পরিমাপের ৰেত্রে আন্তর্জাতিক পদ্ধতি অনুসরণ না করায় ডিএসই সূচক বাস্তবতার চেয়ে অনেক উচ্চ অবস্থানে রয়েছে

সূচক নির্ধারণে দুই স্টক এক্সচেঞ্জের অভিন্ন নীতিমালা হবে
ডিএসইর সূচকে ভুলত্রুটি সংশোধনের সময় বাড়িয়েছে এসইসি

আন্তর্জাতিক পদ্ধতি অনুসরণ করে একই নীতিমালার ভিত্তিতে সূচক পরিমাপের জন্য দুই স্টক এক্সচেঞ্জকে নির্দেশ দিয়েছে পুঁজিবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিকিউরিটিজ এ্যান্ড এঙ্চেঞ্জ কমিশন (এসইসি)। আগামী ১৫ নবেম্বরের মধ্যে সূচক পরিমাপের অভিন্ন এই নীতিমালা প্রণয়ন করে কমিশনের কাছে পেশ করতে হবে। গতকাল মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত এসইসির সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

কমিশন সভা শেষে এসইসির মুখপাত্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক আনোয়ারুল কবীর ভুঁইয়া সাংবাদিকদের জানান, এর আগেই দুই স্টক এক্সচেঞ্জে সূচক পরিমাপের জন্য ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অব সিকিউরিটিজ কমিশনস (আইওএসকো) এর সূত্র অনুসরণ করে অভিন্ন নীতি প্রণয়নের জন্য বলা হয়েছিল। এজন্য ডিএসইকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় দেয়া হয়েছিল। কিন্তু ওই সময়ের মধ্যে তারা তা করতে পারেনি। এজন্য কমিশন ১৫ নবেম্বর পর্যন্ত সময় বৃদ্ধি করেছে।

জানা গেছে, পরিমাপের ৰেত্রে আন্তর্জাতিক পদ্ধতি অনুসরণ না করায় ডিএসই সূচক বাস্তবতার চেয়ে অনেক উচ্চ অবস্থানে রয়েছে বলে ধারণা করা হয়। ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অব সিকিউরিটিজ কমিশনস (আইওএসকো) সূত্র অনুযায়ী, বাজারে কোন নতুন কোম্পানির শেয়ার লেনদেন শুরম্ন হলে প্রথম দিনের লেনদেনকে বিবেচনায় নেয়া হয় না। লেনদেনের দ্বিতীয় দিনের সূচনা মূল্যের ভিত্তিতে সূচক নির্ধারণ করতে হয়। ১৯৯৮ সাল থেকেই ডিএসই সূচক নির্ধারণের ৰেত্রে আইএসকোর সূত্র অনুসরণ করার ঘোষণা দিয়েছে। কিন্তু ১২ বছর ধরে নতুন কোম্পানির লেনদেন শুরম্নর ৰেত্রে এই পদ্ধতি অনুসরণ করেনি ডিএসই। এতদিন বাজারে নতুন কোন শেয়ার এলে প্রথম লেনদেনের সঙ্গে অভিহিত মূল্যের তুলনা করে ওই কোম্পানিকে সূচকে অনত্মভর্ুক্ত করা হয়েছে। আনত্মর্জাতিক মান অনুযায়ী নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানির লেনদেন শুরম্ন হওয়ার পর দ্বিতীয় দিন থেকে তা সূচকে অনত্মর্ভুক্ত হয়। চট্টগ্রাম স্টক এঙ্চেঞ্জ (সিএসই) এই পদ্ধতি অনুসরণ করলেও ডিএসই তা করছে না। সংশিস্নষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সূচক নির্ধারণে ভুল-ত্রম্নটি সংশোধনের জন্য গত জানুয়ারিতে এসইসির পৰ থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়। ওই সময় আইএসকোর সূত্র অনুসরণ করে দেশের দুই স্টক এঙ্চেঞ্জ যাতে একই পদ্ধতিতে সূচক পরিমাপ করে_ তা নিশ্চিত করার জন্য অভিন্ন নীতিমালা প্রণয়নেরও তাগিদ দেয়া হয়। কিন্তু দীর্ঘদিনেও এই কাজটি শেষ করতে পারেনি ডিএসই। সর্বশেষ অভিন্ন নীতিমালা প্রণয়নের জন্য ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যনত্ম সময় দেয়া হয়েছিল।

কিন্তু আন্তর্জাতিক পদ্ধতি অনুসরণ করে সূচক সংশোধন করতে পারেনি ডিএসই। ফলে এখনও শেয়ারবাজারের প্রকৃত অবস্থানের তুলনায় ডিএসই সূচক অনেক উচ্চ অবস্থানে রয়ে গেছে। এতে বাজার সম্পর্কে বিনিয়োগকারীরা ভুল সঙ্কেত পাচ্ছেন।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, সূচকের ভুল-ত্রম্নটি সংশোধন করে নতুন পদ্ধতিতে সূচক নির্ধারণের জন্য অধ্যাপক শামসুল হককে প্রধান করে তিন সদস্যের বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করা হয়েছে। নতুনভাবে সূচক নির্ধারণের জন্য তারা কাজ করছেন। সেপ্টেম্বরের মধ্যেই এই কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা সম্ভব হয়নি। এসইসির বর্ধিত সময়ের মধ্যেই এই কাজ শেষ করা সম্ভব হবে বলে সংশিস্নষ্টরা জানিয়েছেন।

Advertisements

তথ্য কণিকা Jahan Hassan জাহান হাসান
Ekush, Publisher/Editor/ Hollywood media hyphenate/ একুশ নিউজ মিডিয়া, লিটল বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস / 1 818 266 7539 / FB: JahanHassan

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s