দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির অন্যতম কারণ জনসংখ্যাঃ খাদ্যমন্ত্রী দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৪৪ লাখ

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির অন্যতম কারণ জনসংখ্যাঃ খাদ্যমন্ত্রী দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৪৪ লাখ
-প্রথম আলো
খাদ্য ও দুর্যোগব্যবস্থাপনা মন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখা কঠিন হচ্ছে। দেশের বিপুল জনসংখ্যা, কিছু মানুষের উপার্জন বৃদ্ধি এবং আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির কারণে এ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।
গতকাল বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘বিশ্ব জনসংখ্যা পরিস্থিতি ২০১০’-এর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে আব্দুর রাজ্জাক এ কথা বলেন। জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপিএ) এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
ইউএনএফপিএর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের জনসংখ্যা এখন ১৬ কোটি ৪৪ লাখ। খাদ্যমন্ত্রী বলেন, এই বিপুল জনসংখ্যা দেশের জন্য আতঙ্কজনক। প্রতি বর্গকিলোমিটারে এক হাজার ১০০ মানুষ বাস করে। দেশের জনসংখ্যার ৩৮ শতাংশ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে। তিনি বলেন, দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করা মানুষের হার কমলেও প্রকৃত সংখ্যা অনেক বেশি। জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও কৃষিজমি কমে যাওয়া খাদ্যনিরাপত্তার ড়্গেত্রে বড় সমস্যা।
খাদ্যমন্ত্রী বলেন, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি উন্নয়নসূচির শীর্ষে থাকা উচিত। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে জনসংখ্যাবিষয়ক সর্বোচ্চ পরিষদের সভা হয়েছে। সরকার বিষয়টিকে যথাযথ গুরুত্ব দিচ্ছে এবং জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি জোরদার করার পদড়্গেপ নিয়েছে।
খাদ্যসংকট দূর করতে, ক্রয়ড়্গমতা বাড়াতে, পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবারের সরবরাহ নিশ্চিত করতে একাধিক মন্ত্রণালয় মিলে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে বলেও জানান খাদ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, এ বছর কোনো মঙ্গার খবর সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়নি। এ বছর বোরোর বাম্পার ফলন হয়েছে। অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি ফলন হয়েছে। কিন্তু সমস্যা হলো, দাম কমানো সম্্‌ভব হচ্ছে না। তিনি বলেন, বিপুল জনসংখ্যার পাশাপাশি এর অন্য কারণ হচ্ছে কিছু মানুষের আয় বেড়েছে। আগে যারা এক বেলা খেত, এখন তারা দুই বেলা খাওয়ার মতো আর্থিক সামর্থø অর্জন করেছে। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি টন খাদ্যশস্যের দাম ১০০ ডলারের মতো বেড়েছে।
অনুষ্ঠানের শুরুতে একটি প্রামাণ্যচিত্র দেখানোর পর ইউএনএফপিএর প্রতিবেদনের আনুষ্ঠানিক মোড়ক উন্মোচন করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রশ্নোত্তর-পর্বে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তা বলেন, ইউএনএফপিএ বাংলাদেশের মানুষের যে সংখ্যা ব্যবহার করছে, তাতে আগামী বছরের আদমশুমারিতে সংখ্যার ড়্গেত্রে ব্যাপক পার্থক্য হতে পারে। সরকারের পরিসংখ্যানে দেশের জনসংখ্যা ইউএনএফপিএর প্রকাশ করা সংখ্যার চেয়ে প্রায় এক কোটি কম।
ইউএনএফপিএর পরিসংখ্যান গ্রহণ করছেন কি না-সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, কোনো পরিসংখ্যান তিনি গ্রহণ বা বর্জন করছেন না। দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধি অন্যতম সমস্যা-এটাই তাঁর কাছে বড় কথা।
ইউএনএফপিএর আবাসিক প্রতিনিথি আর্থার আর্কেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিড়্গক মাহবুবা নাসরিন ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিড়্গক মেহেদী আহমেদ আনসারী।

 

 

Advertisements

তথ্য কণিকা Jahan Hassan জাহান হাসান
Ekush, Publisher/Editor/ Hollywood media hyphenate/ একুশ নিউজ মিডিয়া, লিটল বাংলাদেশ, লস এঞ্জেলেস / 1 818 266 7539 / FB: JahanHassan

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: