ইনসাইডার ট্রেডিং এসইসিকে আরো কঠোর হওয়া উচিত

ইনসাইডার ট্রেডিং এসইসিকে আরো কঠোর হওয়া উচিত

ইনসাইডার ট্রেডিং (আগাম তথ্য ফাঁস) বন্ধে সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (এসইসি) আইন থাকলেও বাস্তôবে এর কোনো প্রয়োগ নেই। ১৯৯৩ সালে প্রণীত আইন ১৯৯৫ সালে সংশোধন করে ব্যবহার উপযোগী করা হয় এবং ২০০৪ সালে এটি অধিকতর ব্যবহারের জন্য পুনঃসংশোধন করা হয়। কিন্তু বড়ই পরিতাপের বিষয় গত ১৭ বছরে প্রকাশ্যে কিংবা অপ্রকাশ্যে এসইসির এবং ডিএসইর জ্ঞাতসারে, আবার অনেক সময় অজ্ঞাতসারে হাজার হাজার বার ইনসাইডার ট্রেডিংয়ের মতো ঘটনা ঘটেছে। অথচ এ পর্যন্তô একজন ব্যক্তি কিংবা একটি প্রতিষ্ঠানকেও ওই আইনের আওতায় ফেলে নিয়ন্ত্রক সংস্থা শাস্তিô দিতে পারেনি বা দেয়নি। এর মধ্যে ঐতিহাসিক ৯৬ গেল, ২০০৪ গেল, এখন ২০১০ যাচ্ছে। এ কারণে ২০১০ বলা হচ্ছে যে, গত ১৫ দিনের বাজার পর্যালোচনা করে দেখা যায় প্রায় ২০টির অধিক কোম্পানির লভ্যাংশ ও রাইট শেয়ার দেয়ার তথ্য এ সময় বাজারে আগাম ফাঁস হয়ে গেছে। আর এতে এক শ্রেণীর বিনিয়োগকারী অতি মুনাফার আশায় ঝুঁকিপূর্ণ শেয়ারে বিনিয়োগ করেছেন। অনেক সময় দেখা গেছে, এসব আগাম তথ্যের মধ্যে কোনোটা সত্য আবার কোনোটা শুধুই গুজব।

আমরা নিশ্চিত যেগুলো সত্য হয়েছে সেগুলোর তথ্য পাচারের সঙ্গে অবশ্যই কোম্পানি বা নিরীড়্গক অথবা তাদের সংশিস্নষ্ট কোনো পড়্গ জড়িত ছিল। কিন্তু এত বড় একটি বিষয়ের ব্যাপারে এসইসি একেবারে নির্বিকার। সংস্থাটি একজনের ব্যাপারেও যদি কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতো তাহলে পরে এজন্য আরো অনেকেই সতর্ক হতে পারতো। অথচ বাজার সুস্থ এবং স্বাভাবিক রাখতে এ কাজটি ছিল এখন তাদের জন্য অতি জরম্নরি। আমরা দৈনিক শেয়ার বিজ্‌ কড়চা পত্রিকার পড়্গ থেকে এসইসিকে এতটুকু আশ্বস্তô করতে চাই আগামীতে যদি তারা ইনসাইডার ট্রেডিংয়ের বিরম্নদ্ধে কোনো শাস্তিôমূলক ব্যবস্থা নেয় তাহলে আমরা শুধু এ দেশের লাখ লাখ ড়্গুদ্র বিনিয়োগকারীর স্বার্থে প্রথম পৃষ্ঠায় ব্যানার হেডলাইন দিয়ে লিড নিউজ করার ব্যবস্থা করবো ইনশাআলস্নাহ। কারণ এ অপরাধটি যে কত ভয়াবহ তা এ দেশের মানুষের জানা না থাকলেও আমরা জানি, বিশ্বের অন্যান্য দেশে এর সাজা কত কঠোর এবং নির্মম। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ইনসাইডার ট্রেডিংয়ের অপরাধে একজন শ্রীলঙ্কান বংশোদ্‌ভূত মার্কিন বিনিয়োগকারীর ১৭ বছর জেল হয়েছিল। মাত্র একটি কোম্পানির শেয়ার বিক্রির ব্যাপারে এজেন্টের কাছে শুধু ইয়েস (হ্যা) শব্দটি উচ্চারণ করায় আমেরিকার স্বনামধন্য মহিলা বিনিয়োগকারী মারথা স্টুয়ার্ডকে ৬০ দিন হাজতবাস করতে হয়েছে।

উলেস্নখ্য, অভিযুক্ত ওই মহিলা মাত্র ৩ হাজার ডলারের বিনিময়ে শেয়ারটি বিক্রি করেছিলেন। এ ২টি ঘটনার উদাহরণ সামনে রেখে এসইসিকে এগোতে হবে। আগামী দিনগুলোতে এ ধরনের অনৈতিক লেনদেনের ড়্গেত্রে সংস্থাটি আরো কঠোর হবে বলে আমরা আশা করি। আমাদের বিশ্বাস এতে বরং ড়্গুদ্র বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ আরো বেশি সংরড়্গিত হবে।
শেয়ার বিজ কড়চা সম্পাদকীয়ঃ ১১.০১.১০

Advertisements

তথ্য কণিকা Jahan Hassan জাহান হাসান
Ekush, Publisher/Editor/ Hollywood media hyphenate/ একুশ নিউজ মিডিয়া, লিটল বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস / 1 818 266 7539 / FB: JahanHassan

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s