দীর্ঘ প্রবাসবাসে আনমনে যে নস্টালজিয়ার জন্ম হয়, শিকড়ের টানে তা যে কত দৃঢ় এবং কতটা গভীরে প্রোথিত, প্রবাস জীবনে স্বদেশের সাথে গ্রন্থিত রজ্জু যার হৃদয়বৃন্তে নেই, তার পক্ষে এই যন্ত্রণার আনন্দ উপলব্ধি করা সম্ভব নয়।

ভেতরে কেবলই হিংসার চাষবাস

নাসীর মাহমূদ

ছেঁড়া কাঁথায় শুয়ে লাখ টাকার স্বপ্ন দেখার মতো একটা অবাস্তব অর্থ প্রদানকারী প্রবচনের সাথে অনেকেরই পরিচয় রয়েছে। এই প্রবচনটিকে মিথ্যা প্রমাণিত করে ছেঁড়া কাঁথায় শুয়েই লাখ টাকার স্বপ্নকে কিছুটা হলেও বাস্তব করে তুলেছিলেন যেই ব্যক্তিটি তিনি বাংলাদেশের বিখ্যাত অর্থনীতিবিদ প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ইউনূস। দীর্ঘ প্রবাসবাসে আনমনে যে নস্টালজিয়ার জন্ম হয়, শিকড়ের টানে তা যে কত দৃঢ় এবং কতটা গভীরে প্রোথিত, প্রবাস জীবনে স্বদেশের সাথে গ্রন্থিত রজ্জু যার হৃদয়বৃন্তে নেই, তার পক্ষে এই যন্ত্রণার আনন্দ উপলব্ধি করা সম্ভব নয়। কবি নজরুল জাহান্নামের আগুনে বসে পুষ্পের হাসি হাসতেন। তার ওই হাসি ফাঁসির মঞ্চেও যে হাসা যায়, তা সমগ্র অস্তিত্ব দিয়ে বুঝতে পারছি প্রবাসে এসে। প্রবাস মানেই যন্ত্রণা, প্রবাস মানেই কষ্ট। এই অবস্থান থেকে যখন বাংলাদেশী হিসেবে গর্ব করার মতো কোনো খবর পৃথিবীময় ছড়িয়ে যায়, তখন নজরুলের ওই হাসিটা একান্ত বাস্তব হয়ে ওঠে। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল যখন জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করে, ভারত কিংবা পাকিস্তানের মতো দেশ অথবা অহঙ্কারী অস্ট্রেলিয়াকে যখন খেলায় হারায় তখনো তা বাস্তব হয়ে ওঠে। ড. ইউনূসের নোবেল পুরস্কার প্রাপ্তি তেমনই এক নজরুলি হাসির বাস্তবতা। প্রবাসে বাংলাদেশীরা যত ভালো পদেই কাজ করুন না কেন, তাদের মর্যাদা তৃতীয় বিশ্ব অর্থাৎ বিশ্বের তৃতীয় শ্রেণীর নাগরিকের ঊর্ধ্বে নয়। তবু এ ধরনের গর্ব করার মতো আশ্চর্য সন্দেশ থার্ড ক্লাস ফার্স্ট হওয়ার মতো একটা আত্ম-পরিতৃপ্তি এনে দেয়। নোবেল বলে কথা, বাংলাদেশী বলে কথা। যারা আমাদের ঝড়ের দেশ, বন্যার দেশ, অভাবের দেশ বলে তাচ্ছিল্যের ভাব দেখায়, তাদের বুক ফুলিয়ে বলতে পারা যায় নতুন সংযোজনীর কথা­ নোবেল পুরস্কারে ভূষিত দেশ। ড. ইউনূস তখন আর ব্যক্তি থাকেন না, হয়ে যান সমগ্র দেশের কিংবা বলা ভালো সমগ্র বিশ্বের। নোবেল পুরস্কারের বিশ্ব শিরোপা তিন বাঙালি পরলেও ড. ইউনূসকে নিয়ে আমাদের গর্ব আগের তুলনায় অনেক অনেক বেশি। এই অভিব্যক্তির ফলে যে প্রশ্নটি সামনে এসে দাঁড়াবে তার উত্তরটাও বেশ দীর্ঘ। আজ তা আমাদের আলোচ্য নয়। আলোচ্য প্রসঙ্গে যাওয়ার আগে দেশোত্তীর্ণ এই বিশ্বব্যক্তিত্বকে আমি সুদূর প্রবাস থেকে জানাই সালাম এবং আন্তরিক অভিনন্দন।

দুইঃ হিংসুক শুকায় প্রতিবেশীর সুখে। নিজের নাক কেটে হলেও তাই প্রতিবেশীর সুখ নষ্ট করা চাই। এ রকম অদ্ভুত সব চিন্তা আর প্রবাদ নদীর স্রোতময় ধ্রুপদী সঙ্গীতে ভরা, নিবিড় সবুজে ঘেরা, ফুল-পাখি আর বিচিত্র নৈসর্গিক সৌন্দর্যের বাংলাদেশে কী করে জন্মাল তা বুঝে আসে না। অজানা সেই লতাতন্তুজাল টেনে বের করা আমার কাজ নয়, আমার বরং দেখতে ইচ্ছে করে ঈর্ষা আর হিংসামুক্ত বাংলাদেশ। যে বৃক্ষটি সাতচল্লিশের কৃত্রিম ঝড়ে দ্বিখণ্ডিত হলো, সেই ঝড় পশ্চিমাংশের জলের দু’পাড়ে ফেলে রেখে গিয়েছিল দু’টি বীজ। একাত্তরের পর আজ দুই হাজার দশে এসে দেখছি ওপারের বীজটি ফলে-ফুলে সজ্জিত। যদিও অতিথি পাখিরা এসে খেয়ে যাচ্ছে সব। তবু বৃক্ষটির শিকড়জুড়ে আছে পরমাণুর আপাত শক্তি। আর এপারের বীজটি থেকে যে বৃক্ষটি বেড়ে উঠেছিল তার শিকড়জুড়ে ইঁদুরের বসতি। প্রতি কয়েক বছর পরপর তার শেকড় ও ডালপালা কেটে যে যার মতো নিয়ে যাচ্ছে। এখন তাই বনসাই হয়ে আছে সে। আমাদের দেশের মালিরা এই বাগানের সেবার বিচিত্র প্রতিশ্রুতি দিয়ে কাজে যোগ দিয়ে অবশেষে বাগান উজাড় করে ফেলে। পিতৃত্ব কিংবা যে দোহাই যা দিয়েই কাজে লাগুক না কেন, ভেতরে কেবলই হিংসার চাষবাস। কারো বেশি কারো কম। তবে বৈজ্ঞানিক উপায়ে কিংবা বলা ভালো, ডিজিটাল পদ্ধতিতে যেভাবে এখন হিংসার চাষ হচ্ছে, সে রকম বাম্পার ফলন বাংলাদেশে ইতঃপূর্বে আর হয়নি। সাবাস বাংলাদেশ। হিংসা তাই এখন ডিজিটাল মাত্রা পেয়েছে, অনন্য শিরোপা লাভ করেছে। অনেকেই বলেন, ডিজিটাল পদ্ধতির হিংসার চাষবাস প্রথমে হয়েছে নির্বাচনে, তারপর পিলখানা হয়ে মইনুল রোডে। আর উৎপাদিত এই হিংসাপণ্য ডিজিটালি পৌঁছে গেছে বাংলার ঘরে ঘরে। চারদিকে তাই এখন হিংসার জয়োল্লাস। হিংসাটা ভয়ঙ্কর। প্রতিবেশীর বাগানে ফুল সুগন্ধি ছড়ায়, আমার কেন তা নেই, তাই ফুলের ওই বাগানটি ধ্বংস করে দিতে হবে­ এরই নাম হিংসা। ঈর্ষাটা কিন্তু মন্দ নয়। প্রতিবেশীর বাগানের মতো আমারও একটি বাগান চাই এবং সেখানেও ফুটুক ফুল, ছড়াক সুগন্ধি­ এই হলো ঈর্ষা। তাই হিংসার বদলে ঈর্ষার চাষ হলে বাগানটা ফুলে-ফলে আরো রঙিন আরো শ্যামল হয়ে উঠত। উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া এ বাড়ির প্রতিইঞ্চি মাটিতে, প্রতিটি ধূলিকণায় এখন হিংসার চাষ। তাই এ মাটিতে গড়ে না কিছুই, কেবলই ভাঙে। ভাঙে বৃক্ষ, ভাঙে বাগান, ভাঙে আবহমান ঐতিহ্য আর স্মৃতিময় ডালপালা। আমরা ভাঙনের এই সংস্কৃতির অবসান চাই। আবহমান এই ভাঙনের পরিবর্তে গড়ার প্রবণতায় ঋদ্ধ সমৃদ্ধ হয়ে উঠুক আমাদের মন আর মনন­ সে রকম সুস্থতার চর্চা দেখতে চাই। একজনের নোবেল শিরোপা কেড়ে নিয়ে কিংবা তার ওপর নোংরামির নাড়িভুঁড়ি চাপিয়ে দিয়ে অর্জনকে ্লান না করে আমরা আরো বেশি নোবেল অর্জনের চেষ্টা দেখতে চাই। দেখতে চাই আরো অনেক অনেক প্রাপ্তি যোগ। মনে রাখা উচিত, সম্মান পেতে হলে সম্মান দিতে হয়, দিতে জানতে হয়। সম্মান দেয়ার মাঝে, আচার-আচরণের মাঝে, কথাবার্তার মাঝে মন-মানসিকতা এবং আভিজাত্যের পরিচয় ফুটে ওঠে। যাদের নিজেদের সম্মান-সম্ভ্রমের অভাব আছে, কেবল তারাই আরেকজনের সম্মানের ব্যাপারে তোয়াক্কা করে না। দেশের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে এসবের চর্চা হলে নিু পর্যায়ে যে বেয়াদবির ধারার সূচনা ঘটবে তা বোধ হয় এখন আর কারো কাছেই অস্পষ্ট নয়। কেননা দেশবাসী এখন নিজেদের সব অস্তিত্ব দিয়ে তা অনুভব করছে। ড. ইউনূস সোনার মেকুরের মতো কারো দুধের বাটি খেয়ে যাননি। বরং একটা ধারণা এনে দিয়েছেন, দিতে চাচ্ছেন। অনেকেই তার সোশ্যাল বিজনেস নিয়ে কিংবা বিদেশীদের ঋণ প্রদান নীতিতে পরিবর্তনের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে নেতিবাচক কথা বলছেন। সমসাময়িক অনেক অর্থনীতিবিদকেও দেখছি ড. ইউনূসের নতুন এই বিজনেস না বোঝার ভান করছেন অনেকটা সচেতনভাবে অচেতন থাকার মতো। ড. ইউনূসের সহজ কথাটি হলো­ বিদেশীরা যেসব ঋণ দেয় সেসব টাকা গঠনমূলক কিংবা লাভজনক কোনো কাজে ব্যবহার করার সুযোগ তারা দেয় না। সে জন্য ঋণের ফলে সাহায্যগ্রহীতা দেশের কোনো লাভ হয় না, বরং তার মাথায় ঋণের বোঝা বেড়েই যেতে থাকে। কিন্তু ‘সামাজিক ব্যবসা তহবিল’ সৃষ্টি করা গেলে গ্রহীতা দেশের মধ্যে ওই তহবিলের টাকা ক্রমান্বয়ে বাড়বে, দেশের সমস্যা সমাধানে নতুন নতুন উদ্ভাবনীমূলক সামাজিক ব্যবসার কর্মকাণ্ড সৃষ্টি হবে। এই দৃষ্টিভঙ্গি থেকেই ড. ইউনূস বলতে চাচ্ছেন বিদেশী দাতাদের উদ্দেশ করেঃ ‘কর্মচঞ্চল এই হাতে দান নয়, কাজের সুযোগ করে দাও’। এই দৃষ্টিভঙ্গি বা ধারণা দোষণীয় তো নয়ই বরং প্রশংসনীয় এবং ধন্যবাদার্হ বলেই মনে করি।

এবার আসা যাক ড. ইউনূস সম্পর্কে উত্থিত কিছু আপত্তি প্রসঙ্গে। ড. ইউনূস একজন মানুষ, মেধাবী মানুষ। তিনি অতিমানব বা ফেরেশতা নন। তিনি তাই দোষের ঊর্ধ্বে নন। আমরা যারা অপরের দোষ ধরে অভ্যস্ত তারা নিজেদের কথা ভাবি না। একটিবার আত্মসমালোচনা করি না। ড. ইউনূস যা কিছুই করেছেন তা দেশের জন্য অমঙ্গল নয় মঙ্গলই বয়ে এনেছে, সম্মান বয়ে এনেছে। এই সম্মান আর মর্যাদায় দেশের ভেতরে এবং বাইরে অনেকেই হিংসার চর্চা করে থাকতে পারেন। এই চিন্তাটি মাথায় রেখে আমরা কি পারি না কারা এসব করছে, কেন করছে, কাদের ইঙ্গিতে করছে­ সেসব নিয়ে তদন্ত করতে? একটা শ্রেণীকে দেখা যায় ড. ইউনূসের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নিয়ে বিভিন্ন রকম হাইপোথিসিস দাঁড় করাচ্ছে। কোনো একটি বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে না পৌঁছে কিংবা নিশ্চিত না হয়ে হুট করে কাউকে দোষী সাব্যস্ত করে অরুচিকর, হীনম্মন্য, হিংসুক কোনো মন্তব্য করা কতটা যৌক্তিক, তা ভেবে দেখা উচিত। বাইরের কেউ এসে আমাদের ঘরের বিষয়ে মাতব্বরি করলে আমাদের সম্মান বাড়ে কী কমে সেটাও কি একবার ভেবে দেখা যায় না? ঘরের উত্থাপিত সমস্যাকে পরের হাতে তুলে না দিয়ে নিজেদের ভেতরে মীমাংসার পরিবর্তে কারা একে বিতর্কিত ইসুø বানিয়ে বিশ্বব্যাপী আমাদের অর্জনকে ্লান করে দিতে চাচ্ছে তাদের বরং শনাক্ত করা উচিত। নিজেদের ঘরের ব্যাপারে বাইরের কাউকে নাক গলাতে দেয়াই ঠিক নয়। আমাদের ভাবতে হবে, চাঁদের গায়ে দূর থেকে যেসব কলঙ্ক দেখা যায়, সেসব সত্ত্বেও তার জ্যোৎস্নায় কোনোরকম কলঙ্ক থাকে না। আনন্দিত যে ড. ইউনূস তার গায়ের কলঙ্ককে অস্বীকার করার লক্ষ্যে সুষ্ঠু তদন্তকে স্বাগত জানিয়েছেন। দেশপ্রেমী যেকোনো নাগরিকও তার এই দৃঢ়তায় আনন্দিত হবে সেটাই স্বাভাবিক।
nasir.radio@gmail.com

Advertisements

তথ্য কণিকা Jahan Hassan জাহান হাসান
Ekush, Publisher/Editor/ Hollywood media hyphenate/ একুশ নিউজ মিডিয়া, লিটল বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস / 1 818 266 7539 / FB: JahanHassan

2 Responses to দীর্ঘ প্রবাসবাসে আনমনে যে নস্টালজিয়ার জন্ম হয়, শিকড়ের টানে তা যে কত দৃঢ় এবং কতটা গভীরে প্রোথিত, প্রবাস জীবনে স্বদেশের সাথে গ্রন্থিত রজ্জু যার হৃদয়বৃন্তে নেই, তার পক্ষে এই যন্ত্রণার আনন্দ উপলব্ধি করা সম্ভব নয়।

  1. Delwar says:

    Thank you so much Mr. Nasir Mahmud for your excellent writings. I am sure, so many people will criticize you, but pls. do not stop your pen, rather continue it and we espect more article from you.

    Thanks.

    Delwar

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: