যান স্টিফেন স্কেয়ার্জম্যান হিটলারের পোল্যান্ড আক্রমণের সঙ্গে তুলনা করেছেন।

অন্যদিকে এলিজাবেথ ওয়ারেনের মতো ভদ্র মহিলাদের বিরুদ্ধে কুৎসা রটনার মতো ঘটনাও থেমে নেই। এলিজাবেথ আর্থিক খাতের একজন সংস্কারক হিসেবে পরিচিত। তিনি বর্তমানে ম্যাসাচুসেট থেকে সিনেটর পদপ্রার্থী। কিছুদিন আগে তিনি একটি ইউটিউব ভিডিওচিত্রে ধনীদের ওপর বেশিমাত্রায় করারোপের পক্ষে কথা বলেছিলেন। তার বক্তব্যে এমন কোনো বিপ্লবাত্মক কথাবার্তা ছিল না। এমনকি অলিভার ওয়েন্ডেল হোমের সেই বিখ্যাত আপ্ত বাক্যের চেয়েও তার বক্তব্য কম ধারালো ছিল। অলিভার তো তার সেই বক্তব্যে বলেছিলেন, ‘আমরা একটি সভ্য সমাজের উদ্দেশ্যেই কর প্রদান করে থাকি।’

কিন্তু মিস ওয়ারেনের বিরুদ্ধে সম্পদশালীদের পক্ষে ওকালতি করা মানুষজনের কথা শুনলে আপনার মনে হবে, মিস ওয়ারেনের রূপ ধরে বুঝিবা লিওন ট্রটস্কির দ্বিতীয় দফা মর্ত্যে আগমন ঘটেছে। জর্জ উইল তো বলেই বসলেন, ওয়ারেন একটি সমবায়ী এজেন্ডা নিয়েই এগুচ্ছেন এবং তিনি বিশ্বাস করেন, ব্যক্তিতান্ত্রিকতা হচ্ছে এক ধরনের পৌরানিক দানব। আর রাশ লিমবাগ তাকে ‘পরগাছা’ আখ্যায়িত করে বলেছেন, ‘ওয়ারেন এমন একটি পরগাছা যে কিনা তাকে আশ্রয় দেওয়া গাছটিকেই ঘৃণা করে। যে গাছটির গায়ে জড়িয়ে থেকে সে তার জীবনের উপদান সংগ্রহ করছে সে গাছটিকেই সে আবার ধ্বংস করে দিতে চায়।’ সেখানে আসলে ঘটছেটা কী? উত্তর হলো- ওয়াল স্ট্রিটে আস্তানা গেঁড়ে থাকা বিশ্ব মোড়লরা বুঝে গেছেন, নিজেদের অবস্থান ধরে রাখার পক্ষে নৈতিক কোনো শক্তি এখন আর তাদের অবশিষ্ট নেই। তারা কোনো জন গাল্ট নন, নন কোনো স্টিভ জবসও। তারা আসলে এক ধরনের আর্থিক ফেরিওয়ালা। অর্থের সব জটিল ফাঁদ পেতে নিজেরা বিপুল বিত্তবৈভব হাতিয়ে নিচ্ছেন। তাদের কর্মকান্ড মার্কিন জনগণের কোনো উপকারেই আসছে না। উপরন্তু, তাদের এসব ফন্দিফিকির আমাদের বড় ধরনের সংকটের মধ্যে ফেলে দিচ্ছে। যার ফলস্বরূপ লাখ লাখ কোটি কোটি মার্কিন নাগরিকের জীবন দুর্বিষহ হয়ে পড়ছে।

এতকিছুর পরও কোনো রকম ক্ষতিই তাদের গুনতে হচ্ছে না। তাদের দেউলিয়া হয়ে যাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোকে মার্কিন জনগণের করের টাকায় বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে। এক্ষেত্রে তাদের অবদান খুবই সামান্য। তারা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে প্রকাশ্য এবং অপ্রকাশ্য বিভিন্ন ধরনের সুবিধা ভোগ করছে। এখনো তারা সামনের দিকে থেকেই মজা লুটছে। আর পেছনে থাকা করদাতা জনগণ তাদের সবকিছুই হারাচ্ছে। তারা কর নীতিতে থেকে যাওয়া ফাঁকফোকড় গলিয়ে কর প্রদানের ক্ষেত্রে বড় ধরনের রেয়াত পেয়ে যাচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে তাই দেখা যায় কোটি কোটি ডলার আয়-উপার্জনকারীদের চেয়ে মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোর দেওয়া করের পরিমাণ বেশি।

তারা যে এ ধরনের বাড়তি সুবিধা পাচ্ছে তা নিয়ে কোনো রকম উচ্চবাচ্য করা যাবে না। কেউ যদি করতে চায় এবং যত ভদ্র ভাষায়ই তা করা হোক না কেন, তাকে রক্ষক বা দৈত্য হিসেবে চিত্রিত করা হবে এবং মঞ্চ থেকে বিতাড়িত হবে সে। বস্ত্তত, একজন মানুষ যত বেশি পরিশীলিত ভাষায় এবং যুক্তিসঙ্গত উপায়ে তাদের সমালোচনা করবে সেও ঠিক তত বেশি পরিমাণেই দৈত্য হিসেবে আখ্যায়িত হবে। এলিজাবেথ ওয়ারেনের ক্ষেত্রেও তাই ঘটেছে। সুতরাং, প্রকৃতপক্ষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রবিরোধী কে? অবশ্যই আন্দোলনকারীরা নয়, যারা কেবল তাদের বক্তব্যগুলো উপস্থাপনের চেষ্টা করছে। নিজেদের কথাগুলো অন্যদের কাছে পৌঁছে দিতে চাইছে। আসল চরমপন্থী হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শাসকগোষ্ঠী, যারা তাদের বিপুল বিত্তবৈভব আহরণের বিরুদ্ধে সোচ্চার যে কোনো কণ্ঠস্বরকে স্তব্ধ করে দিতে চায়।

লেখক নোবেলজয়ী মার্কিনি অর্থনীতিবিদ [সাপ্তাহিক বুধবার থেকে]

%d bloggers like this: